আপনার নামের প্রথম অক্ষর G থেকে M হলে আপনার চরিত্র কেমন হয়

আপনার নামের প্রথম অক্ষর G থেকে M হলে আপনার চরিত্র কেমন হয়

G= আপনার নামের ইংরেজি বানানের প্রথম অক্ষর G হলে বোঝায়, আপনি খুব বেশি চতুর। যার ফলে আপনি অনেক আগেই আন্দাজ পেয়ে যান কী ঘটতে যাচ্ছে। এই বুদ্ধিগত শক্তি থাকার ফলে আপনি একজন দূরদৃষ্টিসম্পন্ন ব্যক্তি হবেন। ফলে আপনার অর্থনৈতিক পরিকল্পনাগুলি প্রায় সব ক্ষেত্রেই সাফল্য লাভ করে। অন্যেরাও আপনার সাহায্যে বেশ উপকৃত হয়ে থাকেন। আপনার ভাবনা চিন্তাগুলি পুরোপুরি মৌলিক আর আপনি সব কিছু গুছিয়ে নিয়ে কাজ করতে ভালবাসেন। অনেক সময় আপনি নিজেকে অনুভব করেন আপনি একজন সাইকিক প্রকৃতির মানুষ।

H= H কি আপনার নামের বানানের প্রথম অক্ষর? তা হলে মিলিয়ে দেখুন তো, সত্যি আপনি একজন আলোকদৃষ্টি সম্পন্ন মানুষ কিনা? এই দৃষ্টির সাহায্যে অনেকবার আপনার আর্থিক পরিকল্পনার সাহায্যে অনেক অর্থ রোজগার করেছেন কিনা? যদিও জীবনের প্রথম দিকে আপনার অনেক ক্ষতিও হয়েছে এইরকম স্পেকুলেশান করতে গিয়ে। আপনার দীর্ঘমেয়াদী সৃষ্টিশীল পরিকল্পনাগুলি প্রায় সব ক্ষেত্রেই ভাল ভাবে সাফল্য লাভ করেছে। যদিও আপনি নিজেকে খুব গভীর থেকে গড়ে তুলেছেন। আর একটা কথা, আপনি হৈ-হুল্লোর সে ভাবে ভালবাসেন না, বরং আপনি একটু একাকী থাকতে ভালবাসেন। আর আপনার মধ্যে যে সন্দেহবাতিক ভাব রয়েছে তার জন্য আপনাকে নিজের ভিতর যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে। আপনি কিন্তু বেশির ভাগ সময় বাইরে কাটাতে ভালবাসেন।

I= আপনার ইংরাজি নামের বানানের প্রথম অক্ষর যদি I হয়ে থাকে, তা হলে আপনি প্রকৃতিগত ভাবে একজন হৃদয়বান মানুষ। আপনি সব সময় সব কিছুকে গভীর ভাবে অনুভব করেন। এর ফলে আপনি এক ধরনের বোধ অর্জন করেছেন, যার সাহায্যে আপনি শিল্পীসুলভ ও সৃষ্টিশীল মন পেয়েছেন। যেটা কাজে লাগিয়ে বড় কোনও প্রকল্পও গড়ে তুলতে পারেন অবলীলাক্রমে। হ্যাঁ, আপনি আপনার সৃজনশীল পরিকল্পনার মধ্যেই থাকুন, না হলে আপনার মধ্যে প্রচুর পরিমাণে দুশ্চিন্তা এসে বাসা বাঁধবে। এতে আপনার মানসিক তথা দৈহিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে। 

J= আপনি কি জানেন ‘জে ফর জাস্টিস’। আপনি সবসময় তুল্যমূল্য বিচার করে চলেছেন। সেটা আপনি যেমন নিজের জন্য করেন, ঠিক একই ভাবে অপরের ক্ষেত্রেও করেন। আপনি কাউকে বঞ্চিত করতে চান না, কাউকে কম বা বেশি দিতে চান না। আপনি সবার আত্মনিয়ন্ত্রণ বা স্বাধিকারকে সমর্থন করেন। আপনি এমন একজন বন্ধু, যে চায় সবাই সমান ভাবে খেয়ে পড়ে বাঁচুক। সবাই সুখে থাকুক। নিশ্চিত থাকুন, আপনার এইভাব আপনার জন্মগত প্রতিভাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে।

