রাজ্যজুড়ে ফের বৃষ্টি , জেনে নিন আবহাওয়ার খবর

রাজ্যজুড়ে ফের বৃষ্টি , জেনে নিন আবহাওয়ার খবর

শীত হোক বা বসন্ত, বৃষ্টির একচেটিয়া দাপট অব্যাহত। ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহেও বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে রাজ্যজুড়ে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, ২৪ থেকে ২৬ তারিখের মধ্যে একাধিক জেলায় রয়েছে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা। একইসঙ্গে বাড়বে তাপমাত্রাও। নতুন করে শীত পড়ার কোনও সম্ভাবনা নেই বলেই জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।  

আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, আজ দক্ষিণবঙ্গের আবহাওয়া মূলত শুষ্ক থাকবে। সম্ভাবনা নেই বৃষ্টিপাতের। কিন্তু, ২৪ তারিখ থেকেই হাওয়া বদল হবে। আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, বৃহস্পতিবার বৃষ্টিপাত হতে পারে বাঁকুড়া, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম ও মুর্শিদাবাদে। ২৫ তারিখ এই জেলাগুলির পাশাপাশি বৃষ্টিপাত হতে পারে দক্ষিণবঙ্গের অন্যান্য জেলাগুলিতেও।

এমনকী, শুক্রবার কলকাতাতেও বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। ২৬ তারিখ আবারও বাঁকুড়া, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম ও মুর্শিদাবাদে রয়েছে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা। অর্থাৎ পরপর তিনদিন বৃষ্টিপাত হতে পারে দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে। অন্যদিকে, নতুন করে আর ঠান্ডা পড়ার কোনও সম্ভাবনা নেই, স্পষ্ট জানাচ্ছেন আবহাওয়াবিদরা। তাঁদের কথায়, এবার ধীরে ধীরে তাপমাত্রা বাড়বে।

আপাতত দিনের বেলা ও রাতের বেলা ঠান্ডার আমেজ থাকছে। তাও গায়েব হয়ে যাবে ধীরে ধীরে।পাশাপাশি বুধবার সকালের দিকে ঘন কুয়াশার চাদরে মোড়া থাকতে পারে একাধিক জেলা। কিন্তু, বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে দৃশ্যমানতা বাড়বে বলে জানা যাচ্ছে।  এদিন উত্তরবঙ্গের কিছু জেলায় বিশেষত দার্জিলিং এবং কালিম্পংয়ে হালকা বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

অন্যান্য জেলাগুলিতে আবহাওয়া মূলত শুষ্ক থাকবে। তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে বলে জানা যাচ্ছে।  ২৩ এবং ২৪ তারিখ বৃষ্টিপাতের কোনও সম্ভাবনা নেই কলকাতাতে। সকালের দিকে কুয়াশা দাপট দেখাতে পারে। কিন্তু, বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে আকাশ পরিষ্কার হবে। কিন্তু, ২৫ তারিখ কলকাতাতেও রয়েছে হালকা বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা। এদিন হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে শহরে। বেলার দিকে তাপমাত্রা বাড়বে শহর কলকাতায়। ধীরে ধীরে চড়বে তাপমাত্রার পারদ।

গতকাল শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৮.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং আজকের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৮.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ সর্বাধিক ৯৭ শতাংশ।  আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, বঙ্গোপসাগর থেকে আসা জলীয় বাষ্পপূর্ণ হাওয়া মূলত বৃষ্টিপাতের জন্য দায়ী। এছাড়াও স্থানীয় কিছু সিস্টেমের জন্য বৃষ্টিপাত হতে পারে রাজ্যে।