অর্শরোগকে নির্মূল করতে অবলম্বন করুন এই ঘরোয়া পদ্ধতিগুলি

অর্শরোগকে নির্মূল করতে অবলম্বন করুন এই ঘরোয়া পদ্ধতিগুলি

আজবাংলা  অর্শরোগ, পাইলস বা হেমোরয়েড এই নাম তিনটি যথেষ্ট। খুব পরিচিত একটি শারীরিক ব্যারাম। সাধারণত, ৪৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সীদের মধ্যে এই রোগের প্রভাব বেশি দেখা যায়। সম্প্রতি করা একটি সমীক্ষায় জানা গেছে যে, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৭৫% মানুষ এই রোগে আক্রান্ত।

এই রোগ সাধারণত হয়ে থাকে, ফাইবারযুক্ত খাবারের অভাব, কোষ্ঠকাঠিন্য, স্থূলতা, গর্ভাবস্থায়, দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে অথবা বসে থাকার অভ্যাস থেকে। সময়ের সাথে সাথে এই রোগ ভয়ঙ্কর রূপ ধারন করে। এই বিশেষ রোগের কোনও নির্দিষ্ট বয়সের গণ্ডিতে সীমাবদ্ধ নেই। 

এই রোগের সাধারন উপসর্গগুলি হল, মলদ্বার ফুলে ওঠা, মলদ্বারে যন্ত্রণা, রক্ত পড়া ইত্যাদি। নানাধরনের ওষুধ বা অস্ত্রপচারের মাধ্যমে  এই অর্শরোগ বা পাইলসের চিকিৎসা হয়। অনেকেই জানেন না যে, এর কিছু কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে। যার দ্বারা সময়ের সাথে সাথে এটিকে নির্মূল করা সম্বব।

আসুন দেখে নেওয়া যাক, সেই বিশেষ উপায়গুলি কি কি।

১. লেবুর রস ও আদাঃ অর্শরোগের আরেকটি বড় কারণ হল ডিহাইড্রেশন। আদাকুচি, লেবু এবং মধু সহযোগে মিশিয়ে দিনে দু’বার খেলে দারুন কাজ হয়। বিশেষ এই মিশ্রণটি রোজ খেলে অর্শরোগ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। এর পাশাপাশি, প্রত্যেকদিন কম করে ২ থেকে ৩ লিটার জল খেলেও অনেকটাই উপকার পাওয়া যায়।

২. অ্যালোভেরাঃ অর্শরোগের ক্ষেত্রে আক্রান্ত স্থানে অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে নিয়ে ম্যাসাজ করা উচিত। এটি অল্প সময়েই ব্যথা কমিয়ে দিতে সাহায্য করে। আবার থেকে অ্যালোভেরা পাতার কাঁটার অংশ কেটে জেল অংশটুকু একটি প্ল্যাস্টিকের প্যাকেটে ভরে ফ্রিজে রেখে দেবেন। এই ঠান্ডা অ্যালোভেরা জেলের টুকরো খানি ক্ষত স্থানে লাগিয়ে রাখুন। শুধু জ্বালা বা ব্যথাই নয়, এর পাশাপাশি চুলকানি কমিয়ে দেয়।

৩. বরফঃ অর্শ নিরাময় করার জন্য আরেকটি বিশেষ উপাদান হল বরফ। একটি কাপড়ে কয়েক টুকরো বরফ পেঁচিয়ে ব্যথার স্থানে ১০ মিনিট রাখুন। এভাবে দিনে বেশ কয়েকবার বরফ ব্যবহার করলে ভাল ফল পাবেন। ক্ষতস্থানে ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে।

৪. অলিভ অয়েলঃ প্রতিদিন এক চা চামচ অলিভ অয়েল খান। এটি দেহের প্রদাহ দ্রুত হ্রাস করতে সাহায্য করে। অর্শরোগে নিরাময়ের ক্ষেত্রে এটি খুবই কার্যকরী।

৫. অ্যাপেল সাইডার ভিনেগারঃ একটি তুলোর বল নিতে হবে। তারপর তাতে অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার লাগিয়ে ব্যথার স্থানে লাগাতে হবে। প্রথমদিকে এটি জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করবে কিন্তু কিছুক্ষণ পর এই জ্বালাপোড়া কমে যাবে।

এটি পদ্ধতিটিও দিনে বেশ কয়েকবার অবলম্বন করুন। অর্শরোগের জন্য এক চা চামচ অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার এক গ্লাস জলে মিশিয়ে দিনে দু’বার খান। এর সঙ্গে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিতে পারেন।