N অক্ষর দিয়ে শুরু নামের মানুষরা কেমন হয়

N অক্ষর দিয়ে শুরু নামের মানুষরা কেমন হয়

কথায় আছে, নাম দিয়ে যায় চেনা। এটা কিন্তু খুব ভুল কথা নয়। আপনার নামের প্রথম অক্ষর বলে দেবে আপনি কী ধরনের মানুষ। প্রত্যেকের নামেরই একটা বিশেষত্ব আছে, যা থেকে সেই ব্যক্তির চরিত্র সম্পর্কে একটা ধারণা করা যায়। জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, নামের প্রথম অক্ষর অনেক অর্থ বহন করে। নামের প্রথম অক্ষর দিয়ে সেই ব্যক্তি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারা যায়।

নামের প্রথম অক্ষর দিয়ে আপনি নিজের ভাগ্য যাচাই করতে পারেন। তাই নামের প্রথম অক্ষরের যথেষ্ট গুরুত্ব আছে। দেখে নিন আপনার নামের প্রথম অক্ষর আপনার সম্পর্কে কী বলছে। ইংরাজি বর্ণমালায় ১৪ তম ব্রণ হল N। এশিয়া , বিশেষত দক্ষিণ এশিয়ার বহু দেশেই দেখা যায়, বাসিন্দাদের নামের শুরুতেই N থাকে। তাই এরকম নামের কেউ আপনার আশে পাশে থাকলে , জেনে নিন তাঁরা কেমন ধরনের মানুষ হন।

N দিয়ে নাম শুরু হলে , সংখ্যাতত্ত্বের বিচারে তার সঙ্গে সম্পর্কিত থাকে ৫ সংখ্য়াটি। ৫ সংখ্যা , স্বাধীনতাবোধ ও কল্পনা ইত্যাদি বিষয়কে প্রশ্রয় দেয়। আর কী কী গুণ রয়েছে এঁদের মধ্যে, তা দেখে নেওয়া যাক, একনজরে। N- আপনার নামের ইংরাজি বানানের প্রথম অক্ষর যদি N হয়ে থাকে, তা হলে আপনি কিন্তু ব্যাতিক্রমী ভাবনার মানুষ। আপনার চিন্তাগুলি সবসময় ব্যাতিক্রমী, সৃজনশীল ও মৌলিক।

আপনি আবার মতামতের দিক থেকে প্রবল ইচ্ছাশক্তি সম্পন্ন মানূষ। জীবনযাপনে আপনি নিয়মানুবর্তী। তাই আপনার দৈনন্দিন অভিজ্ঞতাগুলিকে আপনি ডায়েরির আকারে লিপিবদ্ধ করে রাখেন। আপনার পক্ষে প্রেমে জড়িয়ে পড়া এমন কিছু বিচিত্র নয়। 

নামের শুরুতে N থাকলে তাঁদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট যা হয়যেহেতু এই ধরনের মানুষের নামের সঙ্গে ৫ সংখ্যাটি সম্পর্কযুক্ত , তাই এঁরা এংরা সবসময় কর্মঠ হন। পাশপাশি সাহসীও হন। তবে এঁদের কোনো নিয়মমাফিক ছকে ধরা যায়না। কোন সময় কী কাজ করবেন এঁরা নিজেরা ছা়ডা বাইরের কেউই বুঝতে পারেন না। 

কীরম ধরনের মানুষ হন এঁরা ?খুবই স্পষ্টবাদী, সোজাসাপটা বক্তব্য রাখতে এঁরা ভালোবাসেন। খানিকটা বুদ্ধিদীপ্ত হওয়ায়, এঁদের মধ্যে গোয়েন্দা হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে। কল্পনা শক্তির দিক থেকে এঁরা চুড়ান্ত প্রখর। সারা বিশ্ব একদিকে হয়ে গেলেও, এঁরা নিজেদের মূ্ল্যবোধে অনড় থাকেন।

জীবনধারা কেমন হয় এঁদের ?নিজেদের বাইরের জানান দিতে এঁরা সম্পূর্ণ স্বাধীনতা চান। চিরাচরিত পরম্পরা থেকে বেরিয়ে এঁরা সবসময়ে নিজেদের মধ্যে সময় কাটাতে ভালো বাসেন। কোনও নির্দিষ্ট রুটিনের মধ্যে এঁরা নিজেদের বাঁদে রাখতে ভালোবাসেনা। পরিবর্তনশীল যাবতীয় জিনিস এঁরা পছন্দ করেন।

আর কী কী গুণ রয়েছে এঁদের মধ্যেযেকোনোও কাজ করতে করতে আচমা অন্যদিকে চলে য়াওয়ার প্রবণতা থাকে এঁদের। কিম্বা কখনও দেখা যায়, কোনো একটি কাজের মাঝপথেই তাকে বন্ধ করে দেয় এঁরা। পলে ধৈর্যের অভাব এঁদের মধ্যে প্রবল। তাছড়াও স্থিরতা এঁরা পছন্দ করেনা। কোনও ভাবেই চলার পথে রুখে যেতে এঁরা ভালোবাসেন না । তবে মাঝে মধ্যে এঁরা হিংসাপরায়ণ হয়ে ওঠে। যার ফলে বিপাকে পড়ে যায় যখন তখন।