বাংলাদেশ এর সুনামগঞ্জ জেলা

বাংলাদেশ এর সুনামগঞ্জ জেলা

বাংলাদেশর Bangladesh বেশীরভাগ জেলাই স্বাধীনতার আগে থেকে ছিল, কিছু জেলা স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে গঠিত, আবার কিছু জেলা একটি মূল জেলাকে দুভাগ করে তৈরি হয়েছে মূলত প্রশাসনিক সুবিধার কারণে। প্রতিটি জেলাই একে অন্যের থেকে যেমন ভূমিরূপে আলাদা, তেমনই ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক দিক থেকেও স্বতন্ত্র। প্রতিটি জেলার এই নিজস্বতাই আজ বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ করেছে। সেরকমই একটি জেলা হল সুনামগঞ্জ জেলা (Sunamganj)। বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সিলেট বিভাগের অন্তর্গত একটি জেলা হল সুনামগঞ্জ জেলা।

এই জেলাতেই রয়েছে বিখ্যাত বাউল শাহ আব্দুল করিমের বাড়ি এবং হাসন রাজার স্মৃতিবিজড়িত জমিদার বাড়ি। শাহ জালাল নামক বিখ্যাত সুফী ব্যক্তির মুসলমান ধর্ম প্রচারের ইতিহাসের সঙ্গেও জড়িত এই সুনামগঞ্জের নাম। সুনামগঞ্জের দেশবন্ধু মিষ্টির দোকানের মিষ্টি খুবই জনপ্রিয়। এই জেলার উত্তরে মেঘালয় রাজ্য, খাসিয়া ও জৈন্তিয়া পাহাড় (ভারত), দক্ষিণে হবিগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জ জেলা, পূর্বে সিলেট জেলা এবং পশ্চিমে নেত্রকোনা ও বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা অবস্থিত।

বহু গুরুত্বপূর্ণ নদী প্রবাহিত হয়েছে এই জেলার মধ্যে দিয়ে। সুনামগঞ্জের তেমনই উল্লেখযোগ্য কয়েকটি নদী হল: সুরমা, কুশিয়ারা, ধামালিয়া, জাদুকাটা, বাগড়া, ডাহুকা, সোমেশ্বরী ইত্যাদি। সুনামগঞ্জ জেলার আয়তন ৩৭৪৭.১২ বর্গ কিলোমিটার। ২০২২ সালের বাংলাদেশের আদমশুমারি অনুসারে, সুনামগঞ্জ জেলার জনসংখ্যা ছিল ২,৬৯৫,৪৯৫, যার মধ্যে ১,৩২২,৫৯০ জন পুরুষ, ১,৩৭১,৫১৭ জন মহিলা এবং ২২৩ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ। গ্রাম এবং শহরের নিরিখে বিচার করলে দেখা যাবে, গ্রামের জনসংখ্যা ছিল ২,২৯২,৩৬৪ এবং শহরের জনসংখ্যা ৪০১,৯৬৬। নানাধর্মের মানুষ সুনামগঞ্জ জেলায় বাস করলেও এখানে ইসলাম ধর্মের মানুষের সংখ্যাই বেশি।

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী ইসলাম ধর্মের মানুষের সংখ্যা ছিল ৮৬.৮৯ শতাংশ, হিন্দু ধর্মের মানুষ ছিলেন ১২.৯৪ শতাংশ এবং অন্যান্য আরও ধর্মের মানুষের সংখ্যা ছিল ০.১৭ শতাংশ। সুনামগঞ্জ জেলার সমৃদ্ধ ইতিহাসের দিকে তাকানো যাক এবার। মনে করা হয় যে, একজন মুঘল সৈনিক সুনাম উদ্দিনের নাম থেকেই এই জেলার সুনামগঞ্জ নাম হয়েছিল। কোনো এক যুদ্ধে এই মুঘল সৈন্যের অসাধারণ বীরত্বের জন্য সম্রাট তাঁকে এই জমি দান করেছিলেন। তারপর সেই ভূমিতে তাঁরই নামে সুনামগঞ্জ বাজার স্থাপিত হয়েছিল। সেখান থেকেই গোটা জেলাটির নামও সুনামগঞ্জ হয়ে গেছে বলেই মনে করেন গবেষকরা।

