কোরআন অবমাননার অভিযোগে বাংলাদেশে গণপিটুনিতে এক ব্যক্তির মৃত্যু

কোরআন অবমাননার অভিযোগে বাংলাদেশে গণপিটুনিতে এক ব্যক্তির মৃত্যু

লালমনিরহাট    মসজিদে অস্ত্র থাকার কথা বলে গোয়েন্দা পুলিশের পরিচয়ে সেখানে ঢুকে কোরআন শরিফ অবমাননার ঘটনায় ক্ষুব্ধ জনতার হাতে মারা গেছে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তি। পরে জনতা মোটরসাইকেলে আগুন দিলে তাতে ওই ব্যক্তির মরদেহও দগ্ধ হয়।  বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লালমনিরহাটের পাটগ্রামের বুড়িমারীতে এ ঘটনা ঘটে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ-র‌্যাবের পাশাপাশি বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।স্থানীয় বাসিন্দাদের ভাষ্য, মোটরসাইকেলে করে আসা অজ্ঞাতনামা দুই ব্যক্তি নিজেদের গোয়েন্দা পুলিশের লোক পরিচয় দিয়ে বুড়িমারী কেন্দ্রীয় বাজার মসজিদে অস্ত্র রয়েছে বলে দাবি করেন। পরে সেগুলো উদ্ধারের কথা বলে মসজিদের ভেতরে ঢুকে কোরআন শরিফ অবমাননা এবং ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করেন।

এ সময় উপস্থিত মুসল্লিরা তাদের আটক করে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যান। সেখানে জড়ো হওয়া বিক্ষুব্ধ লোকজন তাদের বের করে গণপিটুনি দিলে তাতে একজন নিহত হন। একপর্যায়ে জনতা রাস্তার মোড়ে মোটরসাইকেলে আগুন দিলে তাতে দগ্ধ হয় নিহত ব্যক্তির মরদেহ। অন্যজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হন।

  অজ্ঞাত ওই ব্যক্তির মরদেহ ঘেরাও করে রাখে বিক্ষুব্ধ লোকজন। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মোহন্ত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তবে নিহত ব্যক্তির পরিচয় জানাতে পারেননি। ওসি আরো জানান, তবে দুই জনের একজন নিহত হলেও পরে অপরজনের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, কোনোভাবে সে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে।

পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা বলেন, ‘ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব পাঠানো হয়েছে।’ সর্বশেষ খবর, জেলা প্রশাসক আবু জাফর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে  বলেন, সেখানকার সার্বিক পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে। পুলিশ-র‌্যাবের পাশাপাশি সেখানে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।