মিঠুন মামলায় প্রশ্নের মুখে মমতার সরকার | মামলায় সন্দেহ প্রকাশ হাই কোর্টের

মিঠুন মামলায় প্রশ্নের মুখে মমতার সরকার |  মামলায় সন্দেহ প্রকাশ হাই কোর্টের

জনপ্রিয় সিনেমার ডায়লগ বলে বঙ্গ ভোটে উসকানি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল বিজেপির তারকা সদস্য 'মহাগুরু' মিঠুন চক্রবর্তীর (Mithun Chakraborty) উপরে। গোটা ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশে অভিযোগ দায়ের হয়েছিল। শেষপর্যন্ত জল গড়ায় আদালতে। বুধবার সেই মামলার শুনানিই ছিল কলকাতা হাই কোর্টের (Calcutta HC) বিচারপতি কৌশিক চন্দের বেঞ্চে।

এদিন শুনানি চলাকালীন মিঠুন চক্রবর্তীর উসকানি মূলক মন্তব্যে নিয়ে বিচারপতি চন্দ নিজের পর্যবেক্ষণে, সিনেমার সংলাপ থেকে যে অশান্তি ছড়াতে পারে, তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন। জানান, সিনেমার জনপ্রিয় সংলাপ থেকে যে অশান্তি ছড়াতে পারে, তা নিয়ে তাঁর সন্দেহ রয়েছে। এরপরই শোলে সিনেমায় 'গব্বর' তথা আমজাদ খানের সংলাপের প্রসঙ্গও তুলে ধরেন। বলেন, শোলে সিনেমায় আমজাদ খানের বিখ্যাত সংলাপও অমর হয়ে রয়েছে। এছাড়া আরও অনেক সিনেমাতে এই ধরনের একাধিক সংলাপ রয়েছে।Amazon-এ চলছে সেল

এরকমই কোনও সিনেমার জনপ্রিয় সংলাপ থেকে যে হিংসা বা উসকানি ছড়াতে পারে, তা নিয়ে তাঁর সন্দেহ রয়েছে। আর বিচারপতি চন্দের এই পর্যবেক্ষণের পরই আইনজীবীদের একাংশে মত, এই মামলায় হয়তো আগামিদিনে 'স্বস্তি' পেতেই পারেন মিঠুন চক্রবর্তী। তবে এই পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি তদন্তে কী কী অগ্রগতি হয়েছে, সেই সম্পর্কিত তথ্যও পুলিশের কাছে জানতে চেয়েছেন বিচারপতি কৌশিক চন্দ। মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী মঙ্গলবার। সেদিনই পুলিশকে রিপোর্ট জমা দিতেও বলা হয়েছে। 

ব্রিগেড সমাবেশে বিজেপি-র ভোটপ্রচারে নিজের জনপ্রিয় সিনেমার একাধিক সংলাপ আউড়েছিলেন অভিনেতা তথা দলীয় নেতা মিঠুন। বিজেপি-র হয়ে অন্যান্য স্থানে ভোটপ্রচারেও নিজের বিভিন্ন ছবির জনপ্রিয় সংলাপ বলতে শোনা গিয়েছে তাঁকে। তা নিয়ে মিঠুনের বিরুদ্ধে সম্প্রতি মানিকতলা থানায় এফআইআর করেন মৃত্যুঞ্জয় পাল নামে এক ব্যক্তি।Amazon-এ চলছে সেল

মিঠুনের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র, উস্কানিমূলক মন্তব্য, শান্তিভঙ্গের চেষ্টা, বিভিন্ন গোষ্ঠী এবং ভিন্ন ধর্মের মানুষের মধ্যে বিদ্বেষ ছড়ানো-সহ একাধিক ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। ওই এফআইআর খারিজের জন্য কলকাতার হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন মিঠুন। যদিও তাঁকে তদন্তে সহযোগিতা করার নির্দেশ দেয় আদালত।

মিঠুনকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে জিজ্ঞাসাবাদও করে পুলিশ। বুধবার ওই মামলার শুনানিতে মিঠুনের আইনজীবী বিকাশ সিংহকে কোনও প্রশ্ন করেননি বিচারপতি। তবে এই মামলায় সরকারি কৌঁসুলি শাশ্বতগোপাল মুখোপাধ্যায়কে একাধিক প্রশ্ন করেছেন তিনি। মিঠুনের সংলাপের জেরেই যে ভোট পরবর্তী অশান্তি তৈরি হয়েছে, তা সঠিক নয় বলে মনে করেন তিনি।Amazon-এ চলছে সেল