সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে তৃণমূলের শিশির ও দিব্যেন্দু

সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে  তৃণমূলের  শিশির ও দিব্যেন্দু

শিশির অধিকারী (Sisir Adhikari) ও দিব্যেন্দু অধিকারী (Dibyendu Adhikari) কি এখনও তৃণমূলে রয়েছেন? দলের সঙ্গে ওই সাংসদের দূরত্ব এখন সর্বজনবিদীত। শিশিরের সাংসদ পদ নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লাকে একাধিকবার চিঠি দিয়েছে তৃণমূল (TMC)। তবে, এখনও সে বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। অপরদিকে, দূরত্ব বাড়লেও দিব্যেন্দু অধিকারীও এখনও খাতায়-কলমে তৃণমূলের সাংসদ। সেই সূত্রেই এবার তৃণমূল সাংসদ হিসেবেই সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে (New Parliament Committee) জায়গা পেলেন শিশির ও দিব্যেন্দু।

যদিও তৃণমূল এখনও এ বিষয়ে বিশেষ প্রতিক্রিয়া দেয়নি। শিশির অধিকারীকে রাখা হয়েছে গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটিতে ও দিব্যেন্দু অধিকারীকে রাখা হয়েছে রসায়ন-সার মন্ত্রকের সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে। তবে, সদ্যই নির্বাচিত হওয়া তৃণমূলের দুই রাজ্যসভার সাংসদ জহর সরকার (Jawhar Sircar) ও সুস্মিতা দেবকেও (Sushmita Dev) রাখা হয়েছে সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে। প্রসঙ্গত, লোকসভার স্পিকার ও রাজ্যসভার চেয়ারম্যান আলোচনার ভিত্তিতে সংসদের স্থায়ী কমিটির পুনর্গঠন করেছেন।

বিষয়টিতে গতি আনতে তৃণমূলের তরফেও বারবার আর্জি জানানো হয়েছিল। সেই সূত্রেই সংসদের স্থায়ী কমিটিগুলির মধ্যে খাদ্য, গণবণ্টন মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান পদে থাকছেন তৃণমূলের সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। ডেরেক ও ব্রায়েনকে পরিবহণ মন্ত্রক থেকে সরিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটিতে আনা হয়েছে। যে তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রকের সংসদীয় স্থায়ী কমিটি নিয়ে বিতর্ক হয়েছে নানা সময়ে, সেই কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন তৃণমূল নতুন রাজ্যসভার সাংসদ জহর সরকার।

আরেক নতুন রাজ্যসভার সাংসদ সুস্মিতা দেব জায়গা পেয়েছেন শিক্ষা ও ক্রীড়া মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটিতে। অপরিদকে, তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ নাদিমুল হককে তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রক থেকে সরিয়ে পরিবহণ মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটিতে আনা হয়েছে। অপরদিকে, আগেও প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটিতে ছিলেন রাহুল গান্ধি। তাঁকে ওই কমিটিতেই রাখা হয়েছে। এদিকে, মন্ত্রিসভা থেকে বাদ গেলেও এবার রবিশঙ্কর প্রসাদ, প্রকাশ জাভড়েকরদেরও সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে জায়গা দেওয়া হয়েছে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে অর্থ মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটিতে রাখা হয়েছে।