নদিয়ার হতাহতদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্যের ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

নদিয়ার হতাহতদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্যের ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

মৃতদেহ দাহ করতে যাওয়ার পথে ভয়াবহ পথদুর্ঘটনা প্রাণ কেড়েছে ১৮ জনের। রবিবার সকালে নদিয়ার ফুলবাড়ির এই দুর্ঘটনায় চমকে উঠেছে গোটা দেশ। মর্মান্তিক এই ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। প্রধানমন্ত্রীর দফতরের তরফে নিহতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে সাহায্যের ঘোষণা করা হয়েছে। আহতদের দেওয়া হচ্ছে ৫০ হাজার টাকা করে। অন্যদিকে রাজ্য সরকারের তরফেও মৃতদের পরিবারের জন্য ২ লক্ষ টাকা করে আর্থিক সাহায্য ঘোষণা করা হয়েছে।

রবিবারই নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। রাজ্য সরকারের আর্থিক সাহায্যের ঘোষণা মতো নিহদের পরিবারের হাতে চেক তুলে দেন তিনি। নদিয়ার দুর্ঘটনায় টিভি নাইন বাংলার অন্তর্তদন্তে উঠে আসছে বেশ কিছু তথ্য।

নদিয়ার ফুলবাড়ির ওই রাস্তা বেশ সংকীর্ণ। তারমধ্যে যত্রতত্র পড়ে থাকে বালি, পাথর। বর্ষায় রাস্তার হাল আরও খারাপ হয়েছে। তা মেরামতও করা হয়নি বলে অভিযোগ এলাকার লোকজনের। খারাপ রাস্তা এবং পড়ে থাকা বালি, পাথরের কারণে বার বার ওই রাস্তায় দুর্ঘটনা ঘটে। কিন্তু পুলিশের কোনও নজরদারি নেই বলেও অভিযোগ ওঠে।এরই মধ্যে রবিবার কাকভোরে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে। পথ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান ১৮ জন শ্মশানযাত্রী।

আহত একাধিক। মৃতদেহ সত্‍কার করতে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনাটি ঘটে। উত্তর চব্বিশ পরগনার বাগদার পারমদন এলাকার বাসিন্দা শিবানি মুহুরীর মৃত্যুর পর ঠিক হয়, সত্‍কার করা হবে পাশের জেলা নদিয়ার নবদ্বীপে। সেই মতো রাতেই আত্মীয়, পরিজন, গ্রামবাসী মিলিয়ে পঁচিশ-ছাব্বিশজন মৃতদেহ নিয়ে মালবাহী গাড়িতে সত্‍কারের জন্য রওনা হন।

এরপরই নদিয়ার ফুলবাড়িতে ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে সেই শববাহী গাড়ি। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় কয়েকজনের। সকলকেই উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয় শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে। সেখানেও মৃত্যু হয় কয়েকজনের। অবস্থার অবনতি হওয়ায় ছ’জনকে কলকাতার হাসপাতালে পাঠানো হয়। দুর্ঘটনার পর ঘটনাস্থলে যান পুলিশের উচ্চপদস্থ কর্তারা।

লরির চালককে আটক করেছে পুলিশ। শববাহী গাড়ির চালকের ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। এদিন দিনভর বাগদার পারমদন এলাকায় হাহাকার। শুধুমাত্র মুহুরী পরিবারেই একটা দুর্ঘটনা কেড়ে নিল এতগুলো প্রাণ। স্বজন হারানোর শোকে ভেঙে পড়েছেন সকলেই। মুহুরী পরিবারের পাশাপাশি গোটা পাড়ায় কান্নার রোল।

মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক জানান, শিবানী মুহুরি যাঁকে দাহ করতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল তাঁর বয়স ৮৩ বছর। দুর্ঘটনায় যাঁরা মারা গিয়েছেন তাঁদের মধ্যে সাতজন মহিলা ও এক শিশুও রয়েছে। স্থানীয়রা জানান, ১৫ জনই ঘটনাস্থলে মারা যান। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে বাকিদেরও মৃত্যু হয়। নদিয়ার পুলিশ সুপার সায়ক দাস বলেন, “দু’টো গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। শ্মশানযাত্রীদের গাড়ির গতি কত ছিল তা দেখতে হবে। দুর্ঘটনাগ্রস্ত গাড়িটি দুমড়ে মুচড়ে গিয়েছে।”