তীব্র অক্সিজেন সঙ্কটে দেবদূতের মত এগিয়ে এলেন রতন টাটা!

তীব্র অক্সিজেন সঙ্কটে দেবদূতের মত এগিয়ে এলেন রতন টাটা!

করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তের মধ্যেই 'মরার ওপর খাড়ার ঘা' হয়ে দাঁড়িয়েছে দেশ জুড়ে ভয়ঙ্কর অক্সিজেন সঙ্কট। মারণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দেশে এখন সবথেকে বড় সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে অক্সিজেনের অভাব। আর এই অভাব পূরণ করতে ইতিমধ্যেই ময়দানে নেমেছে টাটাগোষ্ঠী। তরল অক্সিজেন সরবরাহ করার জন্য ২৪টি ক্রায়োজেনিক কন্টেনার্স আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে টাটা। টাটাদের এই সিদ্ধান্তের ফলে দেশে অক্সিজেনের সমস্যা অনেকটাই মিটবে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

মঙ্গলবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণের পরেই এই সিদ্ধান্তের কথা নিজেদের ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে শেয়ার করে টাটা গোষ্ঠী। ট্যুইটার পোস্ট-এ টাটারা জানিয়েছে, "অক্সিজেন সঙ্কট কম করার জন্য এবং দেশে স্বাস্থ্যের পরিকাঠামো আরও উন্নত করার জন্য এটি একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস মাত্র। ভারতের মানুষের কাছে প্রধানমন্ত্রীর আবেদন প্রশংসনীয়। আমরা কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য যথাসম্ভব চেষ্টা করব।'

আরেকটি টুইট করে টাটা কোম্পানি লেখে, "টাটা গোষ্ঠী তরল অক্সিজেনের সরবরাহের জন্য অবিলম্বে ২৪টি ক্রায়োজেনিক কন্টেনার আমদানি করতে চলেছে।"প্রসঙ্গত, একদিন আগেই টাটা স্টিল ঘোষণা করেছিল তাঁরা রাজ্য সরকার এবং হাসপাতাল গুলোকে প্রতিদিন ২০০-৩০০ টন তরল মেডিক্যাল অক্সিজেন পাঠাবে। টাটাদের এই অভূতপূর্ব ঘোষণার পর থেকে #ThisIsTata ব্যাপকভাবে ট্রেন্ড করতে শুরু করে সামাজিক মাধ্যম ট্যুইটারে।

প্রবীণ শিল্পপতি রতন টাটার প্রশংসায় মুখর হন নেটিজেনরা। অনেকে রতন টাটাকে সম্মান জানাতে টুইটারে এই হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করছেন। কেউ কেউ আবার টাটার ন্যানো কারখানার প্রসঙ্গ তুলে আনেন তাঁদের ট্যুইটার পোস্টে। তাঁদের একাংশের মন্তব্য, "যে বাংলা থেকে একসময় চলে যেতে হয়েছিল টাটা গোষ্ঠীকে আজ ২০২১ সালে সেই বাংলার হাসপাতালেও অক্সিজেন সরবরাহ করতে চলেছেন রতন টাটা।"