পশ্চিমবঙ্গ | ভারতের পূর্ব অবস্থিত রাজ্য West Bengal

পশ্চিমবঙ্গ | ভারতের পূর্ব অবস্থিত রাজ্য West Bengal

  বাংলা নামেও পরিচিত পশ্চিমবঙ্গ  West Bengal  রাজ্যটি ভারতের পূর্ব খন্ডে অবস্থান করে আছে। ৮৮,৭৫২ বর্গ কিলোমিটার (৩৪,২৬৭ বর্গ মিটার) এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এই রাজ্যের রাজধানী হল মহানগরী কলকাতা। এছাড়াও দেশের চতুর্থ সর্বোচ্চ জনবহুল রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ, বিশ্বের জনসংখ্যার খাতিরে সপ্তম স্থান দখল করে আছে বলে মনে করা হয়। ২০১১ সালের ৩১-শে মার্চ, প্রকাশিত ভারতের আদমশুমারির তথ্য অনুসারে, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মোট জনসংখ্যা হল প্রায় ৯১,৩৪৭,৭৩৬ জন।

এই অবদান দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৭.৫৫ শতাংশ। বাঙালি সম্প্রদায়ের এক স্থান হওয়ায় পশ্চিমবঙ্গের জনসংখ্যার প্রধান অংশ বাঙালিদের নিয়েই গঠিত। পশ্চিমবঙ্গের জনসংখ্যায় আরোও অন্যান্য সম্প্রদায়গুলির মধ্যে রয়েছে বিহারি, তিব্বতি, শেরপা, গোর্খা, এর পাশাপাশি বিভিন্ন উপজাতি সম্প্রদায়ের মানুষও রয়েছে; যেমন – সাঁওতাল, কোচ-রাজবংশী, টোটো এবং কোল। এছাড়াও, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে বেশ কিছু পরিমাণে আর্মেনিয়ান্, ইহুদী, গ্রীক ও চীনা-সম্প্রদায়ও রয়েছে। একসময় বলা হত এই রাজ্যটি ২০,০০০ চীনাদের বাসস্থল ছিল, কিন্তু এখন কেবলমাত্র ২,০০০ চীনা ব্যাক্তি এখানে রয়েছে। 

২০১১ সালে প্রকাশিত ভারতের আদমশুমারি অনুযায়ী, পশ্চিমবঙ্গের জনসংখ্যার তথ্য একবার দ্রুত নজরে দেখে নেওয়া যাক –

মোট জনসংখ্যাঃ ৯১,৩৪৭,৭৩৬ জন

পুরুষ জনসংখ্যাঃ ৪৬,৯২৭,৩৮৯ জন

মহিলা জনসংখ্যাঃ ৪৪,৪২০,৩৪৭ জন

পুরুষঃ – পশ্চিমবঙ্গের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৫১.৩৭ শতাংশ।
মহিলাঃ – পশ্চিমবঙ্গের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৪৮.৬৩ শতাংশ।

পূর্ব ভারতের এই প্রবেশদ্বার পশ্চিমবঙ্গ, সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার এবং মহিমান্বিত ইতিহাসে সমৃদ্ধ। রাজ্যটি কয়েকটি প্রাচীন শক্তিশালী শাসকের রাজত্ব ছিল এবং মুঘল সংস্কৃতির অংশ ছিল। পাশাপাশি, রাজ্যটি বিভিন্ন বিদেশী জাতির একটি প্রতিষ্ঠিত উপনিবেশ ছিল ও অত্যাচারী ব্রিটিশ শাসনের দ্বারা বশীভূত ছিল। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি তার সুপরিচিত ব্যবসার সম্ভাবনার জন্য দেশে ব্যবসায়িক কেন্দ্র স্থাপনের উদ্দেশ্যে ভারতে আসে।

পশ্চিমবঙ্গে, ব্রিটিশদের প্রথম উল্লেখযোগ্য পদার্পণ হয়েছিল যখন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির এক প্রতিনিধি জব চার্নক, একটি যোগ্য বাণিজ্য কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার জন্য সূতানুটি, গোবিন্দপুর ও কোলিকাতা নামে তিনটি বৃহত্তম গ্রামকে নিয়ে এই অঞ্চল গঠন করেন। এই তিনটি গ্রাম একসঙ্গে আধুনিক কলকাতা নামে পরিচিত। এই শহর কেন্দ্রিক মহানগরটি হল বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী। 

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যটি, পূর্ব ভারতের ব্যবসা, বাণিজ্য, সংস্কৃতি ও শিক্ষার এক কেন্দ্র ছিল যা ইতিহাসের পাতায় অতীতের স্থান নিয়ে আছে। বিভিন্ন শক্তিশালী রাজবংশের অধীনে, রাজ্যটি ফরাসি, ব্রিটিশ, ওলন্দাজ ও পর্তুগীজদের ব্যবসায়িক উপনিবেশ হিসাবে স্থাপিত হয়েছিল। ফরাসিদের ন্যায় অন্যান্য বিদেশীরাও তাদের বাণিজ্যের স্বার্থে ভারতে আগমন করে এবং বাংলার ব্যস্তবহুল জমির ওপর তাদের শিল্প-কাঠামো স্থাপণ করে।

১৬৭৩ সালে ফরাসিরা, তৎকালীন বাংলার মুঘল রাজ্যশাসক, নবাব শায়েস্তা খানের কাছ থেকে অনুমতি চেয়ে চাঁদেরনগর বা বর্তমান নাম চন্দননগরে তাদের উপনিবেশ স্থাপণ করে। ফরাসিদের তখন মহিমান্বিত সময় ছিল কারণ তারা যা স্পর্শ করত সোনায় পরিণত হত। ১৮১৬ সালে, ফরাসিরা, বিখ্যাত নেপোলিয়ন বোনাপার্টের বিরুদ্ধে অসাধারণ জয়লাভের পর, পাঁচটি পুরনো উপনিবেশ- চন্দ্রানগর, পুদুচ্চেরি, করাইকল, মাহে ও ইয়ানম এবং মছিলিপত্তনম, কোঝিকোড় ও সূরাটের বিভিন্ন পরিবেষ্টনে ফ্রান্সের আধিপত্য পুনঃস্থাপিত হয়।

