শিক্ষকতাকে নিজের পেশা হিসেবে বেছে নিতে চান?

শিক্ষকতাকে নিজের পেশা হিসেবে বেছে নিতে চান?

যে সকল প্রার্থীরা স্কুল শিক্ষকতাকে নিজেদের পেশা হিসেবে বেছে নিতে চান, তাঁদের জন্য এবার বড় সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্রীয় সরকার। ২০২০ সালে ঘোষিত নয়া শিক্ষানীতির উপর ভিত্তি করে এবার থেকে ৪ বছরের B.Ed কোর্স চালু করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। যে সকল পড়ুয়ারা চার বছরের এই B.Ed কোর্সটি করবেন, তাঁদের BA B.Ed অথবা B.Sc B.Ed অথবা B.Com BEd ডিগ্রি প্রদান করা হবে।

সাধারনত এই দুটি ডিগ্রি অর্জন করতে পাঁচ বছর সময় লাগে একজন পড়ুয়ার। এই কোর্সের মাধ্যমে ২টি ডিগ্রি একসঙ্গে প্রদান করা হবে প্রার্থীদের। এছাড়াও প্রার্থীদের এক বছর সময় বাঁচবে এই নতুন কোর্সটির মাধ্যমে। এই কোর্সের মাধ্যমে নয়া শিক্ষানীতির সঙ্গে অবগত শিক্ষক তৈরি করা সম্ভব হবে বলে আগেই জানিয়েছিলেন প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল নিশাঙ্ক।

নয়া শিক্ষানীতির মাধ্যমে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় আমুল পরিবর্তন আনার কথা ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় সরকার। পড়ুয়াদের সিলেবাসে আনা হয়েছে বেশ কিছু বদল। এবার থেকে আঞ্চলিক ভাষায় শিক্ষা প্রদান থেকে শুরু করে স্কুলে পড়ুয়াদের কোডিংও শেখানোর কথা ঘোষণা করা হয়েছে নয়া শিক্ষানীতিতে। ফলে, নয়া শিক্ষানীতির সঙ্গে অবগত থাকা প্রয়োজন শিক্ষকদের। সেই জন্যই এই নতুন পাঠ্যক্রম চালু করা হচ্ছে বলেই জানিয়েছে সরকার।

আগামী ২০৩০-এর মধ্যে এই চার বছরের স্নাতক সহ BEd ডিগ্রিকে শিক্ষকতার জন্য ন্যূনতম প্রয়োজনীয় ডিগ্রি হিসেবে চালু করার কথা জানিয়েছে সরকার। এই কারণেই National Council of Teacher Education (NCTE) ও কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রকের যৌথ উদ্যোগে এই কোর্সটি এমন ভাবেই ডিজাইন করা হয়েছে, যাতে সংশ্লিষ্ট ছাত্র-শিক্ষক নিজের পড়াশোনার বিষয়ের পাশাপাশি এডুকেশনেও ডিগ্রি অর্জন করতে পারবে। এই নতুন B.Ed কোর্সে 'বিশেষ ক্ষমতা সম্পন্ন শিশুদের' পড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। 

 আগামী ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষ থেকেই এই কোর্স চালু করা হবে বলে জানানো হয়েছে। একটি প্রবেশিকা পরীক্ষার মাধ্যমে এই কোর্সে ছাত্রভর্তি করা হবে। National Common Entrance Test (NCET) নামক এই পরীক্ষাটির আয়োজন করবে National Testing Agency। যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বহু সংখ্যক বিষয় পড়ানো হয়, এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে এই কোর্স করানো হবে।

এই ডিগ্রিকে আগামী দিনে স্কুলে শিক্ষকতার জন্য ন্যূনতম ডিগ্রি হিসেবে ধার্য করা হবে বলেই জানানো হয়েছে।  এছাড়াও, এক বছর ও দুই বছরের বিএড করার বিকল্প সুবিধেও প্রদান করা হবে পড়ুয়াদের। স্নাতক ডিগ্রিধারি প্রার্থীদের দুই বছরের বিএড করার সুযোগ প্রদান করা হবে। এছাড়া, স্নাতকোত্তর পর্যায়ের পড়ুয়াদের এক বছরের বিএড প্রোগ্রাম প্রদান করা হবে। যে সকল পড়ুয়া চার বছরের মাল্টিডিসিপ্লিনারি ব্যাচেলর ডিগ্রি বা তার সমতুল্য ডিগ্রি কোর্স সম্পন্ন করেছেন তাঁদেরকেও এই সুযোগ দেওয়া হবে। এই সকল প্রার্থীদের পরবর্তীতে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ করা হবে।