নানারকম কিংবদন্তি এবং ঐতিহাসিক ঘটনা ঘিরে আছে সুনামগঞ্জকে। মনে করা হয় একসময় কামরূপ রাজ্য অর্থাৎ প্রাগজ্যোতিষপুরের অন্তর্ভুক্ত ছিল এই জেলাটি। সুনামগঞ্জের লাউড় পরগণায় কামরূপের রাজা ভগদত্তের রাজধানী ছিল মনে করা হয় এবং এও বিশ্বাস করা হয় যে, সেই ভগদত্ত নাকি কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে কৌরবদের পক্ষে লড়েছিলেন। আবার রাজা বিজয় সিংহের বাসস্থানের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গিয়েছিল এই সুনামগঞ্জ জেলাতেই। অনেক ঐতিহাসিক মনে করেন যে সুনামগঞ্জ আসলে সমুদ্রগর্ভ থেকে জেগে উঠেছিল।

যে সাগর থেকে এটি ভেসে উঠেছিল সেই সাগরের নাম ‘কালিদহ’ ছিল বলে মনে করা হয়। সেখানকার স্থানীয় লোকগানেও এই বিশ্বাসের প্রতিফলন লক্ষ করা যায়। একসময় সুনামগঞ্জ জেলায় শাহ জালালের মতো সুফী প্রচারকেরা এসেছিলেন এবং সিলেট জয় করেছিলেন ধর্ম প্রচারের মাধ্যমে। এই সুনামগঞ্জ ইকলিম-ই-মুয়াজ্জামাবাদের একটি অংশ ছিল যা ১৬২০ সাল পর্যন্ত ছিল একটি স্বাধীন রাজ্য, পরে দিল্লির পরাক্রমশালী মুঘলরা তা জয় করে নেয়। সুনামগঞ্জ জেলা মুক্তিযুদ্ধের রক্তাক্ত স্মৃতিও বুকে ধরে রয়েছে।

সুনামগঞ্জ জেলার স্বাধীন বাংলা সংগ্রাম পরিষদ মুক্তিযুদ্ধের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত গৌরবজ্জ্বল ভূমিকা পালন করেছে। একই সঙ্গে অবদান রেখেছেন এই জেলার ছাত্রছাত্রী ও সর্বস্তরের জনগণ। এই জেলার হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা বার বার মোকাবিলা করেছে পাক হানাদার বাহিনীর। ফলে তারা সক্ষম হয়েছিল এই জেলার অধিকাংশ স্থান মুক্ত রাখতে। এই জেলায় মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছে পুলিশ বাহিনীর কিছু সদস্য ও ই.পি.আর সদস্য। এছাড়াও বেঙ্গল রেজিমেন্টের কয়েকটি কোম্পানির সমন্বয়ে জেড-ফোর্স যুদ্ধ করেছে বীর দর্পে।

অনেক রাজনৈতিক নেতা-কর্মী পালন করেছেন সংগঠনের গুরুদায়িত্ব। সুনামগঞ্জ জেলার সরকারী ভাষা মূলত বাংলা। তবে এখানে আরবি, হিন্দি এবং ইংরেজি ভাষায় দক্ষ মানুষেরও অভাব নেই। তবে সিলেটের আঞ্চলিক ভাষাতেও এখানকার একাংশের মানুষ কথা বলেন। ১৮৭৭ সালে সুনামগঞ্জ মহকুমা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল৷ পরবর্তীকালে ১৯৮৪ সালে এই সুনামগঞ্জ জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায়। মোট যে বারোটি উপজেলা নিয়ে সুনামগঞ্জ গঠিত সেগুলি হল, বিশ্বম্ভরপুর, ছাতক, শান্তিগঞ্জ, দিরাই, ধর্মপাশা, দোয়ারাবাজার, জগন্নাথপুর, জামালগঞ্জ, শাল্লা, সুনামগঞ্জ সদর, তাহিরপুর এবং মধ্যনগর। এছাড়াও ৮৭টি ইউনিয়ন পরিষদ, ৪টি পৌরসভা, ২৮১৩টি গ্রাম নিয়ে সুনামগঞ্জ জেলাটি গঠিত।

