ভয়াবহ পরিস্থিতিতে দেশে ৬-৮ সপ্তাহ লকডাউনের সুপারিশ করলেন ICMR প্রধানের

ভয়াবহ পরিস্থিতিতে দেশে ৬-৮ সপ্তাহ  লকডাউনের সুপারিশ করলেন ICMR প্রধানের

 দেশজুড়ে করোনা পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। হাসপাতালগুলিতে রোগীর পরিজনদের আর্তদান। শ্মশানে দেহ সত্‍কারের জায়গা কম পড়ছে। এই পরিস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য় করলেন দি ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্য়াল রিসার্চের(ICMR) প্রধান ডাক্তার বলরাম ভার্গভ(Dr Balram Bhargava)। দেশে বাড়তে থাকা অতিমারি সামাল দিতে, বেশি সংক্রমিত জেলাগুলিতে ছয় থেকে আট সপ্তাহ সম্পূর্ণ লকডাউনের সুপারিশ করলেন তিনি।

একটি সাক্ষাত্‍কারে ডাক্তার বলরাম ভার্গভ(Dr Balram Bhargava) বলেন, "দেশের ৭১৮টি জেলার চার ভাগের তিন ভাগ অংশেই করোনা সংক্রমণের হার ১০ শতাংশের বেশি। যার মধ্য়ে রয়েছে নয়াদিল্লি, মুম্বই, বেঙ্গালুরু। দেশের যে জেলাগুলিতে করোনা সংক্রমণের হার ১০ শতাংশের বেশি, সেই জেলাগুলিতে ছয় থেকে আট সপ্তাহ লকডাউন জারি রাখা প্রয়োজন। সংক্রমণের হার ১০ শতাংশের নীচে নামলে তবেই লকডাউন তুলে দেওয়া যেতে পারে।"

লকডাউনের কথা বলতে গিয়ে দিল্লির প্রসঙ্গ টানেন ডাক্তার বলরাম ভার্গভ(Dr Balram Bhargava)। তিনি জানান, একটা সময় দিল্লিতে সংক্রমণের হার ৩৫ শতাংশে পৌঁছে গিয়েছিল। যদিও এখন তা কমে ১৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। তাঁর মতে, "যদি এই মুহূর্তে দিল্লিতে লকডাউন তুলে দেওয়া হয়, তার ফলাফল হবে মারাত্মক।"  ভার্গভই হলেন প্রথম সরকারি উচ্চপদস্থ আধিকারিক, যিনি দেশের লম্বা লকডাউনের কথা বললেন।

যদিও অর্থনীতি ভেঙে পড়ার আশঙ্কায় কেন্দ্রের মোদী সরকার আগেই সম্পূর্ণ লকডাউনের সম্ভাবনা উড়িয়েছে। সরকারের বক্তব্য়, চলতি বছর অর্থনীতির অবস্থা, গত বছরের তুলনায় ভাল। বহু শ্রমিক যাঁরা গ্রামে ফিরে গিয়েছেন, তাঁরা একশো দিনের কাজের দ্বারা গ্রামীণ অর্থনীতিকে চাঙ্গা করছেন। তাই এই পরিস্থিতিতে ফের লকডাউন ঘোষণা করলে অর্থনীতিতে ক্ষতিগ্রস্থ হবে এবং সেই পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়ানো মুশকিল হবে।