 পশ্চিমবঙ্গ তার সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকারিক সম্পত্তির গৌরবে আচ্ছন্ন হয়েছিল যা রাজ্যের পুরনো যুগের ইতিহাসের স্বপক্ষে সাক্ষ্য প্রমাণ দেয়। এই পুরনো ইতিহাসের কাহিনী থেকে পুরনো দিনের বৈদিক যুগের সম্পর্কে একটা ধারণা করা যেতে পারে। সাধারণভাবে এই বৈদিক পরবর্তী যুগ থেকে সেই সময়ের অনুমান করা যায় যখন আর্যরা এই বাংলার ভূ-খন্ডে অধিষ্ঠিত ছিল। খ্রীষ্টপূর্ব ৪০০ থেকে ১০০ খ্রীষ্টাব্দ পর্যন্ত বিদেশী গ্রীক ভ্রমণকারীদের ঐতিহাসিক বর্ণনায় গঙ্গারিডাই নামে একটি স্থানের উল্লেখ পাওয়া যায় যা বর্তমান বাংলা ছাড়া আর অন্য কিছু নয় বলেই অনুমান করা হয়।

গঙ্গা ও তার বক্ষের ভূমি গঙ্গার্ধ ব্যুৎপত্তিগত ভাবে এক তাৎপর্য্যপূর্ণ। পূরাণ মতে, এই গঙ্গারিডাই-তে বিশ্বের উদ্ভবের সূচনা হয় বলে অনুমান করা হয়। এই বৈদিক পরবর্তী সময়ে ধীরে ধীরে পাল ও সেন শাসকদের মহিমান্বিত শাসন চরম জায়গায় ত্বরান্বিত হয়, তাঁদের শাসনের অধীনে বাংলায় ব্যবসা, বাণিজ্য, ধর্ম ও সংস্কৃতি প্রস্ফুটিত হয়ে ওঠে। প্রাচীন বৌদ্ধ গ্রন্থে ১৬-টি মহাজনপদের উল্লেখ রয়েছে যা বৌদ্ধ ধর্ম ও সংস্কৃতির এক পীঠস্হান ছিল।

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে দুই প্রধান প্রতিপক্ষ শক্তি হল সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস ও ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। ২০০৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ২৩৫টি আসন দখল করে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে বামফ্রন্ট সরকার ক্ষমতায় আসে। বিগত ৩৪ বছর এই বামফ্রন্ট পশ্চিমবঙ্গ শাসন করেছে। এই সরকার ছিল বিশ্বের দীর্ঘতম মেয়াদের গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত কমিউনিস্ট সরকার। ২০১১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে, ২২৬টি আসন দখল করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস জাতীয় কংগ্রেস জোট বামফ্রন্টকে পরাজিত করে পশ্চিমবঙ্গে সরকার গঠন করছে। এরপর থেকে তিন মেয়াদে রাজ্যের শাসনক্ষমতায় আছে তৃণমূল কংগ্রেস। ২০২১ এর নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস ২১৩ টি আসনে জয়লাভ করে, বিজেপি পায় ৭৭ আসন।

প্রশাসনিক কাজের সুবিধার জন্য পশ্চিমবঙ্গকে পাঁচটি বিভাগ ও ২৩টি জেলায় বিভক্ত করা হয়েছে।

 বর্ধমান বিভাগ    মালদা বিভাগ    জলপাইগুড়ি বিভাগ   প্রেসিডেন্সি বিভাগ   মেদিনীপুর বিভাগ   

জলপাইগুড়ি বিভাগ     আলিপুরদুয়ার জেলা   কালিম্পং জেলা   কোচবিহার জেলা  জলপাইগুড়ি জেলা  দার্জিলিং জেলা

মালদা বিভাগ     উত্তর দিনাজপুর জেলা   দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা   মালদা জেলা   মুর্শিদাবাদ জেলা

বর্ধমান বিভাগ   পূর্ব বর্ধমান জেলা    পশ্চিম বর্ধমান জেলা   বীরভূম জেলা   হুগলি জেলা

প্রেসিডেন্সি বিভাগ   উত্তর ২৪ পরগণা জেলা কলকাতা জেলা দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলা নদিয়া জেলা হাওড়া জেলা

মেদিনীপুর বিভাগ    পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুরুলিয়া জেলা পূর্ব মেদিনীপুর জেলা বাঁকুড়া জেলা ঝাড়গ্রাম জেলা

 মেদিনীপুর বিভাগ   

পূর্ব মেদিনীপুর

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ২০০২ সালে। জেলা সদর – তমলুক। মহকুমা – ★তমলুক, ★হলদিয়া, ★এগরা, ★কাঁথি। আয়তন – ৪,৭৮৫ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৫,০৯৮,২৩৮। 

পূর্ব মেদিনীপুর লোকসভা 

কাঁথি (কোন্টাই), তমলুক, ঘাটাল, মেদিনীপুর

 পূর্ব মেদিনীপুর বিধানসভা

তমলুক, পাঁশকুড়া পূর্ব, পাঁশকুড়া পশ্চিম, ময়না, নন্দকুমার, মহিষাদল, হলদিয়া, নন্দীগ্রাম, চাঁদিপুর, পটাশপুর, কাঁথি উত্তর, ভগবানপুর, খেজুরি, কাঁথি দক্ষিণ, রামনগর, এগরা 

 পূর্ব মেদিনীপুর ব্লক

ভগবানপুর-৷, ভগবানপুর-৷৷, চাঁদিপুর, কাঁথি-৷, কাঁথি-III, দেশোপ্রান, এগরা-৷, এগরা-II, হলদিয়া, খেজুরি-৷, খেজুরি-II, কোলাঘাট, মহিষাদল, ময়না, নন্দ কুমার, নন্দীগ্রাম-৷, নন্দীগ্রাম-II, পাঁশকুড়া, পটাশপুর-৷, পটাশপুর-II, রামনগর-৷, রামনগর-II, শহীদ মাতঙ্গিনী, সুতাহাটা, তমলুক  

 

পশ্চিম মেদিনীপুর :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ২০০২ সালে। জেলা সদর – মেদিনীপুর। মহকুমা – ★খড়গপুর, ★মেদিনীপুর, ★ঘাটাল। আয়তন – ৯,২৯৬ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৫,৯৪৩,৩০০।

পশ্চিম  মেদিনীপুর  লোকসভা 

মেদিনীপুর, ঘাটাল, ঝাড়গ্রাম (এস.টি), আরামবাগ (এস.সি)

পশ্চিম  মেদিনীপুর বিধানসভা

দাঁতন, নয়াগ্রাম, গোপীবল্লভপুর, ঝাড়গ্রাম, কেশিয়ারি, খড়গপুর সদর, নারায়ণগড়, সবং, পিঙ্গলা, খড়গপুর, ডেবরা, দাশপুর, ঘাটাল, চন্দ্রকোণা, গড়বেতা, শালবনি, কেশপুর, মেদিনীপুর, বিনপুর

