চোখের যত্নে খাদ্যতালিকায় রাখুন এই তালিকায়

চোখের যত্নে খাদ্যতালিকায় রাখুন এই তালিকায়

ব্যাপক ছাড়ে শপিং করুন Amazon-এ

আধুনিক যুগে অত্যধিক  স্মার্টফোন, ল্যাপটপ, টেলিভিশন, কম্পিউটার ইত্যাদি ব্যবহারের ফলে দৃষ্টিশক্তি দুর্বল হয়ে   যাচ্ছে। যার ফলে কম বয়সেই আশ্রয় নিতে হয় চশমার।কিন্তু আজকালকার বেশিরভাগ মানুষই চোখের যত্নের দিকে তেমন নজর দেয় না। ফলে খুব তাড়াতাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে চোখ।তবে চোখ ভালো রাখার বিভিন্ন কৌশল রয়েছে। চোখের যত্নে খাদ্যতালিকায় রাখতে কিছু বিশেষ খাবার । আসুন জেনে নিই চোখের যত্নে কোন কোন খাদ্য তালিকায় রাখা উচিত …… 


চোখের যত্নে ডিম অত্যন্ত উপকারি। ডিম হেলদি ফ্যাট, ভিটামিন, খনিজ, ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং প্রোটিন দিয়ে ভরা - এবং এগুলি সবই চোখের জন্য দুর্দান্ত। ডিমের কুসুমে ভিটামিন এ, লুটেইন, জিঙ্ক বর্তমান, যা দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে সহায়তা করে। ডাল প্রোটিনের একটি দুর্দান্ত উৎস। মসুর ডাল বায়োফ্ল্যাভোনয়েডস এবং জিঙ্কের ভাল উৎস, যা চোখের যত্নে সহায়তা করে। 

ভিটামিন সি চোখের যত্নে খুব উপকারি।গ্রেপফ্রুট, লেবু, কমলালেবু, বেরি, ক্যান্টালুপস ভিটামিন সি-তে পূর্ণ থাকায় এগুলি  চোখের জন্য খুবই উপকারি। এগুলি চোখের সমস্যা কমাতে পারে। দৃষ্টিশক্তি উন্নত করার জন্য বাদাম এবং বীজ অত্যন্ত উপকারি। বাদাম এবং বীজে খনিজ, ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড,ভিটামিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট,  ফাইটোকেমিক্যাল থাকে, যা চোখের জন্য খুবই ভাল। 

ব্যাপক ছাড়ে শপিং করুন Amazon-এ

দুধ ও দই এর মতো দুগ্ধজাত পন্যগুলি চোখের জন্য খুবই উপকারি। এগুলি ভিটামিন-এ এবং মিনারেল জিঙ্কের উৎস। ভিটামিন-এ কর্নিয়াকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। অপর দিকে, জিঙ্ক লিভার থেকে সেই ভিটামিন চোখে সরবরাহ করতে সহায়তা করে।ভিটামিন-এ দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। গাজর  ভিটামিন-এ তথা বিটা ক্যারোটিনের দুর্দান্ত উৎস, যা চোখের স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে অত্যন্ত উপকারি। 

মাছ ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের দুর্দান্ত উৎস। এই ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড দৃষ্টিশক্তি উন্নত করার ক্ষেত্রে দুর্দান্ত কার্যকর। এটি চোখের পেছনে থাকা রেটিনা ভাল রাখতে সাহায্য করে। টুনা, ম্যাকেরেল, স্যালমন,  সার্ডিন এবং ট্রাউট ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ , এই মাছগুলি  চোখের জন্য অত্যন্ত উপকারি।