বিরাটের ফিটনেসের রহস্য লুকিয়ে আছে কালো জলেই , দাম জানলে চমকে উঠবেন আপনিও

বিরাটের ফিটনেসের রহস্য  লুকিয়ে আছে  কালো জলেই , দাম জানলে চমকে উঠবেন আপনিও

বিরাট কোহলি মানেই মাঠ ও মাঠের বাইরে একচ্ছত্র শাসন। ব্যাট হাতে রেকর্ড। আবার বাইশ গজের বাইরেও তিনি ব্র্যান্ড বিরাটে বলীয়ান! ভারতীয় ক্রিকেটে শেষ কথা বর্তমানে তিনি-ই। তাঁর উপস্থিতিতে গ্যালারিতে ওঠে মেক্সিক্যান ওয়েভ। অধিনায়ক হওয়ার পরে কোহলি আপাতত প্রতি টুর্নামেন্টেই নতুন নতুন চ্যালেঞ্জে অবতীর্ণ। ফোর্বসের একশো জন সর্বোচ্চ উপার্জনকারী অ্যাথলিটদের তালিকাতেও কোহলি।

ব্র্যান্ড কোহলির এই সাফল্যের রহস্য কী? বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে কোহলির দৈনিক জীবন যাপনের কথা। কোহলি খাওয়া-ঘুমানো থেকে শুরু করে অনুশীলন পর্যন্ত সব কিছুই ঘড়ির কাঁটা ধরে নিয়ম মেনে করেন। যে কোনও মানুষের সাফল্যের অন্যতম কারণ, জীবনধারণের সুশৃঙ্খল নীতি। কোহলিও এর ব্যতিক্রম নন। জানা যায়, খাবার-দাবার ও স্পেশ্যাল পানীয়ের উপরে বিশেষ জোর দেন তিনি।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী, দামি প্রোটিনযুক্ত খাবার খান বিরাট। যা বিশ্বের অন্যতম সেরা। পাশাপাশি, নিজেকে ফিট রাখতে সেদ্ধ খাবার খান অধিকাংশ সময়ে। পছন্দের মটন রোল ও বাটার চিকেন খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন ক্রিকেটের জন্যেই। কার্যত ফিটনেসকে অন্য পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছেন কোহলি। কিন্তু সবথেতে চমকপ্রদ তথ্য তাঁর পানীয়ের মধ্যে।

নামীদামি ব্র্যান্ডের হেল্থ ড্রিংক, ফ্রুট জুস তো পান করেন-ই, সেই সঙ্গে যখন বিদেশে যান, তখন একটি বিশেষ ব্র্যান্ডের মিনারেল ওয়াটার ছাড়া অন্য কিছু মুখে তোলেন না কোহলি। এই ব্র্যান্ডের নাম এভিয়ন। প্রচারমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, এই জল ফ্রান্সে তৈরি হয়, যার লিটার প্রতি দাম প্রায় ৬০০ টাকা। তবে গত বছর লকডাউনের সময় থেকেই কালো জলে ভরসা রেখেছেন কোহলি।

সম্প্রতি মুম্বই বিমানবন্দরে অভিনেত্রী উর্বশী রৌতেলা ক্যামেরা বন্দি হলেন চিত্রগ্রাহকদের লেন্সে। ফিরছিলেন দিল্লি থেকে। অভিনেত্রীর হাতে জলের বোতল। কালো জলের বোতল। এমন ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই হইচই। জানা গিয়েছে, অভিনেত্রী উর্বশী রৌতেলা যে পানীয় পান করেন তা আসলে 'ব্ল্যাক ওয়াটার'। সহজ বাংলায় কালো জয়। জল সাধারণত বর্ণহীন হয়।

তবে এই ব্ল্যাক ওয়াটারের মাহাত্ম্য অন্য জায়গায়। এক লিটার জলের দাম ৩০০০-৪০০০ টাকা। বিশেষ এই ধরণের জল পান করেন বিরাট কোহলি সহ আরো একাধিক সেলিব্রিটি। কী রয়েছে এই জলে? জানা গিয়েছে, সাধারণ কালো ক্ষারক জল। যা ডিহাইড্রেশনের হাত থেকে শরীরকে রক্ষা করে। পিএইচ-এর মাত্রা অনেকটাই বেশি থাকে বিশেষ এই জলে। সর্বভারতীয় একাধিক প্রচারমাধ্যমে লেখা হয়েছিল, লকডাউনের সময় গত বছর ব্ল্যাক ওয়াটার পান করেই কাটিয়েছিলেন ক্রিকেটের সুপারস্টার। যাতে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং ফিট থাকেন।