‘যোগী সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে আন্তর্জাতিক চক্রান্ত’ দাবি পুলিশের

‘যোগী সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে আন্তর্জাতিক চক্রান্ত’ দাবি পুলিশের

আজবাংলা     দেশ জুড়ে যে বিক্ষোভ মাথাচাড়া দিয়েছে, তার পিছনে আন্তর্জাতিক চক্রান্ত কাজ করছে বলে দাবি উত্তরপ্রদেশ পুলিশের। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছে তারা। শুধু তাই নয়, ইতিমধ্যে অজ্ঞাতপরিচয় চক্রান্তকারীদের বিরুদ্ধে এফআইআরও দায়ের হয়ে গিয়েছে।

তাতে বলা হয়েছে, ভিন্ন জাতের মানুষের মধ্যে দাঙ্গা বাঁধিয়ে, যোগী আদিত্যনাথ সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে বিক্ষোভে ইন্ধন জোগাচ্ছেন কিছু মানুষ।হাথরস-কাণ্ডে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (সিবিআই) মাধ্যমে তদন্তের সুপারিশ করেছেন যোগী আদিত্যনাথ।

সিবিআই আনুষ্ঠানিক ভাবে তার তদন্তভার হাতে নেওয়ার আগেই, রবিবার রাতে চাঁদপা থানায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়। তাতে ষড়যন্ত্রকারী হিসেবে Justiceforhathrasvictim.carrd.co নামের একটি ওয়েবসাইটেরও উল্লেখ রয়েছে। দাঙ্গা চলাকালীন কী করা উচিত, কী নয়, পুলিশের কাঁদানে গ্যাস থেকে কী ভাবে রেহাই পাওয়া যায়, ওই ওয়েবসাইেট সে সবের ফিরিস্তি দেওয়া ছিল বলে দাবি উত্তরপ্রদেশ পুলিশের।

হাথরস-কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করার পর গতকাল বিজেপি কর্মীদের উদ্দেশে যোগী আদিত্যনাথ বলেন, ‘‘কিছু লোক উন্নয়ন চায় না। জাতপাত ও ধর্ম নিয়ে দাঙ্গা বাধানোই তাদের লক্ষ্য। নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে মরিয়া ওই সব লোকজন। তাই প্রতি দিন কোনও না কোনও ষড়যন্ত্র কষেই চলেছেন।

অতিমারির সময়ও এত উন্নয়ন হচ্ছে, তা ওদের হজম হচ্ছে না। তাই অশান্তি বাধাতে চাইছে। ওদের মুখোশ খুলে দিতে হবে।’’ তাঁর এই মন্তব্যের পরই গতকাল এফআইআর দায়ের করে পুলিশ।একই সঙ্গে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫২-বি উপধারা অনুযায়ী জাতীয় সংহতি নষ্ট করা এবং ৪২০ উপধারায় প্রতারণার মামলা করেছে পুলিশ।

এ ছাড়াও ভুয়ো তথ্যকে প্রমাণ হিসেবে সাজিয়ে পেশ করা, মিথ্যে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য হুমকি দেওয়া এবং তথ্যপ্রযুক্তি আইনে কারও ভাবমূর্তি নষ্ট করার অভিপ্রায়ে অবমাননাকর তথ্য ছাপানো এবং পোস্ট করার অভিযোগও এনেছে পুলিশ। এফআইআর দায়ের করার পর থেকেই ওই ওয়েবসাইটটি খোলা যাচ্ছে না। গতকাল ওই ওয়েবসাইটের দফতর এবং আরও বেশ কিছু জায়গায় পুলিশ হানাও দেয় বলে জানা গিয়েছে।