আপনার শরীরে তিলের অবস্থান অনুযায়ী বিবাহিত জীবনের সঙ্কেত ও ভবিষ্যদ্বাণী করা যায়

আপনার  শরীরে তিলের অবস্থান অনুযায়ী বিবাহিত জীবনের সঙ্কেত ও ভবিষ্যদ্বাণী করা যায়

তিল সাধারণত জন্মের পর থেকেই গজিয়ে উঠতে শুরু করে। কিন্তু কিছু তিল আবার বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই গজিয়ে উঠতে পারে, যেগুলি আপনার বর্তমান কর্মের ইঙ্গিত দেয়। শরীরে তিলের অবস্থান, রং, আকার এবং তার অদৃশ্য হয়ে যাওয়া ইঙ্গিত দেয় আপনার ভাগ্যের পরিবর্তনের।মানুষের শরীরে নানা জায়গায় তিল থাকে। এক এক জনের এক এক জায়গায়। তিলের অবস্থান অনুযায়ী বিবাহিত জীবনে নানা ভাবে প্রভাব পড়ে। দেখে নেওয়া যাক ঠিক কেমন যোগ সূত্র রয়েছে তিলের সঙ্গে বিবাহিত জীবনের।

ডান গালে: যদি ডান গালে তিল থাকে, তা হলে বিয়ের পর দারুণ ভাবে ভাগ্য পরিবর্তন হবেই।

কোমরে: স্ত্রী পুরুষ নির্বিশেষে আপনার দাম্পত্য জীবন হবে অত্যন্ত সুখময়। স্ত্রী বা স্বামী উভয়ই দেখতে সুন্দর হয়।

নাকের সামনে: সামান্য যৌন সমস্যা থাকতে পারে। দাম্পত্যে তার হালকা প্রভাব থাকবে।

পায়ের নীচে: পায়ের নীচে তিল থাকলে বিয়ের পর অত্যন্ত ভ্রমণ হয়।

নাকের পাশে: নাকের পাশে তিল থাকলে বিয়ের পর অত্যন্ত বিলাসিতায় দিন কাটে। যে কোনও স্বপ্ন পূরণ হতে দেখা যায়।

ভ্রুর নীচে: বৈবাহিক জীবন খুব একটা সুখময় হবে না। অশান্তি থেকেই থাকবে।

দুই ভ্রুর মাঝখানে: বিয়ের পর জীবনে বেশ সাফল্য অর্জন করতে পারবে।

চোখের কোণে: মহিলাদের ক্ষেত্রে স্বামীরা খুব বশে থাকে। পুরুষদের ক্ষেত্রে স্ত্রীর প্রতি রুঢ় ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

বুকের ডান দিকে: বুকের ডান দিকে তিল থাকলে বিয়ের আগে প্রচুর ঝঞ্ঝাট সহ্য করতে হবে। পরে স্থিতি আসবে।

ঠোঁটের নীচে: ঠোঁটের নীচে তিল থাকলে খুব বেশি রোম্যান্টিক হয়। এর ফলে জীবনে সমস্যা আসতে পারে।

কানের পিছনে: কানের পিছনে তিল থাকলে পরিবারের প্রতি অত্যন্ত যত্নশীল হয়।

হাতের বিবাহ রেখায়: হাতের বিবাহ রেখায় তিল থাকলে (লাল তিল) দাম্পত্য সুখে সর্বদা জীবনে ভরে থাকবে। যদি কালো তিল হয় তা হলে দাম্পত্য সুখ পাওয়া কষ্টকর হবে।

কাঁধে: কাঁধে তিল থাকার অর্থ জীবনে স্বামী বা স্ত্রী উভয় পক্ষই ভালবাসা ও সমর্থনে সমান।