আলোচনার মাধ্যমেই ভারতের সঙ্গে বিবাদ মেটাতে চাইছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী

আলোচনার মাধ্যমেই ভারতের সঙ্গে বিবাদ মেটাতে চাইছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী

 চারিদিক থেকে আসা লাগাতার চাপে বেসামাল হয়ে পড়েছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। আর তাই ক্রমশ কমছে তাঁর ঔদ্ধত্ব্য! রবিবার তার জ্বলজ্যান্ত প্রমাণ পাওয়া গেল। ভারতের সঙ্গে মানচিত্র নিয়ে বিতর্ক শুরু হওয়ার পর থেকে যে অশান্তির সূত্রপাত হয়েছে।

ফের আলোচনার মাধ্যমেই তা মেটানোর জন্য সওয়াল করলেন তিনি। তবে কালাপানি, লিম্পিয়াধুরা ও লিপুলেখের দাবিও যে ছাড়ছেন না তাও পরিষ্কার বুঝিয়ে দিয়েছেন।  সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার সকালে কাঠমাণ্ডুতে অবস্থিত নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা (Nepal PM Oli) ওলির বাসভবনে মন্ত্রিসভার একটি জরুরি বৈঠক হয়।

সেখানে কালাপানি (Kalapani), লিম্পিয়াধুরা ( Limpiyadhura), লিপুলেখ (Lipulekh) তিনি ভারতের থেকে পুনরুদ্ধার করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন ওলি। তবে আগের মতো অনড় মনোভাব না দেখিয়ে আলোচনার মধ্যে দিয়েই এই সমস্যার সমাধান করবেন বলে জানান।

 রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ২০২২ সাল পর্যন্ত মেয়াদ ছিল সরকারের। কিন্তু, নেপালের শাসকদল কমিউনিস্ট পার্টির মধ্যে যেভাবে ওলির প্রতি ক্ষোভ বাড়ছিল তাতে তিনি কত প্রধানমন্ত্রী থাকতে পারবেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছিল। বিষয়টি বুঝতে পেরেই সরকার ভেঙে দিয়ে আগামী এপ্রিল মাসে ফের নির্বাচনের রাস্তায় হাঁটার পরিকল্পনা নেন কেপি শর্মা ওলি। উদ্দেশ্য ছিল, দেশে বিশৃঙ্খলা তৈরি করে নিজেকে সর্বশক্তিমানে পরিণত করা।

দলের ঘেরাটোপ থেকে বেরিয়ে নেপালের একনায়ক হয়ে ওঠা। আর তাই কেয়ারটেকার প্রধানমন্ত্রী হয়েও ভারতের সঙ্গে সীমান্ত বিবাদ মেটানোর বিষয়ে এখন থেকেই চেষ্টা শুরু করছেন। যাতে এই বিষয়টি নেপালে ভোটের সময়ে প্রচারের কাজে লাগানো যায়।