রান্নার গ্যাসের ৬৩৩ টাকায় নতুন সিলিন্ডারে মিলছে অনেক সুবিধা

রান্নার গ্যাসের ৬৩৩ টাকায় নতুন সিলিন্ডারে মিলছে অনেক  সুবিধা

  এ বার ঘরে আনতে পারেন কম্পোজিট সিলিন্ডার। সেই সিলিন্ডারে অনেক সুবিধা থাকলেও একটা কথা মাথায় রাখতে হবে যে, এতে কেন্দ্রীয় সরকারের ভর্তুকি পাওয়া যাবে না। রান্নার গ্যাসের বেড়ে চলা দাম নিয়ে অনেকেই বিরক্ত। চলতি মাসে কলকাতা-সহ পশ্চিমবঙ্গে সিলিন্ডার প্রতি দাম পড়ছে ৯২৬ টাকা। এককালীন এই টাকা দিয়ে সিলিন্ডার নেওয়ার পরে যাঁরা কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে ভর্তুকি পান তাঁদের অ্যাকাউন্টে ঢোকে ১৯ টাকা ৫৭ পয়সা।

এই ভর্তুকিটুকু না নিতে চাইলে অনেক কম টাকাতেই বাড়িতে আনা যাবে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার। এখন সাধারণ ভাবে যে এলপিজি সিলিন্ডার ব্যবহার করা হয় তাতে গ্যাসের পরিমাণ থাকে ১৪.২ কেজি। এর পরে লোহার তৈরি সিলিন্ডারের ওজন রয়েছে। কিন্তু সেটা নেই কম্পোজিট সিলিন্ডারে। মূল সিলিন্ডারটি তুলনায় অনেক হালকা এবং একই সঙ্গে তাতে গ্যাসের পরিমাণও থাকবে ৫ বা ১০ কেজি। নতুন এই কম্পোজিট সিলিন্ডারে রয়েছে অনেক সুবিধা। প্রথমত এটি হালকা হওয়ায় সহজে এ দিক, ও দিক করা যায়। যেটা খুবই সুবিধার।

সেই সঙ্গে এই সিলিন্ডার যে ভাবে বানানো হয়েছে তাতে বাইরে থেকেই দেখা যায় কতটা গ্যাস রয়েছে। বাড়িতে জোড়া সিলিন্ডার না রেখে প্রয়োজন মতো আনা যায়। তবে চাইলে কেউ জোড়া সিলিন্ডারের সুবিধা নিতেই পারেন। এই সিলিন্ডারে মরচে ধরার ভয় নেই। ফলে বাড়ির মেঝেতে সিলিন্ডার রাখার জন্য সাধারণ ভাবে যে দাগ পড়ে তা এড়ানো যায়। সাধারণ এলপিজি সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে যেমন প্রতি মাসের গোড়ায় দাম বদলায় এ ক্ষেত্রেও তাই। নভেম্বর মাসে ১০ কেজি সিলিন্ডারের রিফিলিং খরচ ৬৩৩ টাকা ৫০ পয়সা।

আর ৫ কেজির ক্ষেত্রে ৩৩০ টাকা। কোনও গ্রাহক প্রয়োজন অনুযায়ী এবং সামর্থ্য অনুযায়ী সিলিন্ডার নিতে পারেন। যাঁর যেমন দরকার তেমন নেওয়া যাবে। যেটা সাধারণ সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে সম্ভবই নয়। এখন ১৪.২ কেজি গ্যাসের সিলিন্ডারই শুধু পাওয়া যায়।  ইন্ডিয়ান অয়েলের ইন্ডেন গ্যাস যাঁদের রয়েছে তাঁরা পুরনো সিলিন্ডার ফেরত দিয়ে ঘরে নিয়ে আসতে পারেন নতুন এই সিলিন্ডার। যাঁরা নতুন গ্যাস নেবেন তাঁদের ১০ কেজির সিলিন্ডার নিতে এককালীন ৩,৩৫০ টাকা জমা দিতে হবে। আর ৫ কেজির ক্ষেত্রে টাকার অঙ্ক ২,১৫০ টাকা।

তবে পুরনো গ্রাহকরা নতুন সিলিন্ডার নিতে চাইলে আগে সিকিউরিটি বাবদ জমা রাখা ২ হাজার টাকা ফেরৎ পাওয়া যাবে। সে ক্ষেত্রে অতিরিক্ত টাকাটুকু ডিস্ট্রিবিউটারকে দিলেই হবে। কোন কোন এলাকায় এই সিলিন্ডার পাওয়া যাচ্ছে তা জানাও কঠিন নয়। ইন্ডেনের ওয়েবাসাইটে (https://iocl.com/composite-cylinder) গিয়ে কোনও গ্রাহক তাঁর বাড়ির পিনকোড নম্বর দিলেই দেখা যাচ্ছে কাছাকাছি কোথায় কোথায় নতুন দিনের এই সিলিন্ডার পাওয়া যাবে। তবে একটা কথা মাথায় রাখা দরকার যে, বাকি সব নিয়ম এক হলেও নতুন এই কম্পোজিট সিলিন্ডার নিলে সরকারি ভর্তুকি পাওয়া যাবে না। প্রসঙ্গত বছরে ১২টি সিলিন্ডারের জন্য ভর্তুকি দিয়ে থাকে কেন্দ্রীয় সরকার।