আমাদের দেশের এই জায়গা গুলি রাতের অন্ধকারেই বেশি  জ্বল জ্বল করে 

আমাদের দেশের এই জায়গা গুলি রাতের অন্ধকারেই বেশি  জ্বল জ্বল করে 

ঐতিহ্য, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও আধুনিকতার এই দেশ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ বেড়াতে আসেন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে ৷ বিস্তৃত সবুজে ঢাকা ব্যাকওয়াটার, সুন্দর বীচ এবং এবং আশ্চর্য স্থাপত্যকলা এই দেশকে  পর্যটন-শিল্পে নেতৃত্বের শিরোপা দিয়েছে। জানেন কি  আমাদের দেশে এমন কিছু জায়গা আছে যেগুলি রাতের অন্ধকারেও  জ্বল জ্বল করে। আসুন সেরকম কয়েকটি জায়গার নাম জেনে নেওয়া যাক ……  


  
জুহু বিচ : বলিউডের কল্যাণে  মহারাষ্ট্রের জুহু বিচের নাম শোনেননি এমন মানুষ খুব কমই আছে। সকাল, সন্ধে, রাত, দুপুর এখানে সদাই হইচই। রাতের বেলাও বিচে আলো নেভে না। জুহু বিচে আছড়ে পড়া আরব সাগর আলোকিত থাকে প্রাকৃতিক আলো দিয়ে। মোটামুটি রাত ৮টার পর জলে বিন্দু বিন্দু নীল আলো ভেসে বেড়াতে থাকে। এই নীল বিন্দুগুলি হল এক ধরনের জলজ উদ্ভিদ জীবাণু। পোশাকী নাম সামুদ্রিক অভ্র বা নকটিলিউকা সিনটিল্যান্স। সূর্যাস্তের পর এই বিচের শোভা না দেখতে পেলে পর্যটকদের এই বিচে বেড়াতে আসটাই বৃথা হয়ে যায়। 


পশ্চিম জয়ন্তিয়া পাহাড় : মেঘালয়ের পশ্চিম জয়ন্তিয়া পাহাড়ের জঙ্গল রাতের অন্ধকারেই বেশি সুন্দর হয়ে ওঠে।এই জঙ্গলে প্রবেশ করলে  দেখতে পাবেন প্রকৃতির এক অনবদ্য জাদুর খেলা। চারদিকে আলো আলো আর আলো।এগুলি কোন জোনাকির আলো নয়, সেগুলি হল ইলেক্ট্রিক মাশরুমের আলো।এটি রোরিডোমাইসিস প্রজাতির মাশরুম।  প্রকৃতির নিয়মেই অন্ধকারে এই মাশরুম জ্বলে ওঠে। স্থানীয়রা অন্ধকারে হাঁটার সময় মাশরুমের এই আলো ব্যবহার করে থাকেন। রাতের অন্ধকারে জ্বলে ওঠা এই জয়ন্তিয়া পাহাড় দেখতে ভিড় জমান বহু পর্যটক।


পুরুষওয়াড়ি অরণ্য : মহারাষ্ট্রের আদিবাসী এক গ্রাম হল পুরুষওয়াড়ি। গ্রীষ্মকালে রাতের বেলা এখানে ঝাঁক ঝাঁক জোনাকি জ্বলে ওঠে। মূলত মে এবং জুন মাস জোনাকিদের প্রজনন সময়। জোনাকিদের প্রজননের সময় এই গ্রাম আরও সুন্দর হয়ে ওঠে। সেই সময় গাছে গাছে থোকা থোকা জোনাকি জ্বলে। প্রত্যেক বছর এই গ্রামে জোনাকি উৎসব পালিত হয়। দেশ বিদেশ থেকে হাজার হাজার পর্যটক এই আলো দেখতে সেই সময় ভিড় জমান এই গ্রামে। 

মাট্টু বিচ : কর্ণাটকের মাট্টু বিচ সূর্যাস্তের রূপ আরও অপরূপ হয়ে ওঠে। আর রাতের বেলা সমুদ্রে তখন থরে থরে ভেসে বেড়ায় নীল আলো। কর্ণাটকের এই সমুদ্রটিও আরব সাগর। তাই এখানেও নকটিলিউকা সিনটিল্যান্স নামের জলজ জীবাণু দেখা যায়। আর রাতের বেলা এগুলিই জ্বলে ওঠে। দেশ বিদেশ থেকে হাজার হাজার পর্যটক আসে এই বিচের অপরুপ শোভা দেখতে।