পীযুষ গাঙ্গুলি : বাংলার জনপ্রিয় অভিনেতা পীষূষ গঙ্গোপাধ্যায়

পীযুষ গাঙ্গুলি :  বাংলার জনপ্রিয় অভিনেতা পীষূষ গঙ্গোপাধ্যায়

মাত্র ৫০ বছর বয়সে প্রয়াত হলেন অভিনেতা পীষূষ গঙ্গোপাধ্যায় Pijush Ganguly। থিয়েটার, সিনেমা হোক বা ছোট পর্দা সব কিছুতেই সাবলীল ছিলেন এই প্রাণচঞ্চল অভিনেতা। একটি দুর্ঘটনা সকলের কাছ থেকে কেড়ে নিল এই সুন্দর মানুষটিকে।   ১৯৬৫ সালে ২ জানুয়ারি  হাওড়ার সালকিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন।

 পীযূষ গঙ্গোপাধ্যায়ের পৈতৃক নিবাস বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জে । তার ছেলেবেলা কেটেছে এখানে । তিনি পড়াশোনাও করেছেন নারায়ণগঞ্জে । পরবর্তীতে তিনি কলকাতার বেহালার অধিবাসী হন ।কলেজ কলকাতায়। কলেজের ফুটবল টিমে গোলকিপার ছিলেন। ফুটবল খেলবেন। এটাই ছিল ধ্যানজ্ঞান।  

ভাল গান গাইতে পারতেন। অভিনেতা হয়ে ওঠা পাকেচক্রে। নাবার্ডে চাকরি করার সময় অফিস থিয়েটারে তাঁর অভিনয় নজর কাড়ে। এরপরই অরুণ মুখোপাধ্যায়ের চেতনা আর বিভাস চক্রবর্তীর অন্য থিয়েটার নাট্যদলে যোগ দেন তিনি। মঞ্চে একসঙ্গে কাজ করেছেন রমাপ্রসাদ বণিক ও ব্রাত্য বসুর সঙ্গেও। অন্য থিয়েটারের মাধবমালঞ্চি কইন্যা, জোছনা কুমারীতে পীযূষের অভিনয় এখনও নাট্যমহলে আলোচিত। 

পীযূষ গঙ্গোপাধ্যায় Pijush Gangulyবাংলা টেলিভিশনেরও প্রতিষ্ঠিত ও জনপ্রিয় অভিনেতা ছিলেন। তিনি অঞ্জন দত্ত, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়, অপর্ণা সেন প্রমুখ পরিচালকদের পরিচালিত চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেন। ছাত্রজীবনে পীযূষ গঙ্গোপাধ্যায় খ্যাতনামা গোলকিপার ছিলেন। একটি দুর্ঘটনার শিকার না হলে তিনি ফুটবলকেই কেরিয়ার হিসেবে বেছে নিতেন। তিনি পামেলা গঙ্গোপাধ্যায়কে বিবাহ করেন। তাঁদের এক পুত্র আছে। নাম রমিত গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি চিত্রকলা ও মান্না দের সংগীতের অনুরাগী ছিলেন।

টেলিভিশনে কেরিয়ার শুরু হেমেন্দ্র রায়ের 'আবার যখের ধন' দিয়ে। তারপর ছোট পর্দায় অনেক টেলিফিল্ম আর সিরিয়ালে কাজ করেছেন। দেবী সিরিয়ালে প্রতিবাদী স্ত্রীর স্বামীর চরিত্রে তাঁর অভিনয় দর্শকদের কাছে আলাদা পরিচিতি দিয়েছিল। চুটিয়ে কাজ করেছেন বড় পর্দাতেও। অঞ্জন দাসের ইতি শ্রীকান্ত, সন্দীপ রায়ের চার, সৃজিতের অটোগ্রাফ, কৌশিক গাঙ্গুলির ল্যাপটপ, অপর্ণা সেনের গয়নার বাক্স, শেখর দাসের মহুল বনির সেরেঞ ছবিতে পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয়ের জন্য বেঙ্গল ফিল্ম জার্নালিস্ট অ্যাওয়ার্ড পান তিনি।  শখের মধ্যে সব থেকে বড় শখ ছিল গাড়ি চালানো। ড্রাইভার রাখত না। সেই গাড়ি চালানো থেকেই গেল।

বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায়ের গ্যালিলেও থেকে ইতি শ্রীকান্তের গহর। নাটকের মঞ্চ থেকে সিনেমার বড় পর্দা, সবেতেই সমান সাবলীল পীষূষ। ২০১৫ সালের ২৫ অক্টোবর রাত ২টো ৪৫ মিনিটে কলকাতার বেল ভিউ ক্লিনিকে পীযূষ গঙ্গোপাধ্যায় মারা যান। ২০ অক্টোবর হাওড়ার সাঁতরাগাছিতে একটি গাড়ি দুর্ঘটনার শিকার হয়ে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তাঁর মৃত্যুর কারণ ‘মাল্টি-অর্গান ফেলিওর ও একটি কেস পলিট্রমায় ফ্যাট এমবলিজম’।