শীতের প্রত্যাবর্তন! জেনে নিন আবহাওয়ার খবর

শীতের প্রত্যাবর্তন! জেনে নিন আবহাওয়ার খবর

ফের শীতের কামব্যাক! ১৭ ডিগ্রি থেকে তাপমাত্রা নামল সোজা ১৪ ডিগ্রিতে। এক ধাক্কায় তিন ডিগ্রি পারদ পতনে ফের শীতের আমেজ ফিরল শহরে। শেষবেলায় ফের ঝোড়ো ইনিং খেলবে শীত? কতদিন থাকবে শীতের আমেজ? প্রশ্নের উত্তরে আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রাজ্যে শীতের আমেজ বজায় থাকবে।

পূর্বাভাস মতো শনিবারই কমল তাপমাত্রা। তবে আগামী ১৬ তারিখ থেকে ফের তাপমাত্রা ঊর্ধ্বমুখী হবে বঙ্গে। ফলে ভ্যালেন্টাইন মরশুমে শীতসুখ উপভোগ করতে পারবে রাজ্যবাসী।  শনিবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি কম। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ২৪.৭ ডিগ্রি। যা স্বাভাবিকের থেকে চার ডিগ্রি কম। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ৯৪ শতাংশ। শহরের আকাশ মূলত কুয়াশাছন্ন থাকবে। তবে বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়বে দৃশ্যমানতা।

আগামী পাঁচদিন কলকাতায় শুষ্ক আবহাওয়াই থাকবে। বৃষ্টিপাতের কোনও সম্ভাবনা নেই। কমবে তাপমাত্রাও। শনিবার দক্ষিণবঙ্গে মূলত শুষ্ক আবহাওয়াই থাকবে। রাতের তাপমাত্রা আগামী তিনদিন নিম্নমুখীই থাকবে। আগামী পাঁচদিন বৃষ্টিপাতের কোনও সম্ভাবনা নেই। এদিকে উত্তরবঙ্গে এদিন বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। শনিবার মূলত বৃষ্টি হবে দার্জিলিং ও কালিম্পঙে।

জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহারে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হবে। রবিবার থেকে যদিও আবহাওয়ার উন্নতিি হবে। আগামী তিনদিন রাতের তাপমাত্রা কমবে।  কখনও অসময়ে বৃষ্টি, কখনও ঘন কুয়াশা! চলতি মরশুমে এমনই খামখেয়ালিপনা দেখা গিয়েছে বারবার। আবহাওয়ার মতি বদলেছে 'মিনিটে মিনিটে'! শুক্রবারই দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলির আকাশ ছিল মেঘলা।

কোথাও কোথাও বৃষ্টিপাতও হয়েছে। চলতি মরশুমে শীত ঝোড়ো ইনিংস খেললেও কখনও পশ্চিমী ঝঞ্ঝা আবার কখনও নিম্নচাপ শীতের পথ আটকেছে। শনিবার ফের এক ধাক্কায় পারদ পতন রাজ্যে। চলতি মরশুমে শীতের দিন প্রায় ফুরিয়েই এসেছে এমনটাই বার্তা দিয়েছিল আলিপুর। কিন্তু, 'লাস্ট মিনিট ইনিংস'-এ শীতপ্রেমীদের অভিযোগ মেটাতে চলেছে ঠান্ডা। তবে এই পারদ পতন বেশিদিন স্থায়ী হবে না।

৭২ ঘণ্টা পর ফের তাপমাত্রা বাড়তে পারে বলে জানা যাচ্ছে। অন্যদিকে, আপাতত রাজ্যের উপর কোনও ঘূর্ণাবর্ত অবস্থান করছে না। ফলে দক্ষিণবঙ্গে আগামী পাঁচদিন বৃষ্টিপাতের কোনও সম্ভাবনা নেই রাজ্যে। তবে সমস্ত জেলাগুলিতেই সকালের দিকে ঘন কুয়াশা দেখা যাবে। বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়বে দৃশ্যমানতা।