মাঝ-আকাশে বিমান বিভ্রাট, তড়িঘড়ি নামল কলকাতায়

মাঝ-আকাশে বিমান বিভ্রাট, তড়িঘড়ি নামল কলকাতায়

যত- কাণ্ড স্পাইস জেটে SpiceJet । আবার যাত্রী নিয়ে সমস্যার মুখে পড়ল স্পাইস জেটের একটি বিমান। এ রাজ্য থেকে কর্ণাটকের দিকে যাওয়ার পথেই এই ঘটনা ঘটে। কোনও বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটেনি ঠিকই, তবে বিমান জরুরি ভিত্তিতে অবতরণ করাতে হয় Kolkata কলকাতা বিমানবন্দরে। বুধবার সকালে উত্তরবঙ্গের বাগডোগরা বিমানবন্দর থেকে বেঙ্গালুরুর দিকে রওনা হয় বিমানটি।

কিন্তু গন্তব্যে পৌঁছনোর আগেই দেখা যায়, প্রয়োজনের তুলনায় কম জ্বালানি রয়েছে বিমানে। তাই সঠিক সময়ে অবতরণ না করলে বড় বিপদ ঘটতে পারত বলেই মনে করা হচ্ছে। বাগডোগরা বিমানবন্দর সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার সকাল ৯ টায় বিমানটি বাগডোগরা থেকে বেঙ্গালুরুর উদ্দেশে রওনা হওয়ার কথা ছিল। কিছুক্ষণের মধ্যে নজরে আসে বিমানের যান্ত্রিক গোলযোগ।

বিপদ এড়াতে বিমান পরে ওড়ানো হয়। ঠিক দুপুর ১ টা ২৪ মিনিটে বাগডোগরা বিমানবন্দর থেকে রওনা হয় বিমানটি। বিমানবন্দর সূত্রে জানা গিয়েছে, এরপর কলকাতার আকাশে থাকাকালীন পাইলট বুঝতে পারেন বিমানে জ্বালানি কম রয়েছে। দ্রুততার সঙ্গে কলকাতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তিনি।

কলকাতা বিমানবন্দরে অবতরণের অনুমতি চান তিনি। পরে জ্বালানি ভরে বিমানটি বেঙ্গালুরুর দিকে উড়ে যায়। দুপুর ২ টো ২৬ মিনিটে কলকাতা থেকে ওড়ে বিমানটি। বিমানে ছিলেন ১৮৯ জন যাত্রী ও ৬ জন কেবিন ক্রু। কিছুদিন আগে এয়ার টারব্যুলেন্সের অভিজ্ঞতা হয় স্পাইস জেটের একটি বিমানের যাত্রীদের। মুম্বই থেকে আসানসোলে আসছিল সেই বিমান।

কাজী নজরুল ইসলাম বিমানবন্দরে বিমানটি অবতরণ করার কথা ছিল। কিন্তু বিমানবন্দর থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে অর্থাৎ অবতরণের কুড়ি মিনিট আগেই ঝড়ের মুখে পড়ে সেই বিমান। সিট বেল্ট ছিঁড়ে যায়। প্রচণ্ড ঝাঁকুনি দিতে শুরু করে বিমানে। সকলেই কম বেশী জখম হন। বিমানের ভিতর থেকে বাইরে দেখা যায় বিদ্যুতের ঝলকানি। যাত্রীরা জানিয়েছিলেন, বৃষ্টিও উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন তাঁরা। আর এবার আরও এক স্পাইস জেটের বিমানে বিভ্রাট।