পশ্চিম  মেদিনীপুর ব্লক 

বিনপুর-৷, বিনপুর-II, চন্দ্রকোণা-৷, চন্দ্রকোণা-II, দাঁতন-৷, দাঁতন-II, দাশপুর-৷, দাশপুর-II, ডেবরা, গড়বেতা-৷, গড়বেতা-II, গড়বেতা-III, ঘাটাল, গোপীবল্লভপুর – I, গোপীবল্লভপুর- II, জামবনি, ঝাড়গ্রাম, কেশিয়ারি, কেশপুর, খড়গপুর-৷, খড়গপুর-II, মেদিনীপুর, মোহনপুর, নারায়ণগড়, নয়াগ্রাম, পিঙ্গলা, সবং, শালবনি, সাঁকরাইল

পুরুলিয়া :
প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৫৬ সালে। জেলা সদর – পুরুলিয়া। মহকুমা – ★পুরুলিয়া পূর্ব, ★পুরুলিয়া পশ্চিম, ★রঘুনাথ পুর। আয়তন – ৬,২৫৯ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ২,৯২৭,৯৬৫।

পুরুলিয়া লোকসভা 

পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রাম 

পুরুলিয়া বিধানসভা

বান্দোয়ান, বলরামপুর, বাঘমুন্ডি, জয়পুর, পুরুলিয়া, মানবাজার, কাশীপুর, পারা, রঘুনাথপুর 

পুরুলিয়া ব্লক

আরশা, বাঘমুন্ডি, বলরামপুর, বরাবাজার, বান্দোয়ান, হুরা, জয়পুর, ঝালদা-৷, ঝালদা-II, কাশীপুর, মানবাজার-৷, মানবাজার-II, নেতুরিয়া, পারা, পুঞ্চা, পুরুলিয়া-৷, পুরুলিয়া-II, রঘুনাথপুর-৷, রঘুনাথপুর-II, সাঁতুরি

 

 বাঁকুড়া :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – বাঁকুড়া। মহকুমা – ★বাঁকুড়া, ★খাতরা, ★বিষ্ণুপুর। আয়তন – ৬,৮৮২ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৩,৫৯৬,২৯২।

বাঁকুড়া  লোকসভা 

বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুর (এস.সি)

বাঁকুড়া   বিধানসভা  

শালতোড়া, ছাতনা, রাণিবাঁধ, রায়পুর, তালডাংরা, বাঁকুড়া, বরজোড়া, ওন্দা, বিষ্ণুপুর, কোটালপুর, ইন্দাস, সোনামুখী

বাঁকুড়া ব্লক

বাঁকুড়া I, বাঁকুড়া II, বরজোড়া, ছাতনা, গঙ্গাজলঘাটি, হীরবাঁধ, ইন্দপুর, ইন্দাস, জয়পুর, খাতরা, কোটালপুর, মেজিয়া, ওন্দা, পাত্রসায়র, রায়পুর, রাণিবাঁধ, শালতোড়া, সারেঙ্গা, সিমলাপাল, সোনামুখী, তালডাংরা, বিষ্ণুপুর

১. বাঁকুড়া সদর মহকুমায় ৭৫ টি গ্রাম পঞ্চায়েত রয়েছে:

বাঁকুড়া প্রথম ব্লকে ছয়টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত: আঁচুড়ি, জগদল্লা -১, কালাপাথর, আঁধারথোল, জগদল্লা-২ এবং কেঞ্জাকুড়া।

বাঁকুড়া দ্বিতীয় ব্লকটি সাতটি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত: বিকনা, কোস্টিয়া, নড়রা,সানবাঁধা, জুনবেদিয়া, মানকানালী এবং পুরন্দরপুর।

বড়জোড়া ব্লকটি ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত: বরজোড়া, ছাঁদার, হাট আশুরিয়া, পখন্না, বেলিয়াতোড়, ঘুটগড়িয়া, খাঁড়ারি, শাহারজোড়া, বৃন্দাবনপুর, গোদারডিহি এবং মালিয়াড়া।

ছাতনা ব্লকটি অন্তর্ভুক্ত করে: আড়রা, ধবন, জিড়রা, তেঘরী, চীনাবাড়ী, ঘোষেরগ্রাম, মেট্যালা, ছাতনা-১, জামতোড়া, শালডিহা, ছাতনা-২, ঝুঞ্জকা ও শুশুনিয়া।

গঙ্গাজলঘাটি ব্লকটি গঠিত: বনআশুসুড়িয়া, গঙ্গাজলঘাটি, লছমনপুর, পিড়রাবনি, বড়শাল, গোবিন্দধাম, লটিয়াবনি, ভক্তাবাঁধ, কাপিশঠা এবং নিত্যানন্দপুর।

মেজিয়া ব্লক রয়েছে: অর্ধগ্রাম, কুশতোড়, রামচন্দ্রপুর, বানজোড়া এবং মেজিয়া।

ওন্দা ব্লকটি অন্তর্ভুক্ত করে: চিঙ্গানি, লোদনা, নিকুঞ্জপুর, রামসাগর, চুড়ামনিপুর, মাঝডিহা, ওন্দা -১, রতনপুর, কল্যাণী, মেদিনীপুর, ওন্দা-২, সানতোড়, কাঁটাবাড়ী, নাকাইজুড়ি ও পুণিশোল।

শালতোড়া ব্লকটি রয়েছে: বামুনতোড়, গোগড়া, পাবড়া, শালতোড়া, ঢেকিয়া, কানুড়ি, সালমা এবং তিলুড়ি।

২. খাতড়া মহকুমায় ৫৯ টি গ্রাম পঞ্চায়েত রয়েছে:

খাতড়া ব্লক: বৈদ্যনাথপুর, ধানাড়া, খাতড়া গ্রাম -১, সুপুর, দহলা, গোরাবাড়ি এবং খাতড়া গ্রাম-২।

ইন্দপুর ব্লক: ব্রাহ্মণডিহা, গৌড়বাজার, ইন্দপুর, ভেদুয়াশোল, ব্রজরাজপুর, হাটগ্রাম এবং রঘুনাথপুর।

হিড়বাঁধ ব্লক: বহড়ামুড়ি, হিড়বাঁধ, মশিয়ারা, গোপালপুর এবং মলিয়ান।
রায়পুর: ধানাড়া, ফুলকুসমা, মটগোদা, সোনাগাড়া, ঢেকো, মেলারা, রায়পুর, দুন্দার, মন্ডলকুলি এবং শ্যামসুন্দরপুর।

সারেঙ্গা ব্লক: বিক্রমপুর, গড়্গড়িয়া, নেতপুরপুর,চিলতোড়, গোয়ালবাড়ি এবং সারেঙ্গা।

রানীবাঁধ ব্লক: অম্বিকানগর, হলুদকানালী, রাজাকাটা, রাউতোড়া, বারিকুল, পুড্ডি, রানীবাঁধ এবং রুদড়া।

সিমলাপাল ব্লক: বিক্রমপুর, লক্ষ্মীসাগর, মন্ডলগ্রাম, সিমলাপাল, দুবরাজপুর, মাচাতোড়া এবং পরশোলা।

