জঙ্গি কার্যকলাপে বন্ধের ৩১ বছর পর খুলল শ্রীনগরে মন্দির

জঙ্গি কার্যকলাপে বন্ধের ৩১ বছর পর  খুলল  শ্রীনগরে মন্দির

জঙ্গি কার্যকলাপ বৃদ্ধি, হিন্দু সংখ্যা কমে গিয়েছিল। ৩১ বছর আগে বন্ধ হয়ে যায় মন্দির। সম্প্রীতির অনন্য নজির সৃষ্টি করে ৩১ বছর পর জম্মুতে খুলল সেই মন্দির। বসন্ত পঞ্চমীতে এই মন্দির পুনরায় খোলার উদ্যোগ নেন তাঁরা। শ্রীনগরের হাব্বা কাদালের এই মন্দিরের নাম শীতল নাথ মন্দির। স্থানীয়রা বিশেষ পুজোর আয়োজন করেন মন্দিরে।

সন্তোষ রাজাদান নামে এক ব্যক্তি জানান, গত ৩১ বছর ধরে এই মন্দির বন্ধ। বহু বছর ধরে আমরা এই মন্দির খুলতে চেয়েছি। কিন্তু কোনও না কোনও কারণে তা হয়নি। এবার এই মন্দির খুলতে উদ্যোগী হন সবাই। এই কাজে সামিল হয়েছেন স্থানীয় মুসলিমরা পরিবার। ওই ব্যক্তির কথায়, মন্দির পরিষ্কার থেকে পুজোর আয়োজন সব কাজেই হাত লাগিয়েছেন তাঁরা।

জানা গিয়েছে, ৩১ বছর আগে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে হিন্দুর সংখ্যা কমতে থাকায় এবং সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ বাড়তে থাকায় বন্ধ হয়ে যায় ওই মন্দির। কিন্তু মন্দির বন্ধ হলেও বন্ধ হয়নি পুজো। প্রতি বছর বসন্ত পঞ্চমীতে বাবা শীতল নাথ ভাইরাওয়ের জন্ম বার্ষিকী পালন করা হয়ে থাকে। বহু বছর ধরে স্থানীয় মুসলিম পরিবার এই কাজে সামিল হয়ে বলে জানিয়েছেন রাজদান।

তাঁর কথায়, এই বছর আমরা একসঙ্গে মন্দির খোলার কাজেও সামিল হয়েছি। বসন্ত পঞ্চমীতে ৩১ বছর পর মন্দির খুলল। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ৫ অগাস্ট বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়া হয়। জম্মু এবং কাশ্মীরকে দুটি আলাদা কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে ভাগ করা হয়। আর এরপরই পাল্টে যায় জম্মু কাশ্মীরের ছবি। আশান্তির আশঙ্কায় বন্ধ করে দেওয়া হয় ইন্টারনেট সংযোগ।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি রাজ্যসভায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী জি কিষাণ রেড্ডি বলেন, ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে পাথর ছোড়ার ঘটনা অনেক কমেছে উপত্যকায়। তিনি জানিয়েছেন, ২০১৯ সালে ৫৯৪টি সন্ত্রাসববাদী কার্যকলাপ হয়েছে। ২০২০ সালে তা কমে হয়েছে ২৪৪। ২ হাজারের বেশি পাথর ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে ২০১৯ সালে। সেই সংখ্যা ২০২০ সালে কমে হয়েছে ৩২৭।