আপনার আয়ু বহু বছর বাড়িয়ে দিতে পারে এই ব্যায়াম

আপনার আয়ু বহু বছর বাড়িয়ে দিতে পারে এই ব্যায়াম

আয়ু বাড়ায় যা, করি সব তা? সুন্দর এই পৃথিবীতে সুস্থ-সবলভাবে বেশি দিন বেঁচে থাকতে কে না চান? সবাই জানেন সুস্থ জীবনযাপন বিশেষ করে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, দৈনিক শারীরিক ব্যায়াম ও মনোচাপ থেকে মুক্তিতে আয়ু বাড়ে। এর বাইরে আরও কিছু স্বাস্থ্যকর অভ্যাস আছে যার মাধ্যমে খুব সহজে স্বাস্থ্য ভালো রাখা যায়। সুস্থ থাকতে ও দীর্ঘায়ু পেতে এসব নিয়ম সহজে আপনার অভ্যাসের সঙ্গে মানিয়ে যেতে পারে। আমাদের দেশে মানুষের গড় আয়ু এখন ৬৯ বছর।

কিন্তু একটু নিয়ম মেনে চললে ৮০-৯০ বা ১০০ বছরের কাছাকাছি বাঁচা সম্ভব। মানুষের স্বাভাবিক আয়ু ১৫০ বছর হওয়া উচিত বলে বিজ্ঞানীরা মনে করেন। কারণ, জন্মের পর থেকে প্রায় ২৫ বছর পর্যন্ত মানুষের শারীরিক বৃদ্ধি ঘটে এবং এর প্রায় ছয়গুণ সময়কাল তার স্বাভাবিক আয়ু বলে ধরে নেওয়া যায়। সম্প্রতি ‘জেএএমএ ইন্টারনাল মেডিসিন’ নামক জার্নালে একটি শরীরচর্চা সম্পর্কে গবেষণাপত্র ছাপা হয়েছে। বলা হয়েছে, এটি আয়ুর বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এই ব্যায়ামটি আর কিছুই নয়— সাইকেল চালানো। কিন্তু সাইকেল চালালে কেন আযু বাড়ে? গবেষণাপত্রটি বলা হয়েছে, যাঁরা নিয়মিত সাইকেল চালান, তাঁদের ডায়াবিটিস বা হৃদ্‌রোগের মতো সমস্যাগুলি কম হয়। ডায়াবিটিস এমন এক অসুখ, যা ধীরে ধীরে আয়ু কমিয়ে দিতে থাকে।

নিয়মিত সাইকেল চালালে সেই রোগের আশঙ্কা অনেকটাই কমে যায়। ফলে বাড়ে আয়ু। ‘জেএএমএ ইন্টারনাল মেডিসিন’ নামক জার্নালে প্রকাশিত হওয়া গবেষণাপত্রটি বলছে, শুধু শরীরচর্চা হিসেবে নয়, যাঁরা কাজের প্রয়োজনেই রোজ সাইকেল চালান, তাঁদের আয়ু বাড়ে। গবেষণাটির জন্য প্রায় ৭ হাজার মানুষকে বেছে নেওয়া হয়েছিল। তাঁরা প্রত্যেকেই ডায়াবিটিসের সমস্যা ভুগছিলেন।

প্রায় পাঁচ বছর ধরে তাঁদের নিয়মিত সাইকেল চালাতে বলা হয়।দেখা গিয়েছে, পাঁচ বছর ধরে নিয়মিত সাইকেল চালানোর ফলে তাঁদের ডায়াবিটিসের মাত্রা অনেক কমে গিয়েছে।সেখান থেকেই বিজ্ঞানীদের মত, পাঁচ বছর ধরে প্রতি দিন নিয়মিত সাইকেল চালালে ডায়াবিটিসের মাত্রা ৩৫ শতাংশ পর্যন্ত কমে যেতে পারে। তার ফলেই বাড়ে আয়ু। কিন্তু রোজ কতটা সাইকেল চালাতে হবে? তার স্পষ্ট উত্তর না দিলেও গবেষকরা বলেছেন, রোজ আধ ঘণ্টা সাইকেল চালানো ভাল। এতে ২৯৮ থেকে ৩৭২ ক্যালোরি পর্যন্ত ঝরতে পারে। ওই পরিমাণ ক্যালোরি ঝরলে লাভ হয় হৃদ্‌যন্ত্রেরও। তাতেই কমে হৃদ্‌রোগের আশঙ্কা।