জীবাশ্মবিদ এবং কম্পিউটার সায়েন্টিস্ট নতুন ম্যাপ জানিয়ে দেবে এলাকায় ডাইনোসর ঘুরে বেড়াত কি না

জীবাশ্মবিদ এবং কম্পিউটার সায়েন্টিস্ট নতুন ম্যাপ জানিয়ে দেবে এলাকায় ডাইনোসর ঘুরে বেড়াত কি না

আজবাংলা      কী ভাবছেন? আদতে এ এক নতুন ছেলেখেলা? তা, ডাইনোসররা মানুষদের নিয়ে ছেলেখেলা করার ক্ষমতা এক সময়ে ধরলেও মানুষ কিন্তু পৃথিবীর এই বিলুপ্ত প্রজাতি নিয়ে রীতিমতো আগ্রহী। সাহিত্য থেকে সিনেমা হয়ে গবেষণা- ডাইনোসরদের রকম এবং জীবন নিয়ে যা যা করা যায়, সবক'টাই আমরা করে থাকি বেশ ভাবগম্ভীর ভাবে।

সেই লক্ষ্যেই এ বার প্রাচীন পৃথিবীর মানচিত্র বানিয়ে আগ্রহী মনে চমক এবং সাড়া দুই জাগাতে চেয়েছেন এক জীবাশ্মবিদ এবং কম্পিউটার সায়েন্টিস্ট। ইয়ান ওয়েবস্টার তাঁর নাম। জীবাশ্ম নিয়ে গবেষণা করতেই করতেই তিনি তৈরি করে ফেলেছেন এমন এক মানচিত্র যেখানে আমাদের পৃথিবীকে দেখা যাবে ৩-ডি ফরম্যাটে।

আর তার ব্যাকগ্রাউন্ডে থাকবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে অসংখ্য তারা। মহাশূন্য থেকে যেমনটা দেখতে লাগে আমাদের এই গ্রহকে, সেই আমেজটাই প্রযুক্তির সাহায্যে হাজির করেছেন ইয়ান।ডাইনোসর ডেটাবেস-এর এই ম্যাপ দেখা যাবে কোথা থেকে? সহজ ব্যাপার, এই লিঙ্কে ক্লিক করলেই , লিঙ্কে ক্লিক করে পৌঁছে না হয় গেলেন কেল্লায়! এ বার সেটা ফতে করবেন কী ভাবে, তাও একটু জেনে নিন!

লিঙ্কে ক্লিক করলেই দেখবেন আপনার বাম হাতের উপরের দিকে একটা সার্চবার আছে। সেখানে যদি আপনার শহর বা এলাকার নাম টাইপ করেন, তা হলে পর পর আসতে থাকবে অনেকগুলো লিঙ্ক। সেই লিঙ্কগুলোয় আবার ক্লিক করে দেখে নিতে হবে আপনার এলাকায় প্রাচীন যুগে চরে বেড়াত যে ডাইনোরেরা তাদের ঠিকুজি এবং কুলুজি।

লক্ষ্য করে দেখুন, ওয়েব-পেজের ডান হাতে উপরের দিকে একটা ড্রপ ডাউন মেনুও আছে। চাইলে ওখানে ক্লিক করেও খানাতল্লাশি চালাতে পারেন।খবর বলছে, এলাকাভিত্তিক এই ডাইনোসরের তত্ত্বতালাসে ইয়ান ভরসা রেখেছেন খননকার্যের উপরে। মানেটা সোজা- আপনার এলাকা বা শহরে যদি কোনও জীবাশ্ম উদ্ধার হয়ে না থাকে, সে ক্ষেত্রে ডাইনোসর নিয়ে কিছু জানা যাবে না।

মুষড়ে পড়বেন না। যাতে আপনাকে তাঁর ওয়েব-পেজে এসে একেবারে নিরাশ হতে না হয়, সে জন্য ইয়ান প্রাচীন কালে আপনার এলাকা কেমন দেখতে ছিল, সেই তথ্যটুকু অন্তত আপনার জন্য ডেটাবেসে ভরে রেখেছেন। সেটাও তো আর কম উত্তেজক নয়, বলুন?