আলাপন ইস্যুকে সামনে রেখে অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের নিয়ে বেনজির সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের!

আলাপন ইস্যুকে সামনে রেখে অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের নিয়ে বেনজির সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের!

আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় ইস্যুতে কিছুতেই সংঘাতের রাস্তা থেকে সরছে না কেন্দ্রীয় সরকার। ইতিমধ্যেই চিঠি পাঠিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে কেন্দ্রের আনা শো-কজ নোটিশের উত্তর দিয়েছেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় (Alapan Bandyopadhyay)। বৃহস্পতিবার একটি চার পাতার চিঠিতে তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের জবাব দেন প্রাক্তন মুখ্য সচিব (WB Former Chief Secretary)।

আর এই প্রেক্ষাপটেই অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের নিয়ে বেনজির সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্রীয় ভিজিল্যান্স কমিশন। অবসরপ্রাপ্ত সরকারি আমলাকে কোনও সরকারি কাজে নতুন করে নিয়োগ করতে হলে এখন থেকে ভিজিল্যান্স ছাড়পত্র লাগবে, এমনই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। আর এই নির্দেশ যে আলাপন পর্বের কারণেই, তা স্পষ্ট। কেন্দ্রীয় ওই নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, কেন্দ্রের অল ইন্ডিয়া সার্ভিসের গ্রুপ 'এ' পদমর্যাদার অবসরপ্রাপ্ত অফিসাররা ছাড়াও কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণে থাকা অন্য কোনও সংস্থার সমতুল মর্যাদার অফিসারদের ক্ষেত্রেও এই নিয়মই প্রযোজ্য হবে।

কেন্দ্রের তরফে স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে, এই অফিসারদের চুক্তির ভিত্তিতে বা পরামর্শদাতা হিসেবে পুনর্নিয়োগ করতে হলে ভিজিল্যন্স ছাড়পত্র লাগবে। অবসর নেওয়ার আগে গত দশ বছর যে যে সংস্থার হয়ে কাজ করেছেন ওই আমলা, সেই সকল সংস্থা থেকেই তাঁকে ছাড়পত্র নিতে হবে। এমনকী প্রয়োজনে কেন্দ্রীয় ভিজিল্যান্স কমিশনের ছাড়পত্রও চাওয়া হতে পারে।

প্রসঙ্গত, আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে ঘিরে রাজ্য-কেন্দ্র টানাপোড়েন এখন তুঙ্গে। মুখ্যসচিব পদে অবসর নেওয়ার পরও আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করেছে কেন্দ্র। আলাপনকে বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তিনদিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছিল তাঁকে। সূত্রের খবর, রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যসচিবকে চার্জশিটও দিতে পারে মোদী সরকার।

যদিও চিঠিতে শোকজের পূর্ণাঙ্গ জবাব দিয়েছেন আলাপন। কিন্তু আলাপন ইস্যুতে অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের জন্য কেন্দ্রীয় নির্দেশিকায় অবাক অনেক প্রাক্তন আমলাই। কেন্দ্রীয় ভিজিল্যান্স কমিশন আরও জানিয়েছে, কোনও সরকারি বা বেসরকারি পদে যদি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি আমলাকে নিয়োগ করার কথা ভাবা হয়, তবে সেই সুযোগ বিশেষ একজনকে দিলে হবে না, সরকারি ক্ষেত্রে সে জন্য সুনির্দিষ্ট বিজ্ঞাপন দিতে হবে।

বাকিদেরও সেই সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা যাবে না। রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় বলেন, 'সিভিসি খুব বাজে স্টেপ নিয়েছে। এই বিরোধ কাম্য নয়। আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় যথাযথ ব্যাখ্যা দিয়েছেন। মহামারী আইনের কথা বলছে। মমতার সাথে আলাপন যে কাজে ছিল সেটা তো মহামারীর কাজই ছিল। সিভিসি যা বলছে তা ঠিক নয়।'