স্ক্যাল্প মাসাজেই সারবে বহু রোগ ও চুলের বৃদ্ধি

স্ক্যাল্প মাসাজেই সারবে বহু রোগ ও চুলের বৃদ্ধি

আজবাংলা   আমাদের ছোটবেলায় সবারই একটা কমন স্মৃতি মনে আছে। সেটি হল, স্নান করতে যাবার আগে মা দিদা বা ঠাকুমাদের হাতে তেল মালিশ চুলে। সে আবার যেমন তেমন ছিল না বিষয়টি। একেবারে চুপচুপে তেল মালিশ চলত। অনেকেই আমরা বিরক্ত হতাম। কিন্তু যদি আমরা প্রাচীন আয়ুর্বেদিক ইতিহাস দেখি তাহলে এই হট অয়েল মাসাজের এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

বর্তমানে এই বিষয়টিকে আরও জোর দিতে চাইছেন বৈজ্ঞানিক মহল। কারন পরীক্ষা করে দেখা গেছে এই স্ক্যাল্প মাসাজের ভূমিকা অনেক, এই বিশেষ মাসাজের ফলে সেরে যাচ্ছে অনেক রোগ। পাশাপাশি দেখা গেছে, স্ক্যাল্প মাসাজের আরামে ডুবে যেতে ভালোবাসছেন অধিকাংশ মেয়ে। আসুন দেখে নেওয়া যাক, এর ভূমিকা ঠিক কতখানি।

১. রক্তসঞ্চালন বাড়িয়ে তোলে-  স্ক্যাল্প মাসাজ মুখে ও মাথায় রক্ত সংবহন বাড়িয়ে তোলে৷ চুলের ফলিকলে (আপনার চুলের একমাত্র জীবিত অংশ) রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি মানেই আরও সুস্থ, ঝলমলে চুল। মাথায় অর্থাৎ স্ক্যাল্পের নিচে যে সূক্ষ্ম শিরা-উপশিরাগুলো আছে, মাসাজের ফলে সে সব প্রসারিত হয় এবং হেয়ার ফলিকলে রক্তের সংবহন বাড়ে৷ স্বাভাবিকভাবেই চুলের বৃদ্ধি বেশি হয়৷

২. মানসিক চাপ কমে-  সারাদিনে যত কাজের চাপই থাকুক, দিনের শেষে হাত-পা ছড়িয়ে একটা স্ক্যাল্প মাসাজ নিতে পারলে নিমেষে আপনি হালকা, চনমনে হয়ে উঠবেন। আসলে মানসিক চাপ আমাদের শরীরের স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা আর হরমোনের উপর প্রভাব ফেলে। হরমোনের এই ওঠাপড়ার ফলে চুল উঠে যেতে পারে।

স্ক্যাল্প মাসাজ নিলে কিন্তু আপনি মুহূর্তে শান্ত হয়ে যাবেন, স্ট্রেসের মাত্রাও সঙ্গে সঙ্গেই অনেকটা কমে যাবে। স্ক্যাল্প মাসাজ সেরোটোনিনের ক্ষরণ বাড়ায় বলে মনে করা হয়।

৩. ঘুম-   রাতে ঘুমোতে অসুবিধে হলে, ঘুম না হলে শুতে যাওয়ার আগে একটা স্ক্যাল্প মাসাজ নিয়ে দেখতে পারেন! স্মার্টফোন, ল্যাপটপ সহ সমস্ত গ্যাজেট বন্ধ করে দিন, ঘরের আলো কমিয়ে দিন এবং তারপর তেলসহ বা তেল ছাড়াই হালকা প্রেশারের মাসাজ নিন৷ প্রতি রাতে এমন মাসাজ নিলে ঘুম যে আসবেই তা নিশ্চিত হয়েই বলা যায়৷

৪. চুলের গোড়া মুজবুত করে-  সুস্থ চুলের জন্য সুস্থ স্ক্যাল্প খুবই দরকার কারণ চুলের গোড়ায় পুষ্টি পৌঁছোয় স্ক্যাল্প থেকেই৷ সপ্তাহে একবার তেল মাসাজ স্ক্যাল্প আর্দ্র থাকতে সাহায্য করে৷ অয়েল মাসাজের ফলে স্ক্যাল্প থেকে মৃত কোষও উঠে যায়, যা চুলের পক্ষেও ভালো৷ কারণ স্ক্যাল্প শুষ্ক হলে বা তাতে আঁশের মতো মৃত কোষ থাকলে চুল ওঠার পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে৷