বুকে জমে থাকা কফ দূর করুন খুব সহজেই

বুকে জমে থাকা কফ দূর করুন খুব সহজেই

আজবাংলা   আপনি চাইলেই সে অর্থে সর্দি জ্বর বা ফ্লুর চিকিৎসা করতে পারবেন না। তবে, এসব রোগের উপসর্গ হিসেবে দেখা দেয় কফ, কাশি এবং গলা ব্যথা উপশম করতে পারবেন। আসুন আজকের প্রতিবেদনে দেখে নিন সেইগুলি ঠিক কি কি-

১. এক চা চামচ মধু ব্যবহার করে দেখুন-  মধু একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিকার যা গলা ব্যথা ও কাশি প্রশমিত করতে পারে। আপনার চায়ের সাথে এক চামচ মধু যোগ করে নিতে পারেন, তবে ১ বছরের কম বয়সী বাচ্চাদের মধু দেবেন না।

২. পানীয় গরম করে নিন-  আপনার শ্বাসনালকে উত্তপ্ত করতে কিছুটা গরম চা বা মুরগির স্যুপ পান করতে পারেন। এটি কেবল আপনাকে হাইড্রেট করবে না, উষ্ণতা শ্লেষ্মা নিঃসরণ কমাতে এবং কাশি দূর করতে সহায়তা করে।

৩. গরম ভাপ নিন-  শুকনো কাশি থেকে মুক্তি পেতে আর্দ্রতা সহায়ক হতে পারে। একটি বাটিতে গরম ভাপ ওঠা জল নিয়ে নাক ও মুখ দিয়ে বাষ্প টেনে নিতে পারেন। এটি শুকনো কাশি ও বন্ধ নাক নিরাময়ে সহায়তা করবে। গরম জলে তুলসি পাতা ব্যবহার করতে পারেন।

৪. নুন জল দিয়ে কুলকুচি করুন-  বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে মৃদু উষ্ণ জলে নুন মিশিয়ে কুলকুচি করলে তা কাশি উপশম করে।

৫. মেনথল ব্যবহার-  মেনথল এবং কিছু ভেষজ কাশি ও গলা ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করে। অনেক সময় ক্যান্ডি চুষে খেলেও তা উপকারী হতে পারে।

৬. ডিকনজেস্ট্যান্ট ব্যবহার-  এই ওভার-দ্য কাউন্টার ওষুধগুলো আপনার বন্ধ নাক পরিষ্কার করতে সহায়তা করতে পারে। যদি পোস্টনাসাল ড্রপ ব্যবহারের ফলে আপনার গলা জ্বালা করে এবং কাশি বাড়িয়ে তোলে, তবে ডিকনজেস্ট্যান্ট উভয়ক্ষেত্রেই সহায়তা করতে পারে। কাশির ওষুধ ৪ বছরের কম বয়সের শিশুদের জন্য নিরাপদ নয়।

৭. বিশ্রাম- ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য আপনার দেহে শক্তির প্রয়োজন। অসুস্থ অবস্থায় সম্পূর্ণ বিশ্রামে থাকুন। এটি আপনার রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আরও বেশি সক্ষম করে তুলবে।

৮. কাশির ওষুধ ব্যবহার-  কখনও কখনও বাজে শ্লেষ্মা বের করার জন্য আপনাকে কাশির ওষুধ ব্যবহার করতে হতে পারে। এক্ষেত্রে ওভার-দ্য কাউন্টার কাশির ওষুধ সাহায্য করতে পারে।