তালডাংরা ব্লক: আমডাংরা, হাড়মাসড়া, শালতোড়া, বিবড়দা, খলগ্রাম, সাতমৌলি, ফুলমতি, পাঁচমুড়া ও তালডাংরা।

৩. বিষ্ণুপুর মহকুমায় ৫৬টি গ্রাম পঞ্চায়েত রয়েছে:

বিষ্ণুপুর ব্লক রয়েছে: অযোধ্যা, ভড়া, মড়ার, বাঁকাদহ, দ্বারিকা–গোঁসাইপুর, রাধানগর, বেলসুলিয়া, লায়েকবাঁধ এবং উলিয়াড়া।

ইন্দাস ব্লকটি রয়েছে: আকুই-১, দিঘলগ্রাম, করিসুন্ডা, সাহসপুর, আকুই-২, ইন্দাস-১, মঙ্গলপুর, আমরুল, ইন্দাস-২ এবং রোল।

জয়পুর ব্লকটি গঠিত: গেলিয়া, কুচিয়াকোল, সালদা, হেটিয়া, ময়নাপুর, শ্যামনগর, জগন্নাথপুর, রাউতখণ্ড ও উত্তরবাড়।

পাত্রসায়র ব্লকটি রয়েছে: বালসি-১, বেলুট–রসুলপুর, জামকুড়ি, পাত্রসায়ের, বালসি-২, বিউর–বেতুর, কুশদ্বীপ, বীরসিংহ, হামিরপুর এবং নারায়ণপুর।

কোতুলপুর ব্লকটি অন্তর্ভুক্ত করে: দেশরাকোয়ালপাড়া, কোতুলপুর, লেগো, মির্জাপুর, গোপীনাথপুর, লৌগ্রাম, মদনমোহনপুর এবং সিহড়।

সোনামুখী ব্লকটি সমন্বিত: কোচদিহি, ডিহিপাড়া, পাঞ্চাল, রাধামোহনপুর, ধানসিমলা, হামিরহাটি, পিয়ারবেড়া, ধুলাই, মানিকবাজার ও পূর্বনবাশন।

 

 বর্ধমান বিভাগ 

পূর্ব বর্ধমান :
প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – বর্ধমান। মহকুমা – ★কালনা, ★কাটোয়া, ★বর্ধমান উত্তর, ★বর্ধমান দক্ষিণ। আয়তন – ৭,০২৪ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৭,৭২৩,৬৬৩।

পশ্চিম বর্ধমান :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ২০১৭ সালে। জেলা সদর – আসানসোল। মহকুমা – ★আসানসোল, ★দুর্গাপুর। আয়তন – ১,৬০৩ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ২,৮৮২,০৩১।

বর্ধমান লোকসভা 

আসানসোল, বর্ধমান-দুর্গাপুর, বর্ধমান পূর্ব (এস.সি), বোলপুর (এস.সি) (আংশিক), বিষ্ণুপুর (এস.সি)

বর্ধমান   বিধানসভা

খন্ডঘোষ, বর্ধমান দক্ষিণ, রায়না, জামালপুর, মন্তেশ্বর, কালনা, মেমারী, বর্ধমান উত্তর, ভাতার, পূর্বস্থলী দক্ষিণ, পূর্বস্থলী উত্তর, কাটোয়া, কেতুগ্রাম, মঙ্গলকোট, আউশগ্রাম, গলসি, পান্ডবেশ্বর, দুর্গাপুর পূর্ব, দুর্গাপুর পশ্চিম, রাণিগঞ্জ, জামুরিয়া, আসানসোল দক্ষিণ, আসানসোল উত্তর, কুলটি, বারাবনি

বর্ধমান ব্লক

আউশগ্রাম-৷, আউশগ্রাম-II, বারাবনি, ভাতার, বর্ধমান I, বর্ধমান II, ফরিদপুর, দুর্গাপুর, গলসি-I, গলসি-II, জামালপুর, জামুরিয়া, কালনা-৷, কালনা-II, কাঁকসা, কাটোয়া-৷, কাটোয়া-II, কেতুগ্রাম-৷, কেতুগ্রাম-II, খন্ডঘোষ, মঙ্গলকোট, মন্তেশ্বর, মেমারি-৷, মেমারি-II, অন্ডাল, পান্ডবেশ্বর, পূর্বস্থলী-৷, পূর্বস্থলী-II, রায়না-৷, রায়না-II, রাণিগঞ্জ, সালানপুর

 

বীরভূম :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – সিউড়ি। মহকুমা – ★সিউড়ি, ★বোলপুর,★রামপুরহাট। আয়তন – ৪,৫৮৫ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৩,৫০২,৩৮৭।

বীরভূম  লোকসভা 

বোলপুর (এস.সি), বীরভূম

বীরভূম বিধানসভা

দূবরাজপুর, সিউড়ি, বোলপুর, নানূর, লাভপুর, সাঁইথিয়া, ময়ূরেশ্বর, রামপুরহাট, হাঁসাঁ, নলহাটি, মুরারই

বীরভূম ব্লক   

বোলপুর শ্রীনিকেতন, দুবরাজপুর, ইলামবাজার, খয়রাশোল, লাভপুর, ময়ূরেশ্বর- ৷, ময়ূরেশ্বর- II, মহম্মদ বাজার, মুরারই- ৷, মুরারই- II, নলহাটি-৷, নলহাটি-II, নানূর, রাজনগর, রামপুরহাট-৷, রামপুরহাট-II, সাঁইথিয়া, সিউড়ি I, সিউড়ি- II

 

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – চুঁচুড়া। মহকুমা – ★চুঁচুড়া, ★চন্দননগর, ★শ্রীরামপুর, ★আরামবাগ। আয়তন – ৩,১৪৯ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৫,৫২০,৩৮৯।

হুগলী  লোকসভা 

শ্রীরামপুর, হুগলী, আরামবাগ (এস.সি)

হুগলী  বিধানসভা

উত্তরপাড়া, শ্রীরামপুর, চম্পদানি, সিংগুর, চন্দননগর, চুঁচুড়া, বলাগড়, পান্ডুয়া, সপ্তগ্রাম, চন্ডীতলা, জঙ্গিপাড়া, হরিপাল, ধনিয়াখালি, তারকেশ্বর, পুরসুরা, আরামবাগ, গোঘাট, খানাকুল

হুগলী  ব্লক   

আরামবাগ, বলাগড়, চন্ডীতলা-৷, চন্ডীতলা-II, চুঁচুড়া-মগরা, ধনিয়াখালি, গোঘাট-৷, গোঘাট-II, হরিপাল, জঙ্গিপাড়া, খানাকুল-৷, খানাকুল-II, পান্ডুয়া, পোলবা-দাদপুর, পুরসুরা, শ্রীরামপুর-উত্তরপাড়া, সিংগুর, তারকেশ্বর

