দুর্নীতির অভিযোগে তদন্ত শুরু হতেই পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দুর্নীতির অভিযোগে তদন্ত শুরু হতেই  পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সোমবার বম্বে হাইকোর্ট মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেয়। তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই 'নৈতিক কারণে' পদত্যাগ করলেন দেশমুখ। তাঁর বিরুদ্ধে তোলাবাজি ও পুলিশে বেআইনি বদলি করানোর অভিযোগ তুলেছিলেন মুম্বইয়ের প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার পরমবীর সিং। কয়েক সপ্তাহ ধরেই বিজেপি তাঁর পদত্যাগের দাবি তুলেছিল। কিন্তু দেশমুখ বলেছিলেন, তিনি কোনও অন্যায় করেননি।

পদত্যাগের প্রশ্নই ওঠে না। কিন্তু এদিন দেশমুখের দল ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টির তরফে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, 'সিবিআই তাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত করবে। এই অবস্থায় আর তাঁর পদ আঁকড়ে থাকা উচিত নয়।' এর আগে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ নিয়ে দেশমুখের প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হয়। তিনি মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন। গত মাসে ধনকুবের মুকেশ আম্বানির বাড়ির কাছে একটি বিস্ফোরকভর্তি গাড়ি পাওয়া যায়।

পরে ওই গাড়ির মালিক মনসুখ হিরানি খুন হন। বাণিজ্যনগরীর আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে নানা প্রশ্ন ওঠে। তার জেরে মুম্বইয়ের পুলিশ কমিশনার পরমবীর সিংকে সরানো হয়। অনিল দেশমুখ বলেন, পুলিশ কমিশনারকে সরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন স্বয়ং উদ্ধব ঠাকরে। এর পরেই অনিল দেশমুখের বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করেন পরমবীর সিং। তাঁর বক্তব্য, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর ঘনিষ্ঠ অফিসারদের দিয়ে তোলা তোলাতেন। তাঁদের বলে দেওয়া হয়েছিল, প্রতি মাসে অন্তত ১০০ কোটি টাকা তোলা তুলতে হবে।

মনসুখ হিরানির মৃত্যুর পরে যে পুলিশকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে, সেই সঞ্জয় ভাজও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ ছিলেন। হাইকোর্টে এর আগের শুনানির দিন পরমবীর সিং বলেন, 'আমি মুম্বই পুলিশের সর্বোচ্চ পদে ছিলাম। ৩০ বছর ধরে আমি পুলিশে আছি। আমি যা বলছি, তা কঠোর সত্য।' বিচারপতি বলেন, 'তদন্তের আগে এফআইআর করা প্রয়োজন। আপনাকে কি কেউ এফআইআর করতে বারণ করেছিল? প্রাথমিকভাবে আমরা মনে করি, এফআইআর ছাড়া তদন্ত করা যায় না।'

পরে বিচারপতি বলেন, 'আপনি চাইছেন তদন্তের দায়িত্ব সিবিআইকে দেওয়া হোক। কিন্তু এফআইআর না হলে তদন্ত হবে কী করে?' পরমবীর সিংকে তিরস্কার করে হাইকোর্ট বলে, 'আপনি একজন পুলিশ অফিসার। আপনি যদি মনে করেন কেউ অপরাধ করেছে, আপনার এফআইআর করা উচিত। আপনি তা করেননি কেন? আপনি কর্তব্যে অবহেলা করেছেন। শুধু মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখে অভিযোগ জানালেই দায়িত্ব পালন করা হয় না।' সোমবার শুনানির পরে কিন্তু হাইকোর্ট পরমবীর সিং-এর আর্জি মঞ্জুর করেছে।