সাংসদ মিমি চক্রবর্তীকে লক্ষ্য করে ট্যাক্সি চালকের আপত্তিকর অঙ্গভঙ্গি

সাংসদ মিমি চক্রবর্তীকে লক্ষ্য করে ট্যাক্সি চালকের আপত্তিকর অঙ্গভঙ্গি

আজবাংলা  মহানগরীর বুকে আবারো একজন শ্লীলতাহানি হলেন। তবে এবারে আর যে কেউ নয়, খোদ সাংসদ ও অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। ঘটনাটি ঘটেছে বালিগঞ্জ এবং গড়িয়াহাটের মাঝামাঝি এলাকায়। সময় তখন দুপুর একটা মতন হবে। ওই নির্দিষ্ট এলাকায় ট্রাফিক জ্যামের কারনে অভিনেত্রী আটকে পড়েছিলেন।

ঠিক সেইসময় একটি ট্যাক্সি এসে তাঁর গাড়িকে ওভারটেক করে, তাঁর গাড়ির পাশে এসে দাঁড়ায়। সেইসময়ে মিমি তাঁর গাড়ির কাচ নামিয়ে রেখেছিলেন। সেইসময় মিমি খেয়াল করেন তাঁর পাশে দাঁড়ানো ট্যাক্সির চালক তাঁকে দেখে অশ্লীল আচরণ ও অসভ্য অঙ্গভঙ্গি করছে। সেই মুহূর্তে তিনি তাঁর গাড়ি থেকে নামেন। সেই সঙ্গে তাঁর পাশের সেই ট্যাক্সির চালককেও টেনে নামান। জোর ধমক দেন ওই চালককে মিমি। কিন্তু ততক্ষনে বেশ লোক জড়ো হয়ে গেছে।

এরপর যথারীতি পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেন মিমি। দ্রুত পুলিশ এসে পড়ে ঘটনাস্থলে। এরপরে অভিযুক্ত চালকের খোঁজ শুরু হয়। তারপর রাতেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। পরে পুলিশ জানায়, সেদিন অর্থাৎ সোমবার দুপুর ১টার সময় বালিগঞ্জ ফাঁড়ির কাছে পৌঁছে হর্ন দিতে দিতে মিমির গাড়িকে ওভারটেক করে একটি ট্যাক্সি। তখন মিমি গাড়ি থেকে নেমে ট্যাক্সিটি দাঁড় করান। সেইসময় ট্যাক্সিচালক মিমির উদ্দেশে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গিও করে। এরপরই সাংসদ কর্তব্যরত সার্জেন্টের সঙ্গে ফোনে কথা বলে পুরো বিষয়টি জানান।

এই প্রসঙ্গে অভিনেত্রী ও সাংসদ জানিয়েছেন,‘‘সরকারি গাড়ি দেখেও যদি ট্যাক্সিচালক তার আরোহীর উদ্দেশ্য করে প্রকাশ্যে এমন অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি ও মন্তব্য করে, সেক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের কী হবে?’’ সেইসময় মিমি জিম থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। এর পাশাপাশি পুলিশ জানিয়েছেন, আধ ঘণ্টার মধ্যে ট্যাক্সি-সহ চালককে আটক করা হয়। চালকের নাম দেবা যাদব। বয়স ৩২ বছর। গ্রেফতার করা হয়েছে, বাইপাসের ধারে আনন্দপুর থানা থেকে। এখন চালকের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানি, অশ্লীল ইঙ্গিত ধারায় গড়িয়াহাট থানায় মামলাটি রুজু করা হয়েছে।