প্রেসিডেন্সি বিভাগ

হাওড়া :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – হাওড়া। মহকুমা – ★হাওড়া, ★উলুবেড়িয়া। আয়তন – ১৪৬৭ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৪,৮৪১,৬৩৮।

হাওড়া  লোকসভা 

হাওড়া, উলুবেড়িয়া, শ্রীরামপুর

হাওড়া  বিধানসভা 

বালি, হাওড়া উত্তর, হওড়া মধ্য, শিবপুর, হাওড়া দক্ষিণ, সাঁকরাইল, পাঁচলা, উলুবেড়িয়া পূর্ব, উলুবেড়িয়া উত্তর, উলুবেড়িয়া দক্ষিণ, শ্যামপুর, বাগনান, আমতা, উদয়নারায়ণপুর, জগৎল্লভপুর, ডোমজুড়

হাওড়া  ব্লক     

আমতা-৷, আমতা-II, বাগনান-৷, বাগনান-II, বালি জগাছা, ডোমজুড়, জগৎবল্লভপুর, পাঁচলা, সাঁকরাইল, শ্যামপুর-৷, শ্যামপুর-II, উদয়নারায়ণপুর, উলুবেড়িয়া-৷, উলুবেড়িয়া-II

কলকাতা :

প্রতিষ্টা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – কলকাতা। আয়তন – ১৮৫ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৪,৪৮৬,৬৭৯।

কলকাতা  লোকসভা 

কলকাতা দক্ষিণ, কলকাতা উত্তর  

কলকাতা  বিধানসভা

কলকাতা বন্দর, ভবানীপুর, রাসবিহারী, বালিগঞ্জ, চৌরঙ্গি, এন্ট্যালী, বেলেঘাটা, জোড়াসাঁকো, শ্যামপুকুর, মানিকতলা, কাশীপুর-বেলগাছিয়া

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৮৬ সালে। জেলা সদর – আলিপুর। মহকুমা – ★বারুইপুর, ★ক্যানিং, ★ ডায়মন্ড হারবার, ★কাকদ্বীপ, ★আলিপুর। আয়তন – ৯,৯৬০ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৮,১৫৩,১৭৬।

দক্ষিণ ২৪ পরগণা  লোকসভা  

জয়নগর (এস.সি), মথুরাপুর (এস.সি), ডায়মন্ড হারবার, যাদবপুর, কলকাতা দক্ষিণ 

দক্ষিণ ২৪ পরগণা বিধানসভা 

গোসাবা, বাসন্তী, কুলতলি, পাথরপ্রতিমা, কাকদ্বীপ, সাগর, কুলপি, রায়দীঘি, মন্দিরবাজার, জয়নগর, বারুইপুর পূর্ব, ক্যানিং পশ্চিম, ক্যানিং পূর্ব, বারুইপুর পশ্চিম, মগরাহাট পূর্ব, মগরাহাট পশ্চিম, ডায়মন্ড হারবার, ফলতা, সাতগাছিয়া, বিষ্ণুপুর, সোনারপুর দক্ষিণ, ভাঙ্গর, কসবা, যাদবপুর, সোনারপুর উত্তর, টালিগঞ্জ, বেহালা পূর্ব, বেহালা পশ্চিম, মহেশতলা, বজবজ, মেটিয়াব্রুজ

দক্ষিণ ২৪ পরগণা ব্লক     

বারুইপুর, বাসন্তী, ভাঙ্গর-৷, ভাঙ্গর-II, বিষ্ণুপুর-৷, বিষ্ণুপুর-II, বজবজ-৷, বজবজ-II, ক্যানিং-৷, ক্যানিং-II, ডায়মন্ড হারবার-৷, ডায়মন্ড হারবার-II, ফলতা, গোসাবা, জয়নগর-৷, জয়নগর-II, কাকদ্বীপ, কুলপি, কুলতলি, মগরাহাট-৷, মগরাহাট-II, মন্দিরবাজার, মথুরাপুর-৷, মথুরাপুর-II, নামখানা, পাথরপ্রতিমা, সাগর, সোনারপুর, ঠাকুরপুকুর মহেশতলা

উত্তর চব্বিশ পরগনা :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৮৬ সালে। জেলা সদর – বারাসাত। মহকুমা – ★ব্যারাকপুর, ★বারাসাত, ★বনগাঁ, ★বসিরহাট, ★বিধাননগর। আয়তন – ৪,০৯৪ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ১০,০৮২,৮৫২।

উত্তর ২৪ পরগণা  লোকসভা  

বনগাঁ (এস.সি), ব্যারাকপুর, দমদম, বারাসত, বসিরহাট

উত্তর ২৪ পরগণা  বিধানসভা

বাগদা, বনগাঁ উত্তর, বনগাঁ দক্ষিণ, গাইঘাটা, স্বরূপনগর, বাদুড়িয়া, হাবরা, অশোকনগর, আমডাঙ্গা, বিজপুর, নৈহাটি, ভাটপাড়া, জগৎদল, নোয়াপাড়া, ব্যারাকপুর, খড়দহ, দমদম উত্তর, পানিহাটি, কামারহাটি, বরানগর, দমদম, রাজারহাট নিউ টাউন, বিধাননগর, রাজারহাট গোপালপুর, মধ্যমগ্রাম, বারাসত, দেগঙ্গা, হাড়োয়া, মীনাখান, সন্দেশখালি, বসিরহাট দক্ষিণ, বসিরহাট উত্তর, হিঙ্গলগঞ্জ

উত্তর ২৪ পরগণা ব্লক     

আমডাঙ্গা, বাদুড়িয়া, বাগদা, বারাসত-৷, বারাসত-II, ব্যারাকপুর-৷, ব্যারাকপুর-II, বসিরহাট-৷, বসিরহাট-II, বনগাঁ, দেগঙ্গা, গাইঘাটা, হাবরা-৷, হাবরা-II, হাড়োয়া, হাসনাবাদ, হিঙ্গলগঞ্জ, মীনাখান, রাজারহাট, সন্দেশখালি-৷, সন্দেশখালি-II, স্বরূপনগর

নদিয়া :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – কৃষ্ণনগর। মহকুমা – কৃষ্ণনগর, কল্যাণী,  রানাঘাট,  তেহট্ৰ। আয়তন – ৩,৯২৭ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৫,১৬৮,৪৮৮।

নদীয়া  লোকসভা

 কৃষ্ণনগর, রাণাঘাট (এস.সি), বনগাঁ (এস.সি), মুর্শিদাবাদ 

নদীয়া  বিধানসভা

করিমপুর,   তেহট্ট,    পলাশিপাড়া, কালীগঞ্জ, নাকাশিপাড়া, চাপড়া,    কৃষ্ণনগর উত্তর, নবদ্বীপ, কৃষ্ণনগর দক্ষিণ ,শান্তিপুর, রানাঘাট উত্তর-পশ্চিম, কৃষ্ণগঞ্জ, রানাঘাট উত্তর-পূর্ব, রানাঘাট দক্ষিণ, চাকদহ, কল্যাণী, হরিণঘাটা  

