রোজভ্যালিকাণ্ডে ধৃত শ্রীকান্ত মোহতার জামিন মঞ্জুর সুপ্রিম কোর্টের

রোজভ্যালিকাণ্ডে ধৃত শ্রীকান্ত মোহতার জামিন মঞ্জুর সুপ্রিম কোর্টের

রোজভ্যালি অর্থলগ্নী সংস্থার দুর্নীতির কাণ্ডে ধৃত শ্রীকান্ত মোহতা জামিন পেলেন। শারীরিক অসুস্থতার জন্য তাঁর জামিন মঞ্জুর করল সুপ্রিম কোর্ট। শারীরিক অসুস্থতা, করোনা পরিস্থিতির জন্য সুপ্রিম কোর্টে জামিনের জন্য আবেদন করেন শ্রীকান্ত মোহতা। রোজভ্যালিকাণ্ডে ২ বছর ধরে জেলে ছিলেন শ্রীকান্ত মোহতা।

সোমবার তাঁর জামিন মঞ্জুর করল দেশের শীর্ষ আদালত। আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে ২০১৯ সালের ২৪ জানুয়ারি সিবিআই-এর হাতে গ্রেফতার হন শ্রীকান্ত মোহতা। তাঁকে ভুবনেশ্বরের জেলে নিয়ে রাখা হয়েছিল। শ্রীকান্তের বিরুদ্ধে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ এনেছিলেন রোজভ্যালি কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু।

রোজভ্যালি কর্ণধারের অভিযোগ ছিল, বেশ কয়েকটি সিনেমা বানানোর প্রতিশ্রুতি দিয়ে রোজভ্যালির থেকে ২৪ কোটি টাকা নিয়েছিলেন শ্রীকান্তবাবু। চুক্তি অনুযায়ী, সেই সিনেমাগুলি দেখানোর স্বত্ব পাবে রোজভ্যালির চ্যানেল। কিন্তু প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সব সিনেমার স্বত্ব শ্রীকান্ত হস্তান্তর করেননি বলে অভিযোগ।

দক্ষিণ কলকাতায় শ্রীকান্ত মোহতার অফিসে হানা দিয়ে তাঁকে গ্রেফতার করেছিল সিবিআই। এর আগে একাধিকবার নিম্ন আদালতে শ্রীকান্ত মোহতার জামিনের আবেদন খারিজ হয়ে গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্ট তাঁর আবেদন মঞ্জুর করল। শ্রীকান্তের শারীরিক অসুস্থতার স্বপক্ষে বেশ কিছু নথি আদালতে জমা দেওয়া হয়েছিল। যা দেখে সন্তুষ্ট হয়েই শর্তাধীন জামিন মঞ্জুর করে শীর্ষ আদালত।

সিবিআই সূত্রে খবর, গৌতম জেরায় দাবি করেছিলেন, ২০১০ সালে শ্রীকান্তের শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের রোজভ্যালি গোষ্ঠীর টেলিভিশন চ্যানেলের সঙ্গে চুক্তি হয়। ওই চুক্তি অনুযায়ী প্রযোজনা সংস্থা ২৫ কোটি টাকার বিনিময়ে তাদের ৭০টি ছবি রোজভ্যালির চ্যানেলে দেখানোর স্বত্ব বিক্রি করে।

কিন্তু পরে তা নিয়েও সংঘাত হয় দুপক্ষের। আদালতে গৌতম কুণ্ডুর সংস্থা জানায়, তার মধ্যে নতুন ছবি দেওয়ার কথা ছিল। একাধিক পুরনো ছবি দিয়েছিল শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসে। ৩০টি ছবির মধ্যে অধিকাংশই ছিল পুরনো। রোজভ্যালির টাকা দিয়েই শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসে লছবি বানাবে তাও উল্লেখ ছিল চুক্তিতে। এমনটাই দাবি সিবিআইয়ের।