তৃণমূলের বিজয় মিছিলেও গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ইঙ্গিত, ব্যাপক বোমাবাজি নিজেদের মধ্যেই

তৃণমূলের বিজয় মিছিলেও গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ইঙ্গিত,  ব্যাপক বোমাবাজি নিজেদের মধ্যেই

তৃণমূলের বিজয় মিছিল ঘিরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, চলল রাতভর ব্যাপক বোমাবাজি। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। নদীয়ার শান্তিপুর থানার হরিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সাহেব ডাঙ্গা এলাকার ঘটনা। জানা যায় তৃণমূল কংগ্রেসের শান্তিপুর বিধানসভা উপনির্বাচনের জয়লাভের উপলক্ষে শান্তিপুর হরিপুর অঞ্চলের সাহেব ডাঙ্গা এলাকায় গতকাল রাতে একটি বিজয় মিছিল বের করা হয়।

সেখানে তৃণমূলের অপর এক গোষ্ঠীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এর পরেই হঠাৎ বোমাবাজি চলতে থাকে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী। শান্তিপুর থানার পুলিশ গিয়ে লাঠিচার্জ করে ঘটনাস্থল থেকে বেশ কয়েকজনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। আজ দুজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ রানাঘাট মহকুমা আদালতে তোলে।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে যাতে নতুন করে আর উত্তেজনা না ছড়ায় শান্তিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ এর নেতৃত্বে এলাকায় টহলদারি চালায় পুলিশ বাহিনী। যদিও বর্তমানে এলাকায় থমথমে। তৃণমূল কংগ্রেসের দাবি এটা বিরোধীদের চক্রান্ত। ওই বিজয় মিছিলে গোষ্ঠী কোন্দলের কোন রকম ঘটনা ঘটেনি। তবে এলাকায় সূত্রে জানা যায়, তৃণমূলের সক্রিয় দুটি গোষ্ঠীর কারণে এর আগেও বহুবার সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে এই সাহেব ডাঙ্গা গ্রাম।

মুড়ি মুরকির মতন বোমাবাজি ,পাটকাঠির গাদায় এবং ঘরে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার মতন নানান নানান ঘটনা সংবাদ শিরোনামে ছিলো। অপর একটি অংশের মত স্থানীয় একটি মসজিদ এবং খেলার মাঠের দখলদারি নিয়ে দ্বন্দ্ব অনেক আগের তারই বহিঃপ্রকাশ এটি। শান্তিপুর থানার পুলিশ রহস্য উদঘাটনে তদন্তে নেমেছে।