নদীয়া  পুরসভা

কৃষ্ণনগর, নবদ্বীপ, রাণাঘাট, শান্তিপুর, চাকদহ

নদীয়া  ব্লক   

চাকদা, চাপড়া, হাঁসখালি, হরিণঘাটা, কালিগঞ্জ, করিমপুর-৷, করিমপুর-II, কৃষ্ণগঞ্জ, কৃষ্ণনগর-৷, কৃষ্ণনগর-II, নবদ্বীপ, নাকাশিপাড়া, রানাঘাট-I, রানাঘাট-II, শান্তিপুর, তেহট্ট-৷, তেহট্ট-II

তেহট্ট মহকুমা

  করিমপুর-১ ব্লক 

করিমপুর-১ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা আটটি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল

হরেকৃষ্ণপুর, জামশেরপুর, করিমপুর-২, পিপুলবেড়িয়া, হোগলবেড়িয়া, করিপুর-১, মধুগড়ি ও শিকারপুর। ব্লকের একমাত্র নগরাঞ্চলটি হল করিমপুর সেন্সাস টাউন। ব্লকটি হোগলবেড়িয়া, করিমপুর ও মুরুটিয়া থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর শিকারপুর।

করিমপুর-২ ব্লক

করিমপুর-২ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা দশটি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল ঢোরাদহ-১, মারুতিয়া, নারায়ণপুর-২, রহমতপুর, ঢোরাদহ-২, নন্দনপুর, নটিডাঙা-১, দিঘল কান্দি, নারায়ণপুর-১ ও নটিডাঙা-২। এই ব্লকে কোনো নগরাঞ্চল নেই।  ব্লকটি থানারপাড়া, করিমপুর ও মুরুতিয়া থানার অধীনস্থ।ব্লকের সদর রহমতপুর।[৪]

তেহট্ট-১ ব্লক

তেহট্ট-১ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা ১১টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল বেতাই-১, ছিটকা, পাথরঘাটা-১, শ্যামনগর, বেতাই-২, কানাইনগর, পাথরঘাটা-২, তেহট্ট, চাঁদেরঘাট, নাতনা, রঘুনাথপুর। এই ব্লকে কোনো নগরাঞ্চল নেই।  ব্লকটি তেহট্ট থানার অধীনস্থ।  ব্লকের সদর তেহট্ট। 

তেহট্ট-২ ব্লক

তেহট্ট-২ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা সাতটি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল বার্নিয়া(নতুন বার্নিয়া), হাঁসপুকুরিয়া, পলসুন্ডা-১, সাহেবনগর-২, গোপীনাথপুর, পলাশীপাড়া ও পলসুন্ডা-২।এই ব্লকে কোনো নগরাঞ্চল নেই। ব্লকটি তেহট্ট ও পলাশীপাড়া থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর পলাশীপাড়া।

কৃষ্ণনগর মহকুমা

কৃষ্ণনগর সদর মহকুমা পশ্চিমবঙ্গের নদিয়া জেলার একটি মহকুমা। এই মহকুমা কৃষ্ণনগর ও নবদ্বীপ পুরসভা এবং সাতটি সমষ্টি উন্নয়ন ব্লক (কালীগঞ্জ, নাকাশিপাড়া, চাপড়া, কৃষ্ণনগর-১, কৃষ্ণনগর-২, নবদ্বীপ ও কৃষ্ণগঞ্জ) নিয়ে গঠিত। এই সাতটি ব্লকে ৭৭টি গ্রাম পঞ্চায়েত ও ছয়টি সেন্সাস টাউন বর্তমান। মহকুমার সদর কৃষ্ণনগর

কালীগঞ্জ ব্লক

কালীগঞ্জ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা ১৫টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল: বড়চাঁদঘর, হাটগাছা, মীরা-১, পালিতবাগিয়া, দেবগ্রাম, জুরানপুর, মীরা-২, পানিঘাটা, ফরিদপুর, কালীগঞ্জ, পলাশী-১, রাজারামপুর ঘোড়াইক্ষেত্র, গোবরা, মাটিয়ারি ও পলাশী-২। এই ব্লকে কোনো শহরাঞ্চল নেই। ব্লকটি কালীগঞ্জ থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর দেবগ্রাম।

নাকাশিপাড়া ব্লক

নাকাশিপাড়া ব্লকের গ্রামীণ এলাকা ১৫টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল: বেথুয়াডহরি, দহরি-১, বিল্বগ্রাম, ধর্মদা, মুড়াগাছা, বেথুয়াডহরি-২, বীরপুর-১, দোগাছিয়া, নাকাশিপাড়া, বিক্রমপুর, বীরপুর-২, হরনগর, পাতিকাবাড়ি, বিলকুমারী, ধনঞ্জয়পুর ও মাঝেরগ্রাম।[১] এই ব্লকের শহরাঞ্চল জগদানন্দপুর ও ক্ষিদিরপুর সেন্সাস টাউন দুটি নিয়ে গঠিত। ব্লকটি নাকাশিপাড়া থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর বেথুয়াডহরী। 

চাপড়া ব্লক

চাপড়া ব্লকের গ্রামীণ এলাকা ১৩টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এর প্রধান কেন্দ্র চাপড়া। এগুলি হল: আলফা, চাপড়া-২, হৃদয়পুর, পিপড়াগাছি, বাগবেড়িয়া, হাতিশালা-১, কলিঙ্গ, বৃত্তিহুদা, হাতিশালা-২, মহতপুর, চাপড়া-১, হাটখোলা ও মহেশপুর। এই ব্লকে কোনো শহরাঞ্চল নেই। ব্লকটি চাপড়া থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর বাঙালঝি।

কৃষ্ণনগর ১ ব্লক

কৃষ্ণনগর-১ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল: আসাননগর, ভাতজঙলা, দিগনগর, জোয়ানিয়া, ভালুকা, ভীমপুর, দোগাছি, পোড়াগাছা, ভাণ্ডারখোলা, চকদিলনগর, দায়পাড়া ও রুইপুকুর। এই ব্লকের শহরাঞ্চল বারুইহুদা সেন্সাস টাউনটি নিয়ে গঠিত। ব্লকটি কৃষ্ণনগর থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর কৃষ্ণনগর রোড।

