পুলিশের দ্বারস্থ হলেন দেশের প্রধান বিচারপতি এন ভি রামানা

পুলিশের দ্বারস্থ হলেন দেশের প্রধান বিচারপতি  এন ভি রামানা

সুপ্রিম কোর্টের ৪৮তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিলেন বিচারপতি এনভি রমণা। কোভিড বিধি মেনে আজ সকালে রাষ্ট্রপতি ভবনে শপথ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। বিধি অনুযায়ী তাঁকে শপথবাক্য পাঠ করান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। শপথের পরে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের বার্তা দেন নবনিযুক্ত প্রধান বিচারপতি। তিনি বলেন, ‘‘এই সময়ে করোনার বিরুদ্ধে আমাদের লড়াইয়ের পরীক্ষা। আইনজীবী, বিচারক এবং আদালত কর্মীরা এই ভাইরাসের শিকার হয়েছেন।

সংক্রমণের শৃঙ্খল ভাঙার জন্য আমাদের কিছু কড়া ব্যবস্থা নিতে হতে পারে। ঐক্যবদ্ধ ভাবে লড়াই করে আমরা অতিমারিকে হারাতে পারব।’’ এবার সেই তিনিই পড়লেন সাইবার অপরাধের কবলে। এমনকি অপরাধীদের বাড়বাড়ন্তে পুলিশের দ্বারস্থও হতে হল ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতিকে। ঠিক কী ঘটেছে? জানা গেছে, এনভি রামানা নিজের নামে একটি ভুয়ো টুইটার অ্যাকাউন্টের খোঁজ পেয়েছেন। তাঁর নাম দিয়ে খোলা ওই অ্যাকাউন্ট থেকে দিব্যি ভুয়ো খবর পোস্ট করে চলেছেন সাইবার দুনিয়ার অপরাধীরা। এই সন্ধান পেতেই নড়েচড়ে বসেন রামানা। পুলিশের খাতায় এর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

সুপ্রিম কোর্টের সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রামানা আদতে টুইটার ব্যবহারই করেন না। শুধু টুইটার কেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনও অ্যাকাউন্টই নেই তাঁর। ফলে নিজের নামে এই ভুয়ো অ্যাকাউন্ট থেকে স্বভাবতই বিরক্ত হয়েছেন তিনি। যে টুইট ওই ভুয়ো অ্যাকাউন্ট থেকে করা হয়েছিল, তাতে লেখা ছিল, 'অজিত ডোভালের সফল কূটনীতির কারণেই আমেরিকা ভারতে কাচামালের জোগান দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।' পিএমও ইন্ডিয়ার উল্লেখও ছিল সেই টুইটে।

সূত্রের খবর, টুইটটি মুছে দেওয়া হয়েছে। সোমবার বিকেলে অভিযোগ পাওয়ার পর ভুয়ো ওই অ্যাকাউন্টটিও সাসপেন্ড করেছে টুইটার কর্তৃপক্ষ। ১৯৫৭ সালের ২৭ অগস্ট অন্ধ্রপ্রদেশের কৃষ্ণা জেলার পুন্নাভরম গ্রামে জন্ম বিচারপতি রমণার। সাধারণ এক কৃষক পরিবারে জন্ম। তাঁর পরিবারে তিনিই প্রথম বিচার বিভাগীয় দফতরে যোগ দেন। ১৯৮৩ সালে আইনজীবী হিসেবে প্রথম নাম নথিভুক্ত হয় তাঁর। ২০০০ সালের ২৭ জুন অন্ধ্রপ্রদেশ হাই কোর্টে স্থায়ী বিচারপতি হিসেবে নিযুক্ত হন।

২০১৩ সালের ১০ মার্চ থেকে ২০ মে পর্যন্ত সেখানেই প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব সামলান। সেই বছর ২ সেপ্টেম্বর থেকে দিল্লি হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি পদে নিযুক্ত হন বিচারপতি রমণা। পরের বছরেই সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি হিসেবে যোগ দেন। ২২ বছরের কর্মজীবনে ইতি টেনে শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতি পদ থেকে শুক্রবারই অবসর গ্রহণ করেছেন বিচারপতি এস এ বোবডে। আজ রাষ্ট্রপতি ভাবনে তাঁকে আনুষ্ঠানিক বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হয়। গত মার্চেই বিচারপতি বোবডে তাঁর উত্তরসূরি হিসেবে বিচারপতি এন ভি রমণার নাম প্রস্তাব করেছিলেন। সেই প্রস্তাবনা অনুযায়ী গত ৬ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ পরবর্তী বিচারপতি পদে তাঁকে নিয়োগ করেন। আগামী ১৬ মাস, অর্থাৎ ২০২২ সালের ২৬ অগস্ট পর্যন্ত এই পদে থাকবেন বিচারপতি রমণা।