বুথ দখল করে ভোটে জিতেছেন শুভেন্দু অধিকারী, চাঞ্চল্যকর দাবি তৃণমূল নেতার

বুথ দখল করে ভোটে জিতেছেন শুভেন্দু অধিকারী, চাঞ্চল্যকর দাবি  তৃণমূল  নেতার

পূর্ব মেদিনীপুর    নাম না করে ফের নিজের দলকে তোপ দাগলেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। স্পষ্ট মনে করিয়ে দিলেন, মানুষের ভোটে নির্বাচনে জিতে সমবায় ব্যাঙ্কের সভাপতির আসনে বসেছেন তিনি। শুভেন্দুর দাবিকে পালটা চ্যালেঞ্জ করেছেন রামনগরের বিধায়ক অখিল গিরি।

নিখিল ভারত সমবায় সপ্তাহ উজ্জাপন উপলক্ষে বুধবার পূর্ব মেদিনীপুরের নিমতৌড়িতে ছিল বিশেষ সভা। সেই সভামঞ্চ থেকে ফের একবার শুভেন্দু বোঝানোর চেষ্টা করলেন কারও দয়ায় নেতা হননি তিনি। হয়েছেন নিজের যোগ্যতায় ও মানুষের সমর্থনে।

এদিন শুভেন্দু বলেন, আমিই একমাত্র লোক গর্ব করে বলতে পারি প্রাথমিক কৃষক সমিতি থেকে সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক সব জায়গায় চেয়ারম্যান। আমি নির্বাচিত হয়ে এসেছি। কারও মনোনীত নই। একই সঙ্গে পূর্ব মেদিনীপুরে সফল সমবায় আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ডাক দেন তিনি।

শুভেন্দুর দাবিকে চ্যালেঞ্জ করে অখিল গিরি বলেন, ‘খেজুরি থেকে লোক ঢুকিয়ে বুথ দখল করে ভোটে জিতেছিল শুভেন্দু। হারিয়ে দেওয়া হয়েছিল তৎকালীন সভাপতিকে।’ তাঁর দাবি, ‘২০০৬ সালে বিধায়ক হওয়ার পর সমবায় আন্দোলোনে যোগ দেন শুভেন্দু। তাঁর অভিজ্ঞতা বাকিদের থেকে কিছু বেশি নয়।’

পূর্ব মেদিনীপুরের রাজনীতিতে অধিকারী পরিবারের প্রতিপক্ষ হিসেবে পরিচিত অখিল গিরির খাসতালুক রামনগরে বৃহস্পতিবার সভা করার কথা শুভেন্দুর। তমলুক, এগরা, নন্দীগ্রাম-সহ জেলার নানা প্রান্তে শুভেন্দুর একের পর এক কর্মসূচি সম্প্রতি আলোচনার কেন্দ্রে এসেছে। ওই কর্মসূচিগুলিতে দলের কোনও পতাকা দেখা যায়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোনও ছবি দেখা যায়নি।

এমনকী, নন্দীগ্রামের গোকুলনগরে শহিদ দিবস পালনের অনুষ্ঠানেও মমতা বা তৃণমূলের নাম শুভেন্দু বা তাঁর অনুগামীরা উচ্চারণ করেননি। বিভিন্ন সমবায় সংগঠনকে নিয়ে রামনগরে যে তিনি সভা করতে চলেছেন, তা শুভেন্দু আগেই জানিয়েছিলেন। সেই সভা থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণাও করতে পারেন, এমন ইঙ্গিত