কৃষ্ণনগর-২ ব্লক

কৃষ্ণনগর-২ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা সাতটি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল: বেলপুকুর, ধুবুলিয়া-২, নোয়াপাড়া-২, সাধনপাড়া-২, ধুবুলিয়া-১, নোয়াপাড়া-১ ও সাধনপাড়া-১। এই ব্লকে কোনো শহরাঞ্চল নেই। ব্লকটি ধুবুলিয়া তদন্ত কেন্দ্র থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর ধুবুলিয়া।

নবদ্বীপ ব্লক

নবদ্বীপ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা আটটি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল: বাবলারি, মহীশূরা, মায়াপুর বামনপুকুর-২, চারমাজদিয়া, চারব্রহ্মানগর, মাজদিয়া পানশিলা, মায়াপুর বামনপুকুর-১, স্বরূপগঞ্জ ও ফকিরডাঙা ঘোলাপাড়া। এই ব্লকের শহরাঞ্চল বাবলারি দেওয়ানগঞ্জ, চার মাজদিয়া ও চার ব্রহ্মানগর সেন্সাস টাউন তিনটি নিয়ে গঠিত। ব্লকটি নবদ্বীপ থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর মহেশগঞ্জ।

কৃষ্ণগঞ্জ ব্লক

কৃষ্ণগঞ্জ ব্লকের গ্রামীণ এলাকা সাতটি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত। এগুলি হল: ভজনঘাট টুঙ্গি, জয়ঘাটা, মাটিয়ারি বানপুর, তালদহ মাজদিয়া, গোবিন্দপুরে, কৃষ্ণগঞ্জ ও শিবনিবাস। এই ব্লকে কোনো শহরাঞ্চল নেই। ব্লকটি কৃষ্ণগঞ্জ থানার অধীনস্থ। ব্লকের সদর কৃষ্ণগঞ্জ।

কল্যাণী মহকুমা

নদিয়া জেলার একটি প্রশাসনিক মহকুমা। মহকুমাটির মোট আয়তন ৫২৬.৫৭ বর্গ কিলোমিটার। ২০১১ সালের জনগণনা অনুযায়ী কল্যাণী মহকুমার মোট জনসংখ্যা হল ৮,৯১,৫৬৩ জন। মোট জনসংখ্যার ২৩.২৭ শতাংশ মানুষ গ্রামীণ এলাকাতে এবং ৭৬.৭৩ শতাংশ মানুষ শহরে বসবাস করেন।[১] এই মহকুমার সদর দপ্তর কল্যাণী শহরে অবস্থিত। কল্যাণী মহকুমা ৩ টি থানা নিয়ে গঠিত। মহকুমার পূর্ব সীমান্তে উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার বনগাঁ মহকুমা, দক্ষিণ সীমান্তে উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার বারাসত সদর মহকুমা ও ব্যারাকপুর মহকুমা, পশ্চিম সীমান্তে হুগলী জেলার চুঁচুড়া মহকুমা এবং উত্তর সীমান্তে নদীয়া জেলার রাণাঘাট মহকুমা অবস্থিত।

মহকুমায় ৩ টি সমষ্টি উন্নয়ন ব্লকে মোট ২৭ টি গ্রাম পঞ্চায়েত রয়েছে:

কল্যাণী ব্লক ৭ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের সমন্বয়ে গঠিত।

এগুলি হল- চান্দুরিয়া ২, সরাটি, মদনপুর ১, মদনপুর ২, শিমুরালি, সগুনা এবং কাঁচড়াপাড়া।

চাকদহ ব্লক ১০ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

এগুলি হল- চান্দুরিয়া ১, শিলিন্দা ১, শিলিন্দা ২, হিংনাড়া, দেউলি, দুবরা, ঘেটুগাছি, তাতলা ১, তাতলা ২ এবং রাউতাড়ি।

রিণঘাট ব্লক ১০ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

এগুলি হল- বেরোহি –১, হরিণঘাটা –১, কাষ্টডাঙ্গা -২, নগরউখরা –১, বেরোহি –২, হরিণঘাটা –২, মোল্লাবেলিয়ার, ফতেপুর, কাষ্টডাঙ্গা -২ এবং নগরউখরা -১।

 

 মালদা বিভাগ 

 মুর্শিদাবাদ :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – বহরমপুর। মহকুমা – ★বহরমপুর, ★ডোমকল, ★লালবাগ, ★কান্দি, ★জঙ্গিপুর। আয়তন – ৫,৩২৪ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৭,১০২,৪৩০।

মুর্শিদাবাদ  লোকসভা   

জঙ্গিপুর, বহরমপুর, মুর্শিদাবাদ

মুর্শিদাবাদ  বিধানসভা

ফরাক্কা, সামশেরগঞ্জ, সুতি, জঙ্গিপুর, রঘুনাথগঞ্জ, সাগরদীঘি, লালগোলা, ভগবানগোলা, রাণিনগর, মুর্শিদাবাদ, নবগ্রাম, খড়গ্রাম, বুরওয়ান, কান্দি, ভরতপুর, রেজিনগর, বেলডাঙ্গা, বহরমপুর, হরিহরপাড়া, নওদা, ডোমকল, জলঙ্গি

মুর্শিদাবাদ  ব্লক

বেলডাঙ্গা-৷, বেলডাঙ্গা-II, বহরমপুর, ভগবানগোলা-৷, ভগবানগোলা- II, ভরতপুর-৷, ভরতপুর-II, বুরওয়ান, ডোমকল, ফরাক্কা, হরিহরপাড়া, জলঙ্গি, কান্দি, খড়গ্রাম, লালগোলা, মুর্শিদাবাদ জিয়াগঞ্জ, নবগ্রাম, নওদা, রঘুনাথগঞ্জ-৷, রঘুনাথগঞ্জ- II, রাণিনগর-৷, রাণিনগর- II, সাগরদীঘি, সামশেরগঞ্জ, সুতি-৷, সুতি-II

মালদহ :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর –  ইংলিশ বাজার। মহকুমা – ★চাঁচল, ★মালদহ। আয়তন – ৩,৭৩৩ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৩,৯৯৭,৯৭০।

মালদা লোকসভা    

মালদা-উত্তর, মালদা-দক্ষিণ

মালদা বিধানসভা

হাবিবপুর, গাজোল, চাঁচোল, হরিশচন্দ্রপুর, মালতিপুর, রতুয়া, মানিকচক, মালদা, ইংরেজ বাজার, মোথাবাড়ি, শাজাপুর, বৈষ্ণবনগর 

মালদা ব্লক

বামনগোলা, চাঁচল-৷, চাঁচল- II, ইংরেজ বাজার, গাজোল, হাবিবপুর, হরিশচন্দ্রপুর-৷, হরিশচন্দ্রপুর- II, কালিয়াচক-৷, কালিয়াচক-II, কালিয়াচক-III, মালদা, মানিকচক, রতুয়া-৷, রতুয়া- II

মালদা সদর মহকুমা:

