নদিয়া এবং পূর্ব বর্ধমানে ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস, ভিজবে কলকাতাও

নদিয়া এবং পূর্ব বর্ধমানে ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস, ভিজবে কলকাতাও

২০ মে, ২০২০ সাল, ভয়ানক স্মৃতি আমফানের। গোটা রাজ্যের যে চেহারা ধরা পড়েছিল ফ্রেমে তা এক কথায় বলতে গেলে ভয়ানক। সেই ছবি আবারও ফিরতে চলেছে বাংলায়। ধেয়ে আসছে যশ। আবহাওয়া দপ্তরের কথায় শনিবার বিকেলের দিকে হতে পারে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত। আসছে ঘূর্ণীঝড় 'যশ'। আগামী ২৬ মে সকালে ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে পৌঁছতে পারে যশ।

এদিনই স্থলভাগে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা। তাই আগে থেকেই শনিবার নবদ্বীপ থানার পক্ষ থেকে নবদ্বীপ শহর জুড়ে সতর্কবার্তা দিতে মাইকিং করে প্রচার চালানো হয়। ঘূর্ণিঝড় যশ সম্পর্কে সচেতনতা করতে নবদ্বীপ থানার পক্ষ থেকে মাইকিং এর মাধ্যমে বলা হয়, মাছ ধরতে গিয়ে যেন ঝড়ের কবলে না পড়তে হয় মাঝিদের ও মৎস্যজীবিদের তাই আগে থেকেই গঙ্গায় যেতে মানা করা হচ্ছে, ঘরোয়া লাগোয়া কোন মরা গাছ বা শুকনো ডাল থাকলে কেটে সরিয়ে ফেলুন, ঝড়ের সময় বাইরে বেরোনো যাবে না ঝড় সম্পূর্ণ থেমে গেলে তবেই বাইরে বেরোবেন।

পাশাপাশি রাতের অন্ধকারে পথ চলতে অবশ্যই টর্চ বা হেরিকেন সঙ্গে রাখার বার্তা দেওয়া হচ্ছে।বঙ্গোপসাগরে তৈরি হয়েছে সুনির্দিষ্ট নিম্নচাপ। আগামী কয়েক দিনে সেই নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে বলেই জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। তার মধ্যেই রবিবার দক্ষিণবঙ্গের দুই জেলায় ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস দিল আলিপুর। সেই সঙ্গে কলকাতাতেও বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে বলে জানিয়েছে আলিপুর। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আগামী ২ থেকে ৩ ঘণ্টার মধ্যে নদিয়া ও পূর্ব বর্ধমান জেলায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

সেই সঙ্গে ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার গতিবেগে হওয়া বইবে বলেও জানিয়েছে আলিপুর। শুধু দক্ষিণবঙ্গের ২ জেলা নয়, রবিবার বিকালে কলকাতাতেও হালকা বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর। আলিপুর জানিয়েছে, দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় স্থানীয় নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে। তার ফলেই এই বৃষ্টিপাত। এর সঙ্গে বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া নিম্নচাপের কোনও সম্পর্ক নেই। তবে মঙ্গলবার থেকে রাজ্যে নিম্নচাপের প্রভাবে ঝড় বৃষ্টি শুরু হবে বলেই জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর।