প্রথম কৃষ্ণনগরে এলেন তৃণমূল প্রার্থী রুপালি পর্দার অভিনেত্রী কৌশানী মুখার্জি

প্রথম কৃষ্ণনগরে এলেন  তৃণমূল প্রার্থী রুপালি পর্দার অভিনেত্রী কৌশানী মুখার্জি

কৃষ্ণনগর উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রের বরাদ্দ বেশকিছু বছর যাবৎ বহিরাগতর শাসন মেনে নিতে পারছেন না দলীয় কর্মী সমর্থকদের একটি বড় অংশ। কৃষ্ণনগর পৌর প্রশাসক অসীম সাহার ফেসবুক প্রোফাইলে প্রকাশ্যে এসেছিলো ক্ষোভের কথা, ভূমিপুত্র কে চায় কৃষ্ণনগরের মানুষ! আর তা নিয়ে জল্পনা দলের অন্দরমহলে। বিজেপির নেতৃত্ব এ বিষয়ে কটাক্ষ করে বলে , খেলা দলের মধ্যেই চলছে তৃণমূলের।

গত 2016 সালে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় কংগ্রেসের অসীম সাহা কে পরাজিত করে কৃষ্ণনগর উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রে নির্বাচিত বিধায়ক হন কলকাতা নিবাসী অবনী মোহন জোয়ারদার। শারীরিক অসুস্থতার কারণে, বেশিরভাগ সময়ই তিনি তার কেন্দ্রে উপস্থিত হতে পারতেন না বিভিন্ন দলীয় বা সরকারি কর্মসূচিতে। আরো একটু বড় করে দেখতে গেলে কৃষ্ণনগরবাসির লোকসভা কেন্দ্রে সংসদ তাপস পালকে নিয়েও যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছিলো

সুখ দুঃখের সাথী হিসেবে পেতে। এবারে আবারো রুপালি পর্দার কৌশানী মুখোপাধ্যায়! তৃণমূলের প্রার্থী মনোনীত হওয়ার পর তিনি আজই প্রথম পৌঁছালেন কৃষ্ণনগর। দলীয় কর্মী সমর্থকদের একটা বড় অংশকে না দেখা গেলেও কৃষ্ণনগর শহর তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি শিবনাথ চৌধুরীকে বেশ কিছু কর্মী সমর্থকদের নিয়ে কৌশানীর সাথে আগামী কাল থেকে শুরু হওয়া প্রচার ,নির্বাচনী বিভিন্ন কর্মসূচির, এবং তার বাসস্থানের  বিষয়ে আলোচনা রত অবস্থায় দেখা গেলো।

এক ঝলকে সাংবাদিকদের তিনি বলেন,  অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পক্ষ থেকে তার কাছে প্রস্তাব যায় তৃণমূলের প্রার্থী হওয়ার জন্য, রাজনৈতিক প্লাটফর্মে অনেক বেশি মানুষকে ভালো রাখার সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইনি, রাজি হয়ে গেলাম প্রার্থী হিসেবে, ছোটখাটো কিছু সমস্যা আছে, সকলের কাছে পৌঁছাবো হাতজোড় করে কোন অসুবিধা হবে না।

 অন্য আর পাঁচটা সাধারণ প্রার্থীর মতই, নির্বাচনে তিনিও সমস্ত কর্মসূচিতে উপস্থিত থাকবেন, পায়ে হেঁটে পৌঁছাবেন ভোট চাইতে বাড়ি বাড়ি। তবে আজ অন্য কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি গৃহীত হয়নি, শুধুমাত্র কৃষ্ণনগরের দু-একটি জায়গায় পুজো দিয়ে, আপাতত ভাড়া নেওয়া বাড়িতে  দলীয় কর্মীদের সাথে প্রাথমিক আলাপ সেরে ফেলবেন তিনি, এমনটাই জানা যায় দলীয় সূত্রে।