ইংলিশ বাজার: পৌরসভা

পুরাতন মালদা: পৌরসভা

ইংলিশ বাজার ব্লক - ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

গাজোল ব্লক - ১৫ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

হাবিবপুর ব্লক - ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েত এবং তিনটি আদমশুমারি শহর : কচু পুকুর, কেন্দুয়া এবং আইহো নিয়ে গঠিত।

কালিয়াচক-১ ব্লক - ১৪ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

কালিয়াচক-২ ব্লক - ৯ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

কালিয়াচক-৩ ব্লক - ১৪ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

মানিকচক ব্লক - ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

পুরাতন মালদা ব্লক - ৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

বামনগোলা ব্লক - ৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

চাঁচল মহকুমা:

চাঁচল-১ ব্লক - 8 টি গ্রাম পঞ্চায়েত এবং চাঁচল শহর (মালদার দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর) নিয়ে গঠিত।

চাঁচল-২ ব্লক - ৭ টি গ্রাম পঞ্চায়েত) নিয়ে গঠিত।

রতুয়া-১ ব্লক - ১০ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

রতুয়া-২ ব্লক - ৮ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

হরিশ্চন্দ্রপুর-১ ব্লক - ৭ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

হরিশ্চন্দ্রপুর-২ ব্লক - ৯ টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গঠিত।

উত্তর দিনাজপুর :

প্রতিষ্ঠা  হয়েছিল ১৯৯২ সালে। জেলা সদর – রায়গঞ্জ। মহকুমা – ★রায়গঞ্জ, ★ইসলামপুর। আয়তন – ৩,১৪০ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৩,০০০,৮৪৯।

উত্তর দিনাজপুর  লোকসভা   

দার্জিলিং, রায়গঞ্জ, বালুরঘাট 

উত্তর দিনাজপুর  বিধানসভা

চোপরা, ইসলামপুর, গোয়ালপোখর, চাকুলিয়া, করণদীঘি, হেমতাবাদ, কালিয়াগঞ্জ, রায়গঞ্জ, ইটাহার

উত্তর দিনাজপুর ব্লক

চোপরা, গোয়ালপোখর-৷, গোয়ালপোখর- II, হেমতাবাদ, ইসলামপুর, ইটাহার, কালিয়াগঞ্জ, করণদীঘি, রায়গঞ্জ

.

দক্ষিণ দিনাজপুর :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৯২ সালে। জেলা সদর – বালুরঘাট। মহকুমা – ★বালুরঘাট, ★গঙ্গারামপুর। আয়তন – ২,২১৯ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ১,৬৭০,৯৩১।

দক্ষিণ দিনাজপুর লোকসভা    

বালুরঘাট  

দক্ষিণ দিনাজপুর বিধানসভা

কুশমন্ডী, কুমারগঞ্জ, বালুরঘাট, তপন, গঙ্গারামপুর, হরিরামপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর  ব্লক 

বালুরঘাট, বংশীহারি, গঙ্গারামপুর, হরিরামপুর, হিলি, কুমারগঞ্জ, কুশমন্ডী, তপন

 

 জলপাইগুড়ি বিভাগ 

কোচবিহার :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৫০ সালে। জেলা সদর – কোচবিহার। মহকুমা – ★কোচবিহার, ★দিনহাটা, ★মাথাভাঙা, ★মেখলিগঞ্জ, ★তুফানগঞ্জ। আয়তন – ৩,৩৮৭ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ২,৮২২,৭৮০।

কোচবিহার  লোকসভা    

কোচবিহার (এস.সি), আলিপুরদুয়ার (এস.টি), জলপাইগুড়ি (এস.সি)

কোচবিহার  বিধানসভা

মেখলিগঞ্জ, মাথাভাঙ্গা, কোচবিহার উত্তর, কোচবিহার দক্ষিণ, সিতালকুচি, সীতাই, দিনহাটা, নাটাবাড়ি, তুফানগঞ্জ

কোচবিহার ব্লক 

কোচবিহার-৷, কোচবিহার-II, দিনহাটা-৷, দিনহাটা-II, হলদিবাড়ি, মাথাভাঙ্গা-৷, মাথাভাঙ্গা-II, মেখলিগঞ্জ, সীতাই, সিতালকুচি, তুফানগঞ্জ-৷, তুফানগঞ্জ-II

জলপাইগুড়ি :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – জলপাইগুড়ি। মহকুমা – ★জলপাইগুড়ি, ★মালবাজার, ★আলিপুরদুয়ার। আয়তন – ৬,২২৭ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ৩,৮৬৯,৬৭৫।

জলপাইগুড়ি  লোকসভা     

জলপাইগুড়ি (এস.সি)

জলপাইগুড়ি বিধানসভা

ধূপগুড়ি, ময়নাগুড়ি, জলপাইগুড়ি, রাজগঞ্জ, ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি, মাল, নাগরাকাটা

জলপাইগুড়ি ব্লক 

নাগরাকাটা, ধূপগুড়ি, মেখলিগঞ্জ, ময়নাগুড়ি, মাল, ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি, জলপাইগুড়ি, রাজগঞ্জ

আলিপুরদুয়ার :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ২০১৪ সালে। জেলা সদর – আলিপুরদুয়ার। আয়তন – ৩,৩৮৩ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ১৫,৪০,০০০।

আলিপুরদুয়ার  লোকসভা     

আলিপুরদুয়ার

আলিপুরদুয়ার বিধানসভা  

কুমারগ্রাম, কালচিনি, আলিপুরদুয়ার, ফালাকাটা, মাদারিহাট

আলিপুরদুয়ার ব্লক 

আলিপুরদুয়ার- I, আলিপুরদুয়ার-II, কালচিনি, ফালাকাটা, মাদারিহাট, কুমারগ্রাম

 দার্জিলিং :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। জেলা সদর – দার্জিলিং। মহকুমা – ★দার্জিলিং, ★কার্শিয়াং, ★শিলিগুড়ি। আয়তন – ৩,১৪৯ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ১,৮৪২,০৩৪।

 কালিম্পং :

প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ২০১৭ সালে। জেলা সদর – কালিম্পং। মহকুমা – কালিম্পং। আয়তন – ১,০৪৪ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা – ২৫১,৬৪২।

দার্জিলিং  লোকসভা     

দার্জিলিং 

দার্জিলিং বিধানসভা

কালিমপং, দার্জিলিং, কার্সিয়াং, মাটিগাড়া-নকশালবাড়ি, শিলিগুড়ি, ফাঁসিদেওয়া

দার্জিলিং ব্লক 

দার্জিলিং পালবাজার, গোরুবাথান, জোড়বাংলো সুখিয়াপোখরি, কালিমপং-৷, কালিমপং-II, খরিবাড়ি, কার্সিয়াং, মাটিগাড়া, মিরিক, নকশালবাড়ি, ফাঁসিদেওয়া, রাঙ্গলি রাঙ্গলিওট