মানসিক ভারসাম্য হিন মুকুল রায়, দাবি পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের

মানসিক ভারসাম্য হিন মুকুল রায়, দাবি পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের

বকেয়া পুর নির্বাচনে বিপুল ভোটে জিতবে BJP! শুক্রবার শান্তিনিকেতনে আবারও বেফাঁস হলেন মুকুল রায়। তিনি বলেন, পুর নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে বিপুল ভোটে জিতবে BJP। যখন তিনি ওই মন্তব্য করেন, সে সময় পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। পাশ থেকে ভুল ধরিয়ে দেওয়া হলে মুকুল এদিন হেসে বলেন, তৃণমূল জিতবে বটেই। BJP মানেই তো তৃণমূল।‘

মুকুলের ব্যাক টু ব্যাক বিস্ফোরক মন্তব্যের জেরে রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল তৈরি হয়েছে ।  এমতাবস্থায় তৃনমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় সাফ জানিয়েছেন, 'মানসিক সমস্যার' জেরে ওই মন্তব্য করেছেন মুকুল। তিনি বলেন, 'বোলপুরে মুকুল রায় যে কথা বলেছেন তা দল অনুমোদন করে না। তাঁর এই বক্তব্য দলের বক্তব্য নয়। দল এই কথা সমর্থন করে না।

মুকুল রায়ের কথা থেকে বোঝা যায় তাঁর মানসিক ভারসাম্যের সমস্যা হচ্ছে। মানসিক ভারসাম্যের সমস্যা থেকে তিনি এই সব মন্তব্য করেছেন।' এদিন অনুব্রত মণ্ডল সহ বীরভূমের তৃণমূল নেতারাও একই কথা বলেছেন। সূত্রের খবর, এদিনই বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়কে আইনজীবীর হাতে চিঠি পাঠিয়েছেন মুকুল রায়। তিনি জানিয়েছেন, এখনও BJP-তেই আছেন।

তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন করেননি। দলত্যাগের অভিযোগের শুনানি প্রসঙ্গে 'বাংলার চাণক্য' হিসেবে পরিচিত মুকুল রায় ওই দাবি করেছেন বলে খবর।  মুকুলের বিরুদ্ধে আগেই দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করার দাবি তুলেছে BJP। শুক্রবর স্পিকারের ঘরে সেই অভিযোগের শুনানিতেই উঠে এসেছে এই দাবি। শুক্রবার মুকুল রায় বিধানসভায় না এলেও তাঁর আইনজীবী মারফত এই দাবি জানান।

ওই মামলার পরবর্তী শুনানি ৩ জানুয়ারি। উল্লেখ্য, চলতি বছরের অগাস্ট মাসেও বেফাঁস হয়েছিলেন মুকুল রায়। BJP -র হয়ে PSC বৈঠকে যোগ দেওয়ার পর মুকুল বলেছিলেন, 'BJP-র হয়ে দাঁড়ালে জিতব। তৃণমূলের হয়ে দাঁড়ালে কী হবে, সেটা মানুষ সিদ্ধান্ত নেবে।' এর পরিপ্রেক্ষিতে BJP নেতা দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, 'মনের কথাই বলেছেন। বাধ্য হয়ে ওই দলে গিয়েছেন।

বাধ্যবাধকতা আমরা বুঝি। মনে BJP-ই আছে'।  শুভেন্দু অধিকারী সে সময় বলেছিলেন, 'মুকুল রায় কোন দলে আছেন, সেটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলতে পারবেন। কারণ তিনি ঢাকঢোল পিটিয়ে তৃণমূল ভবনে ঘরের ছেলেকে ঘরে ফিরিয়েছেন। PSC চেয়ারম্যান করেছেন, রাজ্যের নিরাপত্তা দিয়েছেন। অনেক কাণ্ড করেছেন।'