আলু সস্তা করতে নবান্নে বড় ঘোষণা

আলু সস্তা করতে নবান্নে বড় ঘোষণা

আজবাংলা   বর্তমানে এই করোনা কালে সবকিছুতেই লেগেছে মন্দার ছোঁয়া। এরপর যুক্ত হয়েছে লকডাউন। সম্প্রতিকালে লক্ষ্য করে দেখা গেছে, সব্জির বাজারে আনাজপাতির সাথে সাথে আলুর দাম হয়েছে আকাশছোঁয়া। আর এদিকেই টনক নড়েছে নবান্নের। তাই এমন কঠিন পরিস্থিতিতে কলকাতা এবং পার্শ্ববর্তী এলাকায় যাতে আলুর দামটা ঠিক থাকে তাই শুক্রবার নবান্নে আলুর দরদাম নিয়ে এক জরুরি বৈঠক হয়। এদিনের বৈঠকে উপস্তিত ছিলেন কৃষি দপ্তরের অতিরিক্ত মুখ্য সচিব সুল গুনীপ্তা, মুখ্যমন্ত্রী কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার, টাস্ক ফোর্সের সদস্য কমল দে এছাড়া আলুর ব্যবসায়ী ও হিমঘরের মালিক সংগঠনের সদস্যরা। সেখানেই আলুর দাম ও সরবরাহ নিয়ে বিস্তারিত ভাবে কথা হয়।

সেদিনের বৈঠকে শেষ পর্যন্ত ঠিক হয়েছে, পাইকারি সব ব্যবসায়ীরা ২৩ টাকা দরে আলু পৌঁছে দেবে কলকাতা ও আশেপাশের অঞ্চলে। তা বিক্রি করা হবে ২৫ টাকা দরে। আলু ব্যবসায়ীদের এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। যদি সরকারের এই সিদ্ধান্ত না মানেন তারা, তাহলে এর জন্য সরকার সবরকমের ব্যবস্থা নেবে। এখনও ৩০ টাকা কিলো দরেই মিলছে। এর সঙ্গে মাথা ছাড়িয়ে দর বেড়েছে নিত্য প্রতিদিন দৈনন্দিন সবজিরও। কলকাতা বা তার আশপাশে জায়গায় দাম কমার এখনও লক্ষণ নেই। আগে রাজ্যের সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, সুফল বাংলা স্টলে ২৫ টাকা দরে আলু বিক্রি করা হবে। আর সেইমতো বিক্রিও হয়েছে, হচ্ছে। এবার রাজ্য সরকার চাইছে বৃহত্তর কলকাতার বাজারগুলিতেও যেন ২৫ টাকা দরে আলু বিক্রি হয়।

এ রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে আলু ব্যবসায়ীদের বলা হয়, প্রতি কিলো জ্যোতি আলুর দাম ২৫ টাকার মধ্যে আনতেই হবে। খুচরো বাজার অনুযায়ী আলুর মূল দাম ধরতে হবে কিলো প্রতি ২৩ টাকা। আর বাকি দু’টাকা জ্বালানি খরচ বাবদ নেওয়া যাবে। সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে মুর্শিদাবাদ, বর্ধমান সহ বেশ কয়েকটি জেলায় আলুর দাম বেশ কমেছে। নবান্ন থেকে সূত্র মারফত খবর, এমন প্রস্তাবে মত দিয়েছেন আলুর ব্যবসায়ীরা। এরফলে আগামী সপ্তাহের বুধবারের মধ্যে এই দামে আলু পাওয়া যাবে বাজারে।