ভোট প্রক্রিয়ার নিয়ে নদীয়া জেলা প্রশাসকের সাংবাদিক সম্মেলন

ভোট প্রক্রিয়ার নিয়ে নদীয়া জেলা প্রশাসকের সাংবাদিক সম্মেলন

আগামী একুশের নির্বাচনের প্রস্তুতি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কৃষ্ণনগর জেলা শাসক দপ্তর এর মিটিং হলে এক সাংবাদিক বৈঠক করলেন নদীয়ার জেলা শাসক পার্থ ঘোষ। এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে তিনি জানালেন, নির্বাচন পরিচালনা করতে গিয়ে গত নির্বাচনের তুলনায়  এইবার ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৪৫৮২ থেকে বেড়ে ৫৯৭৬ টি করা হয়েছে।

এছাড়াও ভোট কর্মীর সংখ্যা  রয়েছে প্রায় ৩৮০০০। তারমধ্যে ১৩০০০ জন রয়েছেন মহিলা ভোট কর্মী। বিভিন্ন সরকারি দপ্তর থেকে কর্মীরা অবসর গ্রহণ করার জন্য ক্রমশই পুরুষ ভোট কর্মীর সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে।  ফলে নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে বাধ্যতামূলকভাবে বাড়াতে হয়েছে মহিলা ভোট কর্মীর সংখ্যা।

এবারের নির্বাচনের ক্ষেত্রে ১১০৮ টি বুথে ভোট করাবেন মহিলারাই। বিগত দিনে নির্বাচনের ক্ষেত্রে মডুলার বুথ হিসাবে গণ্য করা হতো কিন্তু এই নির্বাচনের ক্ষেত্রে কোন মডিউলার বুথ থাকছে না সব বুথই মডিউলার বুথ, এমনটাই জানালেন জেলাশাসক। প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে ভোটকেন্দ্রে আসার অসুবিধার কারণে এবারের নির্বাচনে ভোট কর্মীরা প্রতিবন্ধীদের বাড়ি থেকেই ভোট সংগ্রহ করবেন।

তবে যেসব প্রতিবন্ধীদের প্রতিবন্ধী সার্টিফিকেট  নেই সেক্ষেত্রে তাদেরকে ভোট কেন্দ্রে এসে ভোট দিতে হবে। বুথ সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে এবারের নির্বাচনে আশা কর্মীদেরও ভোট কেন্দ্রে নিয়োগ করা হবে। কোভিড প্রটোকল মেনেই ভোট গ্রহণ করা হবে বলেও এই দিন জানালেন জেলাশাসক। এই ক্ষেত্রে ভোট গ্রহণ কেন্দ্র প্রবেশ করার আগেই আশাকর্মীরা থার্মাল স্ক্যানিং করে শারীরিক তাপমাত্রা পরীক্ষা করে ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেবেন।

পাশাপাশি এবারের নির্বাচনের ক্ষেত্রে যারা ভোট কর্মী থাকবেন তাদের প্রত্যেককেই করোনা ভ্যাকসিন প্রয়োগ করনো হবে। ভোট কর্মীদের করোনা ভ্যাকসিন এর জন্য আলাদা আলাদা কেন্দ্র তৈরি করা হবে। সেখানেই তাদের ভ্যাকসিনেশন হবে।এছাড়াও আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই সরকারি ভাবে সবরকম প্রস্তুতি গ্রহণ  করা হয়েছে বলেও এইদিন জানান নদীয়ার জেলাশাসক পার্থ ঘোষ।