কাশ্মীরে সন্ত্রাসের চোখ রাঙানি উড়িয়ে খুলছে প্রথম মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হল

কাশ্মীরে সন্ত্রাসের চোখ রাঙানি উড়িয়ে খুলছে প্রথম মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হল

শ্রীনগরে (Srinagar) খুলছে কাশ্মীরের (Kashmir) প্রথম মাল্টিপ্লেক্স (Multiplex) সিনেমা হল। প্রায় তিন দশক পর আবার হলে গিয়ে সিনেমা দেখার সুযোগ পাবেন শ্রীনগরের (Srinagar) মানুষ। সেপ্টেম্বরেই শুরু হয় যাবে সিনেমা দেখানো। জানিয়েছেন হল মালিকরা। জঙ্গি হামলার আশংকায় নয়ের দশকে এক এক করে ঝাঁপ বন্ধ করেছিল কাশ্মীরের সিনেমা হলগুলি।

শ্রীনগরের বহু তরুণ তরুণী রয়েছেন, যারা পর্যন্ত নিজের শহরে হলে গিয়ে সিনেমা দেখেননি। অনেকে ভুলেই গেছেন বড় পর্দায় সিনেমা দেখা আর পপকর্ন খাওয়ার সেই উত্তেজনা! এই মাল্টিপেক্স তাই কাশ্মীরের (Jammu And Kashmir) জনগণের কাছে নতুন অভিজ্ঞতা হবে বলেই আশা হল মালিককে। একটি নামী মাল্টিপ্লেক্স সংস্থার সঙ্গে হাত মিলিয়ে তিনটি স্ক্রিনের এই মল্টিপ্লেক্স তৈরি করেছে শ্রীনগরের ধর গোষ্ঠী।

নির্মাতারা বলছেন আধুনিক সব ব্যবস্থাই থাকবে এই মাল্টিপ্লেক্সে। তিনটি স্ক্রিন মিলিয়ে মোট ৫২০ জনের বসার ব্যবস্থা থাকছে। সেইসঙ্গে সেন্ট্রাল এসির মতোই থাকবে কেন্দ্রীয় ভাবে হল গরম রাখার ব্যবস্থা। শীতকালে শ্রীনগরের তাপমাত্রা মাইনাস ১০ ডিগ্রির কাছে নেমে যায়। সেই দিকে নজর রেখেই এই হল গরম রাখার ব্যবস্থা।

 শ্রীনগরের পুরনো বাসিন্দারা বলছেন, নয়ের দশকে তাঁরা যে হলে সিনেমা দেখতেন সেখানে এমন ব্যবস্থা ছিল না। যতক্ষণ সিনেমা চলছে দরজা বন্ধ রেখে হল গরম রাখা হত। হল মালিকরা জানাচ্ছেন চলতি মাসেই দুটি স্ক্রিনে সিনেমা দেখানোর কাজ শুরু করে দেবেন তাঁরা। তৃতীয় স্ক্রিনের কাজও জোর কদমে চলছে। অফলাইনের পাশাপাশি অনলাইনে টিকিট কেটে বলিউড-হলিউডের লেটেস্ট রিলিজ হওয়া সিনেমা দেখতে পারবেন কাশ্মীরের তরুণ প্রজন্ম। ভারতের যে কোনও প্রান্তের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শ্রীনগরের মাল্টিপ্লেক্সে থাকছে ফুডকোর্টও।

হলের সাজ থেকে খাবার সর্বত্রই কাশ্মীরি ছোঁয়া রাখা হব বলে জানিয়েছে মাল্টিপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ। হলের অন্দরসজ্জায় কাশ্মীরের পেপার ম্যাশ শিল্পের ছোঁয়া রাখা হচ্ছে। একটা সময় ছিল যখন বলিউডের সিনেমার আউটডোর শুটিং মানেই ছিল ভূসর্গ কাশ্মীর। অথচ গত কয়েক দশকে সন্ত্রাসবাদীদের ভয়ে বদলে গিয়েছে পুরো ছবিটাই।

গত কয়েক দশকে হাতে গোনা কিছু স্পেশাল স্ক্রিনিং এবং চলচ্চিত্র উৎসবেই বড় পর্দায় সিনেমা দেখেছেন কাশ্মীরে আম জনতা।  এমনই একটি চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্যোক্তা মুখতার আলি আহমেদ খান মাল্টিপ্লেক্স তৈরির এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। একইসঙ্গে উঠছে নিরাপত্তা জোরদার করার দাবি। সিনেমা হলের নিরাপত্তার বিষয়টি যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে দেখআ হবে বলে জানিয়েছে শ্রীনগর পুলিশ।