তবে কি ঘরেই আস্থা হারাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী, ভাইয়ের মন্তব্যে পদ্ম ফোটার জল্পনা তুঙ্গে

তবে কি ঘরেই আস্থা হারাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী, ভাইয়ের মন্তব্যে পদ্ম ফোটার জল্পনা তুঙ্গে

রাজনৈতিক উত্তেজনা বাড়ছে পশ্চিমবঙ্গে। চার-পাঁচ মাস পরই নির্বাচন। মে মাসে হতে পারে বলে অনুমান সবার। কিন্তু প্রচারমাধ্যমের মূল মনোযোগ এখনই ওদিকে ঘুরে গেছে। আয়তনের হিসাবে পশ্চিমবঙ্গ ভারতে ১৪তম রাজ্য। জনসংখ্যার হিসাবে চতুর্থ। রাজ্যের বিধানসভায় আসন ২৯৪টি। ১৪৮টি আসন হাতে থাকলে সরকার গড়া যায়।

২০১৬ সালে ২১১টি পেয়েছিল মমতার তৃণমূল। ২০১১ সালে পেয়েছিল ১৮৪টি। এসব ইতিহাসে কেউই এখন আর ভরসা রাখছে না। নয় বছর হলো পশ্চিমবঙ্গে মমতার রাজত্ব চলছে। ২২ বছর বয়সী একটা দলের ৯ বছর ক্ষমতায় থাকা সফলতা হিসেবে বেশ। মের নির্বাচনে জিতে তৃণমূল তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় থেকে যেতে চায়।

কিন্তু ভোটের দিনক্ষণ যত এগোচ্ছে—দল ছাড়ছে অনেকে। দলত্যাগীদের মাঝে সর্বশেষ নাম এসেছে শুভেন্দু অধিকারী। এ রাজ্যে দল ভাঙাগড়ার খেলা নতুন নয়। মুকুল রায়-অনুপম হাজরাসহ বিজেপির রাজ্য শাখার নেতা-কর্মীদের বড় অংশ অতীতে কংগ্রেস-তৃণমূল ও বামদের সঙ্গে থাকা মানুষ।

খোদ তৃণমূল দলটিও কংগ্রেস ভেঙেই তৈরি।এবার হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিটে ঢুকে পদ্ম ফোটাব। হুঙ্কার দিয়েছিলেন দলত্যাগী শুভেন্দু। বিজেপি নেতার সেই দাবি কি তাহলে সত্যি হতে চলেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইয়ের মন্তব্য ঘিরে নতুন করে চড়ছে জল্পনার পারদ। কার্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, 'আগামী দিনে কি হবে সেটা কেউ বলতে পারে না'।

তারপরেই জল্পনার পারদ চড়তে শুরু করেছে। তাহলে কী মমতা নিজের ঘরেই আস্থা হারাচ্ছেন। বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে শুভেন্দু অধিকারী হুঙ্কার দিয়েছিলেন এবার হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিটেও ঢুকবে পদ্ম ফোটাবেন তিনি।

অভিষেক শুভেন্দুকে নিজের বাড়িতে পদ্মফোটানের কথা বলেছিলেন। তার পাল্টা জবাবে এই মন্তব্য করেছিলেন শুভেন্দু। তারপরেই মুখযমন্ত্রীর ভাইয়ের মন্তব্য নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। শুভেন্দু অভিষেককে আক্রমণ করে বলেছিলেন এবার কালীঘাটে ঢুকে পদ্মফোটাবেন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইয়ের মন্তব্যে নতুন করে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর ভাই কার্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, 'আগামী দিনে কি হবে সেটা কেউ বলতে পারে না। কাল কী করব আমি তাও জানি না।' যে পরিবারতন্ত্রের অভিযোগে বিদ্ধ তাঁর নিজের পরিবার।

এদিন কার্তিকবাবু বলেন, ‘মুখে দেশের কথা বলবো আর নিজের পরিবারকে সব সুবিধা দেব, এটাই এখন রাজনীতি।'এই নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। তাহলে কী কালীঘাটেও ঢুকে পড়েছে বদলের হাওয়া। গতবার কার্তিকবাবু বিবেক মেলায়  শুভেন্দু অধিকারীকে ডেকেছিলেন। তবে সেই নিয়ে তোলপাড় পড়ে গিয়েছে কালীঘাটে। তবে রাজনৈতিক মহলের মতে, এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। কালীঘাটেও ফুটতে পারে পদ্ম  ।