চুলের যত্ন নিতে স্ক্যাল্পের ফ্রেশনেস বজায় রাখুন এই ভাবে

চুলের যত্ন নিতে স্ক্যাল্পের ফ্রেশনেস বজায় রাখুন এই ভাবে

 আবহাওয়া তো আর আমাদের ভাল-মন্দ দেখে আসবে না। তাই আমাদেরকেই নিজের যত্ন নিতে হবে। গরমে শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য ইতিমধ্যেই আপনি সব রকম ব্যবস্থা গ্রহণ করে ফেলেছে। স্কিন কেয়ার রুটিনেও (Skin Care Routine) বদল এনে ফেলেছেন এতদিনে। কিন্তু চুলের কথা কি ভেবে দেখেছেন? চুলের রুটিনে পরিবর্তন না করলেও এমন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে যাতে আপনার চুল (Hair Care) ও মাথার স্ক্যাল্প (Scalp) ভাল থাকে।

এমন অনেকেই রয়েছেন যাঁদের স্ক্যাল্প গরমকালে চিটচিটে হয়ে যায়। এর আসল কারণ হল গরমকালে স্ক্যাল্পে ঘাম। স্ক্যাল্পে এই ঘাম বসা থেকে মাথায় চিটচিটে ভাব, চুলকানি, ফুসকুড়ি, খুশকি, চুলে পড়া ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়। এই সব সমস্যার হাত থেকে বাঁচতে হয় বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে। মাথায় কোনও ভাবে ঘাম বসতে দেওয়া যাবে না। এর জন্য কী-কী করবেন দেখে নিন…

-গরমকালে একদিন অন্তর শ্যাম্পু করুন। চর্মরোগ বিশেষজ্ঞদের মধ্যে সপ্তাহে দু থেকে তিনবারের বেশি শ্যাম্পু করা উচিত নয়। কিন্তু মাথার স্ক্যাল্পে খুব বেশি ঘাম বসলে শ্যাম্পু করা ছাড়া কোনও উপায় নেই। তবে চেষ্টা করুন মাইল্ড শ্যাম্পু ব্যবহার করার। বেশি ক্ষার যুক্ত শ্যাম্পু চুলের ক্ষতি করে। সেই ক্ষেত্রে এক দিন অন্তর মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুলে কম ক্ষতি হবে। এর পাশাপাশি কন্ডিশনার ব্যবহার করতে ভুলবেন না যেন। এতে স্ক্যাল্প ও চুল দুটোই গরমে ফ্রেশ থাকবে।

– যদি আপনার বড় চুল হয়। আর এই গরমে যদি সেটা ম্যানেজ না করতে পারেন তাহলে চুল ছোট ছোট করে কেটে নিন। ছোট চুলে সহজেই শ্যাম্পু করতে পারবেন। এখন ছোট চুলের নানা ধরনের স্টাইল করা যায়। তবে অবশ্যই মুখের সঙ্গে মানান সই ভাবে চুল কাটবেন।

-আর যদি চুল কাটার সাহস না পান কিংবা চুল যদি কাটতে ইচ্ছুক না হন, তাহলে বড় চুল হলেও সারাক্ষণ বেঁধে রাখবেন না। সারাক্ষণ চুল বেঁধে রাখলে চুলের গোড়ায় ঘাম জমে। তাই কিছু সময় অন্তর অন্তর চুল খুলে দিন। এর পাশাপাশি ভিজে চুল বেঁধে রাখবেন না। এতেও ঘামের সমস্যা বাড়ে এবং চুল পড়ার সমস্যা দেখা দেয়।

-যে কোনও হোমমেড হেয়ার মাস্কে লেবুর রস মিশিয়ে স্ক্যাল্পে লাগান। এতে গরমে চুলকানি, খুশকি ইত্যাদির সমস্যা কমে যাবে। প্রতি সপ্তাহে একবার করে হলেও হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করুন।