  1. আরও পড়ুন:     আপনার নামের প্রথম অক্ষর N থেকে S হলে চরিত্র কেমন হয়
  2.  আরও পড়ুন   আপনার নামের প্রথম অক্ষর A থেকে F হলে আপনার চরিত্র কেমন হয় 
  3. আরও পড়ুন:         আপনার নামের প্রথম অক্ষর T থেকে Z হলে আপনার সম্বন্ধে কী জানা যায়

K= K যদি আপনার ইংরাজি নামের বানানের প্রথম অক্ষর হয়ে থাকে, তা হলে আপনি নিজেকে বা নিজের অনুভবকে শুধু আলোকিত করেছেন তাই নয়, সেই সঙ্গে আলোকিত করেছেন আপনার শিল্প প্রতিভাকে। আপনি কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে খুব গভীর থেকে তাকে নিয়ে নানা ভাবে নাড়াচাড়া করে দেখে থাকেন। আপনার চারপাশে সকলে আপনাকে এমন ভাবে চেনে যে তারা সব সময় আপনার উপর ভরসা রেখে চলতে পারে। কারণ আপনি নিজেই একটা বল বা শক্তির আধার, অন্ততপক্ষে তাদের কাছে। সাবধানে থাকবেন, ইতস্তত ভাব ও দুশ্চিন্তা আপনাকে থেকে থেকেই বিঁধতে পারে।

L= আপনার ইংরাজি নামের বানানের প্রথম অক্ষর যদি L হয়ে থাকে, তা হলে আপনাকে জানাতেই হচ্ছে যে, আপনি একজন ভীষণভাবে মস্তিষ্ক নির্ভর ব্যক্তি বা কিছুটা অধিক কল্পনাপ্রবণ মনের অধিকারী। আপনার মধ্যে সব সময় কোনও একটা বিষয় নিয়ে অতিরিক্ত চিন্তা করার প্রবণতা কাজ করে। এটা যে কোনও অর্থেই শরীরের পক্ষে খারাপ। দীর্ঘকাল এই প্রক্রিয়া চলতে থাকলে, ভবিষ্যতে সিদ্ধন্তহীনতায় ভুগতে হবে। অথচ আপনি ভীষণ সৎ, উদার, সহ্যশীল মানসিকতার, দয়াবান হার্দিক চরিত্রের লোক। আপনি ভ্রমণ করতে ভালবাসেন। খুব দুশ্চিন্তার ভিতর দিয়ে চলার ফলে যে ভুলগুলি আপনি করে ফেলেন তার জন্য খুব একটা ভাবার কিছু নেই, সেগুলিকে তেমন নজর দেওয়ারও কিছু নেই।

M= আপনার নামের বানানের প্রথম অক্ষর কি M? যদি হয়, তা হলে আপনি কিন্তু কাজ পাগল মানুষ। কাজ ছাড়া আপনি থাকতে পারেন না। আপনার এনার্জি মারাত্মক। অদ্ভুত ব্যাপার, আর সকলের মতো আপনার খুব বেশি ঘুমের সে ভাবে দরকার নেই। প্রকৃতিগত ভাবে তবুও আপনার স্বাস্থ্য ভাল থাকবে। আপনি ঘরে থাকতে ভালবাসেন না। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন নিশ্চিত আর্থিক উৎস। সেই ব্যাপারে আপনি ব্যতিব্যস্ত থাকতে হয়। আপনার ক্রমাগত মুভমেন্টার জন্যে আপনার মধ্যে অধৈর্য বাতাবরণ সৃষ্টি করতে পারে যার দ্বারা অপরে যাতে অসুবিধার সম্মুখিন হতে না হয় সেটা আপনাকেই দেখতে হবে।