পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়া হল লাদাখের সিয়াচেন বেস ক্যাম্প

পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়া হল লাদাখের সিয়াচেন বেস ক্যাম্প

লাদাখ ট্যুরিজমের অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেল থেকে ঘোষণা করা হয়েছে যে সিয়াচেন বেস ক্যাম্প এখন দেশীয় পর্যটকদের জন্য খোলা হবে। বিশ্ব পর্যটন দিবস ২০২১ -এর একদিন আগে করা হয়েছে এই ঘোষণা। ঘোষণার এর থেকে ভাল সময় আর কি ই বা হতে পারত। সিয়াচেন হিমবাহ পৃথিবীর সবচেয়ে উঁচু রণক্ষেত্র এবং বেস ক্যাম্প। এই ভূখণ্ড দুর্গম হলেও পর্যটকদের কাছে অন্যতম শ্রেষ্ঠ আকর্ষণীয় জায়গাগুলির মধ্যে একটা।

লাদাখের সাংসদ জামিয়াং সেরিং নামগিয়ালের উপস্থিতিতে সিয়াচেন বেস ক্যাম্পে পর্যটকদের প্রথম ব্যাচের পতাকা দেখিয়ে উদ্বোধন করা হয়। লাদাখ স্বায়ত্তশাসিত পার্বত্য উন্নয়ন পরিষদের প্রধান নির্বাহী কাউন্সিলর তাশি গায়ালসন এই পতাকা প্রদর্শন করেন। সিয়াচেন হিমবাহ পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের কন্ট্রোল লাইনের কাছাকাছি কারাকোরাম রেঞ্জে অবস্থিত।

ভারতের সেনাবাহিনীর জন্য এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ স্ট্র্যাটেজিক পয়েন্ট। সিয়াচিন সংঘাতের কারণে এটা বিশ্বের সর্বোচ্চ যুদ্ধক্ষেত্র হিসেবে ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেছে। যে বা যারা সিয়াচেন বেস ক্যাম্পের অভিজ্ঞতা নেবে, তারা পৃথিবীর অন্যতম সর্বোচ্চ পয়েন্টে দাঁড়িয়ে ঠিক কেমন লাগতে পারে তার একটা অনুভূতি পেতে পারবে। এটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লাদাখের একটা গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট। সিয়াচেন ট্রেক অবশ্য দেশের অন্যতম চ্যালেঞ্জিং ট্রেক। এই ট্রেক সবার জন্য নয়। লেহ থেকে শুরু করে এই ট্রেক আপনাকে দেশের সবচেয়ে বিভ্রান্তিকর কিছু অঞ্চলে হয়ে নিয়ে যায়।

এই ট্রেক অনেক কিছু চ্যালঞ্জের সঙ্গে মোকাবিলা করতে শেখাবে। আমাদের প্যান্ডেমিকের পর ঘুরতে যাওয়ার যে খিদেটা উঁকি দিচ্ছে, তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখার জন্য সিয়াচেন ট্রেক আপনি করতেই পারেন। তবে, খেয়াল রাখবেন, শুধুমাত্র মানসিক প্রস্তুতি এই ট্রেকের জন্য যথেষ্ট নয়। আপনাকে শারীরিকভাবেও অনেকটা বেশি প্রস্তুতি নিতে হবে। এটা শুধু ভারতের নয়, পৃথিবীর অন্যতম কঠিন ট্রেকগুলির মধ্যে একটা।

প্যান্ডেমিকের সময় লাদাখের পর্যটন শিল্প বেশ কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। এমনটা নয় যে সিয়াচেন বেস ক্যাম্প প্রচুর মানুষকে আকৃষ্ট করবে। এই জায়গা এতটাই দুর্গম যে অনেকেই নিজেদের প্রথম পছন্দ হিসেবে একে বেছে নেবেন না। তবে, আসল কথা হল, যদি এত দুর্গম একটা জায়গা পর্যটকদের জন্য খোলা হয়ে গিয়ে থাকে, তাহলে হয়তো আস্তে আস্তে লাদাখের সমস্ত জায়গাই সবার জন্য খুলে দেওয়া হবে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পর্যটন শিল্প আবার স্বাভাবিক হয়ে উঠবে।