রয় কৃষ্ণার গোলে বাজিমাত করে লিগ শীর্ষে এটিকে মোহনবাগান

রয় কৃষ্ণার গোলে বাজিমাত করে  লিগ শীর্ষে এটিকে মোহনবাগান

তাকে জামশেদপুর এফসির বিরুদ্ধে বিশ্রাম দেওয়ার ভাবনা ছিল কোচ অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাসের। কিন্তু তিনি বলেছিলেন, জয় দিয়েই ভ্যালেন্টাইন ডে সেলিব্রেট করবেন। সঙ্গে সেলিব্রেট করবে গোটা দল। আর রবিবাসরীয় আইএসএলে ফের একবার শেষ মুহুর্তে গোল করে আরও একবার জয়ের নায়ক হয়ে উঠলেন এটিকে মোহনবাগানের গোল মেশিন রয় কৃষ্ণা।

তার গোলে জামশেদপুরকে হারিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে পৌছে গেল সবুজ-মেরুণ ব্রিগেড।  গত তিন ম্যাচে দাপটে ফুটবল খেলে জয়ের হ্যাটট্রিক করেছিল অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাসের দল। কিন্তু আজ শুরু থেকেই ভীষণ অগোছালো ফুটবল খেলছিল লেনি, সন্দেশরা। মিডফিল্ড প্রথমার্ধে ছিল জামশেদপুরের দখলে। উল্লেখযোগ্য ঘটনা ঘটেনি প্রথমার্ধে।

বিরতির পর থেকে চাপ বাড়ায় সবুজ মেরুন। মার্সেলিনো র বাড়ানো বল ধরে রয় কৃষ্ণ হাফ টার্নে একটা শট নিয়েছিলেন যা সেভ করে দেন বিপক্ষ গোলরক্ষক। শেষ কুড়ি মিনিট জাভি, প্রবীরকে নামিয়ে কৃষ্ণ, উইলিয়ামস এবং মার্সেলিনোকে একসঙ্গে আক্রমণে রাখেন হাবাস। কিন্তু বিপক্ষ দলের দুই দীর্ঘদেহী ডিফেন্ডার পিটার এবং নাইজেরিয়ান এজে এরিয়াল বলে সুবিধে করতে দিচ্ছিলেন না মোহনবাগান ফুটবলারদের। প্রণয়কে মিডফিল্ডে নিয়ে এসে ম্যাক হিউকে তুলে নিলেন কোচ। মনবীরকে তুলে সুযোগ দিলেন প্রবীরকে।

এমনিতেই বহু ম্যাচ শেষ দশ মিনিটে বের করে নিয়েছে সবুজ মেরুন ব্রিগেড। এদিন সেরকমই একটা ম্যাচ দেখল ফুটবলপ্রেমীরা। ডেভিড উইলিয়ামস একটা বল বাড়ালেন কৃষ্ণকে। একটু আড়াআড়ি দৌড়ে দুই ডিফেন্ডারের মাঝখান দিয়ে বা পায়ের শট নিলেন রয়। বল গোলরক্ষককে পরাস্ত করে আশ্রয় নিল জালে।

এই এক গোলের সৌজন্যে ডার্বির আগে গুরুত্বপূর্ণ তিন পয়েন্ট সংগ্রহ করে রাখল এটিকে মোহনবাগান। সোমবার বেঙ্গালুরুর বিরুদ্ধে খেলতে হবে মুম্বইকে। জিততে পারলে আবার শীর্ষে চলে যাবে তাঁরা। কিন্তু এই মুহূর্তে নিঃসন্দেহে কিছুটা চাপ অনুভব করবে মুম্বই। পাশাপাশি এদিন একটি করে হলুদ কার্ড দেখলেই ডার্বি থেকে বাদ পড়তে হত তিরি এবং শুভাশিসকে।

সেটা শেষপর্যন্ত হল না। অর্থাত্‍ পূর্ণ শক্তির দল নিয়েই আগামী শুক্রবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইস্টবেঙ্গলের মুখোমুখি হবে মোহনবাগান। ম্যাচ সেরা রয় কৃষ্ণ। তবে জেতার কৃতিত্ব নিজে নিতে চান না ফিজির এই গোলমেশিন। দলগত খেলায় জয় বলছেন তিনি।