সম্পর্কে প্রতারণার শিকার হাওড়ার যুবক ‘প্রেমিকা’র সামনেই আত্মঘাতী

সম্পর্কে  প্রতারণার শিকার হাওড়ার যুবক ‘প্রেমিকা’র সামনেই আত্মঘাতী

শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার পর প্রেমিকের থেকে মোটা টাকা দাবি। প্রতারণার শিকার হয়েছেন বুঝতে পেরেই প্রেমিকার সামনে ছাদ থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করলেন যুবক। হাওড়ার মালিপাচঘড়া থানা এলাকার সালকিয়ায় ঘটনাটি ঘটেছে। আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই ‘প্রেমিকা’-কে। পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃত মহিলার নাম দৌলতাদেবী গুপ্তা।

বয়স ৪৪। সালকিয়ার রসিককৃষ্ণ ব্যানার্জি লেনের বাসিন্দা তিনি। বাড়ি বাড়ি রাঁধুনির কাজ করেন তিনি। সেই সূত্রেই সপ্তাহ দুয়েক আগে উত্তর ২৪ পরগনার জগদ্দলের যুবক আকাশ দাস (২৪) নামে ওই যুবকের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। সালকিয়ার একটি বাড়িতে রং করার কাজ করতেন তিনি। ধীরে ধীরে তাঁদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত শুক্রবার দৌলতাদেবী সালকিয়ার বাজল পাড়ার একটি পাঁচতলা বাড়ির ছাদে নিয়ে যান আকাশকে।

সেখানেই ঘনিষ্ঠ হন দু’জন। তার পরেই আকাশের থেকে মোটা টাকা দাবি করতে থাকেন দৌলতাদেবী। হুমকি দেন, টাকা না দিলে পরিবারের কাছে সব ফাঁস করে দেবেন তিনি। আকাশ বুঝতে পারেন, প্রতারণার শিকার হয়েছেন তিনি। আর কোনও উপায় না দেখে ওই বহুতলের ছাদ থেকে ঝাঁপ দেন আকাশ।

এর পরেই বিকট আওয়াজ পেয়ে বাইরে বেরিয়ে আসেন স্থানীয়েরা। ওই পাঁচ তলা বাড়ির পাশেই একটি দোতলা বাড়ির ছাদ থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় আকাশের দেহ। প্রতিবেশীরাই মালিপাচঘড়া থানায় খবর দেন। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ। সঙ্গে সঙ্গেই আকাশের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়।

 ঘটনার তদন্তে নেমে সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে দৌলতাদেবীর সম্পর্কে জানতে পারেন তদন্তকারীরা। এর পর ওই মহিলার খোঁজে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি শুরু করে পুলিশ। সিসি ফুটেজের সাহায্য নিয়েই শনিবার অভিযুক্ত মহিলাকে গ্রেফতার করেন তদন্তকারীরা। এর পর পুলিশের দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদে ভেঙে পড়েন দৌলতাদেবী। পুলিশ জানিয়েছে, অপরাধ স্বীকার করেছেন অভিযুক্ত। তাঁর বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার মামলা দায়ের করা হয়েছে। রবিবার ধৃতকে হাওড়া আদালতে তোলা হলে এক দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক।