বোর্ডের সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা? অমিত শাহের ফোন সৌরভকে

বোর্ডের সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা? অমিত শাহের ফোন সৌরভকে

আচমকা BCCI বোর্ড সভাপতির টুইট ঘিরে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। বুধবার বিকেলে টুইটারে Sourav Ganguly সৌরভ গাঙ্গুলি লেখেন, '১৯৯২ সালে ক্রিকেট জীবনের শুরু। ২০২২ সালে ক্রিকেটে ৩০ বছর পূর্ণ করলাম। ক্রিকেট আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। ক্রিকেটের জন্য আমি আপনাদের সবার সাপোর্ট পেয়েছি। আমার এই যাত্রায় যারা সামিল হয়েছে,

যারা আমাকে সমর্থন করেছে এবং যারা আমাকে এই জায়গায় পৌঁছতে সাহায্য করেছে তাঁদের সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আজ আমি নতুন কিছু শুরু করার পরিকল্পনা করেছি। যা মানুষকে সাহায্য করবে। আশা করছি আমার জীবনের এই নতুন পর্বেও আপনাদের সমর্থন পাব।' আচমকা সৌরভের এই টুইটে তোলপাড় ক্রিকেট মহল। প্রশ্ন একটাই, তাহলে কি রাজনীতিতে যোগ দিচ্ছেন?

দেশ জুড়ে এমনই হইচই পড়েছে যে, স্বয়ং অমিত শাহ ফোন করে সৌরভকে জিজ্ঞাসা করে ফেলেছেন, ব্যাপার কী? বিজেপি-র কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সূত্রের খবর, সৌরভ নাকি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছেন, বিষয়টির সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই। বস্তুত, সৌরভের এই ব্যাখ্যা আরও জল-বাতাস পাচ্ছে সৌরভের ‘আলোড়ন সৃষ্টিকারী’ টুইটের ঘণ্টা তিনেক আগে করা একটি টুইটে।

সেই টুইটে ইংরেজিতে যা লিখেছেন তা বঙ্গানুবাদে দাঁড়ায়, সাফল্য কোনও গন্তব্য নয়, একটা যাত্রা। তার পরে রয়েছে, একটি রিয়েল এস্টেট সংক্রান্ত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নাম। সেখানেই সৌরভ লিখেছেন, বিষদে জানতে নজর রাখুন। সঙ্গে হ্যাশ ট্যাগ দিয়েছেন, ‘লিভ টু উইন’ এবং ‘ব্র্যান্ড কোলাবোরেশেন’। সঙ্গে রয়েছে, এক ঝাঁক উচ্ছ্বল তরুণ-তরুণীর সঙ্গে সৌরভের ছবি।

আরও দেখা যাচ্ছে, ওই ‘লিভ টু উইন’ হ্যাশটাগেই সৌরভ মঙ্গলবার তাঁর ইন্সটাগ্রামে একটি ভিডিয়োও পোস্ট করেছেন। কিন্তু গোটা দেশ সে সব খতিয়ে দেখেনি। বিভিন্ন স্তরে জল্পনা শুরু হয়েছে সৌরভের রাজনীতির ইনিংস নিয়ে। প্রসঙ্গত, সৌরভের কাছে রাজনীতিতে যাওয়ার প্রস্তাব আগেও ছিল, এখনও রয়েছে। ভবিষ্যতেও থাকবে। কিন্তু সৌরভ সব প্রস্তাবের জবাবেই বলেছেন,

‘আপাতত’ তিনি রাজনীতিতে যেতে ইচ্ছুক নন। বরং, তিনি চান অনেক বেশি করে ক্রিকেটের সঙ্গে জড়িয়ে থাকতে। যে কারণে, বিসিসিআই সভাপতি হওয়া তাঁর কাছে মন্ত্রী, সাংসদ, বিধায়ক হওয়ার চেয়ে অনেক বেশি পছন্দের। অন্তত এখনও পর্যন্ত। কিন্তু সৌরভের রাজনীতিতে যোগদানের জল্পনা তার পরেও থামেনি। মে মাসের প্রথম সপ্তাহে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ গিয়েছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বাড়িতে।

নৈশভোজের সেই আসরে হাজির ছিলেন বিজেপির আরও তিন নেতা। তখনই জল্পনা তৈরি হয়েছিল সৌরভ কি তবে বিজেপির টিকিটে রাজ্যসভায় যেতে চান? বুধবার আচমকা সৌরভ টুইটে নতুন অধ্যায় শুরুর কথা বলতেই রাজনৈতিক মহল মনে করছে সেই নৈশভোজের কথা। তবে কি শাহের সঙ্গে সে দিনই পরবর্তী ‘নতুন অধ্যায়’-এর রূপরেখা তৈরি হয়ে গিয়েছিল!

এই আবহে বুধবার বিকেলে সৌরভের টুইটের পরে এমনও রটে যায় যে, তিনি ইতিমধ্যেই বিসিসিআই সভাপতি পদ থেকেও ইস্তফা দিয়ে দিয়েছেন। এর পর তাঁর গন্তব্য রাজ্যসভা। এবং তা বিজেপির টিকিটে। তবে ওই জল্পনা চলতে চলতেই সংবাদসংস্থা এএনআই বিসিসিআই সচিব তথা অমিত শাহের পুত্র জয় শাহকে উদ্ধৃত করে জানায়, এই খবর ঠিক নয়। সৌরভ আদৌ বিসিসিআইয়ের সভাপতি পদ ছাড়েননি।

এখানে বলে রাখা যাক, বিসিসিআই সভাপতি পদে সৌরভের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে আগামী সেপ্টেম্বর মাসে। জল্পনা— তার আগেই রাজনীতিতে যেতে পারেন সৌরভ। দ্বিতীয় জল্পনা, তিনি হতে পারেন বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা আইসিসির চেয়ারম্যান।বুধবারের টুইটে অবশ্য তাঁর পরবর্তী পদক্ষেপ সম্পর্কে কোনও স্পষ্ট ঘোষণা নেই।