কৃষিই হল সুনামগঞ্জ জেলার আয়ের অন্যতম প্রধান একটি উৎস। এখানে বোরো ধান, তৈলবীজ প্রচুর পরিমাণে উৎপন্ন হয়। আম, কমলালেবু, কাঁঠাল, কলা ইত্যাদি ফলের চাষও হয়ে থাকা। এছাড়াও সুনামগঞ্জে রাবার বাগানও দেখা যায় অনেক। সুনামগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য ভ্রমণস্থানের তালিকা অপূর্ণই থেকে যাবে যদি তালিকার শুরুতেই হাসন রাজার স্মৃতিবিজড়িত জমিদার বাড়ি না থাকে। এছাড়াও আরও কয়েকটি দর্শনীয় স্থান হল, আছিম শাহ’র মাজার, গৌরারং জমিদার বাড়ি, জগন্নাথ জিউর আখড়া, টাঙ্গুয়ার হাওর, ডলুরা শহীদদের সমাধি সৌধ, পাইলগাও জমিদারবাড়ি, রাধারমণ দত্তের সমাধি, জাদুকাটা নদী ইত্যাদি।

বেশ কিছু বিখ্যাত কৃতী মানুষের জন্মভূমি এই সুনামগঞ্জ জেলা। তেমন কয়েকজন জনপ্রিয় ব্যক্তি হলেন: হাসন রাজা (সঙ্গীতজ্ঞ ও মরমী কবি), শাহ আব্দুল করিম (সুরকার ও গীতিকার), রাধারমণ দত্ত (সঙ্গীতজ্ঞ ও কবি), রামকানাই দাস (শাস্ত্রীয় ও লোকসঙ্গীতশিল্পী), আলাউর রহমান (কণ্ঠশিল্পী ও সুরকার), সুহাসিনী দাস (সমাজকর্মী), নাজির আহমেদ চৌধুরী (ফুটবলার), আসাদ্দর আলী (লেখক, গবেষক ও ইতিহাসবিদ),

শাহেদ আলী (লেখক ও ঔপন্যাসিক), মানিক লাল রায় (কমিউনিস্ট রাজনীতিবিদ, গণশিক্ষার পথিকৃৎ শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা), আবদুর রইস (পাকিস্তান ও বাংলাদেশের সাবেক সংসদ সদস্য) প্রমুখ। সুনামগঞ্জ জেলার আজও লোকসংস্কৃতির বিভিন্ন ধারা সমানভাবে বহমান। এই জেলা গানবাজনায় সমৃদ্ধ আগাগোড়াই। হাসন রাজা, শাহ আব্দুল করিমের মতো মানুষেরা লোকসঙ্গীতের মুর্ছনায় মুগ্ধ করেছেন মানুষকে। বাউল গান ছাড়াও ধামাইল, সূর্যব্রত গান, হালযাত্রা, গোরমার নাচ ইত্যাদির প্রচলন আজও দেখা যায় এখানে। সুনামগঞ্জ জেলার দেশবন্ধু মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের মিষ্টি সারা বাংলাদেশেই ভীষণ জনপ্রিয়।

সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কটিই জেলার সড়ক যোগাযোগের প্রধানতম পথ। এ পথেই রাজধানীসহ দেশের অন্যান্য জেলার সাথে সরাসরি যোগাযোগ রক্ষা হয়। সুনামগঞ্জ-জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা হয়ে নেত্রকোণা জেলার সাথে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপনের নিমিত্তে সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রকল্প নির্মাণাধীন। এছাড়া সুনামগঞ্জ-ছাতক আঞ্চলিক সড়ক, সুনামগঞ্জ-দিরাই আঞ্চলিক সড়ক, সুনামগঞ্জ-বিশ্বম্ভরপুর-তাহিরপুর আঞ্চলিক সড়ক, সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর আঞ্চলিক সড়কের মাধ্যমে জেলার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে উপজেলাগুলো।

আরো পড়ুন      জীবনী  মন্দির দর্শন  ইতিহাস  ধর্ম  জেলা শহর   শেয়ার বাজার  কালীপূজা  যোগ ব্যায়াম  আজকের রাশিফল  পুজা পাঠ  দুর্গাপুজো ব্রত কথা   মিউচুয়াল ফান্ড  বিনিয়োগ  জ্যোতিষশাস্ত্র  টোটকা  লক্ষ্মী পূজা  ভ্রমণ  বার্ষিক রাশিফল  মাসিক রাশিফল  সাপ্তাহিক রাশিফল  আজ বিশেষ  রান্নাঘর  প্রাপ্তবয়স্ক  বাংলা পঞ্জিকা