গার্ডেনরিচের ব্যবসায়ীর সঙ্গে কি প্রভাবশালী-যোগ? উদ্ধার ১২ কোটি টাকা

গার্ডেনরিচের ব্যবসায়ীর সঙ্গে কি প্রভাবশালী-যোগ? উদ্ধার ১২ কোটি টাকা

গার্ডেনরিচে নাসের আহেমদ খান নামে এক পরিবহণ ব্যবসায়ীর বাড়ি থেকে কোটি কোটি টাকা উদ্ধার করেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। এখনও পর্যন্ত  ১২ কোটি টাকারও বেশি উদ্ধার হয়েছে। টাকা গোনার কাজ এখনও চলছে। ঘটনায় মূল অভিযুক্ত নাসের খানের ছেলে আমির খান। ইডির তরফে জানানো হয়েছে, ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পার্ক স্ট্রিট থানায় একটি এফআইআর করা হয়েছিল।

সেই সূত্র ধরেই এদিন কলকাতার ছয় জায়গায় হানা দেয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার পৃথক পৃথক দল। ওই পরিমাণ আরও বাড়তে পারে বলেই তল্লাশিকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) সূত্রে খবর। গার্ডেনরিচের পরিবহণ ব্যবসায়ী নিসার আহমেদ খান এবং আমির খানের বাড়িতে বিকেল ৪টে পর্যন্ত ঢুকেছে আট নম্বর টাকা গোনার যন্ত্র। পৌঁছে গিয়েছেন স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার আধিকারিকরাও।

কলকাতা শহর এবং রাজ্যের বাসিন্দারা এখন কৌতূহলি এটা জানতে যে, ওই বিপুল পরিমাণ অর্থের আসল মালিক কে, তার উৎস কী এবং সবচেয়ে মহার্ঘ প্রশ্ন— এর সঙ্গেও কি কোনও প্রভাবশালীর যোগ রয়েছে? একইসঙ্গে আরও একটি বিষয় নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছে। তা হল— ওই ব্যবসায়ীর বাড়ির দোতলায় খাটের নীচে যে টাকার বান্ডিল রাখা আছে, সেই ‘খবর’ অত সুনির্দিষ্ট ভাবে তদন্তকারী সংস্থার কাছে গেল কী করে! এক কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার প্রাক্তন আধিকারিকের কথায়, ‘‘নির্দিষ্ট তথ্য এবং খবর না-পেলে এত নিখুঁত ভাবে কোথাও হানা দেওয়া বা তল্লাশি করা সম্ভব নয়।

নির্দিষ্ট টিপ অফের ভিত্তিতেই এই অভিযান হচ্ছে। পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবীর বাড়িতেই হোক বা এই গার্ডেনরিচের ব্যবসায়ীর বাড়িতে— কোথাও কিন্তু টাকার সন্ধান পেতে দেওয়াল ভাঙতে হয়নি বা কোনও অতিরিক্ত পরিশ্রম করতে হয়নি! যা থেকে এটা অনুমান করা যেতেই পারে যে, পাকা খবর ছিল।’’ সেই সূত্রেই প্রশ্ন, কে বা কারা ইডির কাছে ওই সুনির্দিষ্ট তথ্য পৌঁছে দিচ্ছে এবং দিচ্ছে।

ওই প্রাক্তন আধিকারিকের আরও অভিমত, ‘‘দেখে বোঝা যাচ্ছে যে, ওই টাকা খুব সম্প্রতিই এনে রাখা হয়েছিল। হতে পারে, শুক্রবার রাতে ওই টাকা এনে খাটের তলায় রাখা হয়েছিল। অথবা বৃহস্পতিবার। টাকা সরানোর আগেই খবর চলে গিয়েছে। কারণ, এত টাকা দীর্ঘদিন ধে কেউ নিজের বাড়িতে ফেলে রাখে না। সেটা খুব স্বাভাবিক নয়। ফলে ধরে নিতে হবে, ওই টাকা খুব বেশিদিন ধরে ওই বাড়িতে রাখা নেই।

সেক্ষেত্রে দ্রুত তদন্তকারী সংস্থার কাছে খবর গিয়েছে।’’ শনিবার কলকাতার মোট ছ’টি জায়গায় তল্লাশি অভিযান শুরু করে ইডি। তার পরেই গার্ডেনরিচ এলাকার ব্যবসায়ীর বাড়ির খাটের তলায় প্লাস্টিকে মোড়া ৫০০ এবং ২০০০ টাকার নোটের বান্ডিল উদ্ধারের কথা জানাজানি হয়। ইডি সূত্রের দাবি, কোটি কোটি টাকা কোথা থেকে পেয়েছেন, কী ভাবে তাঁর খাটের তলায় এলো ওই বান্ডিল,

তার কোনও সদুত্তর আমির খান নামে ওই ব্যবসায়ী দিতে পারেননি। প্রত্যাশিত ভাবেই ওই বিপুল টাকা উদ্ধারের ঘটনায় রাজনীতির রং লেগেছে। রাজ্যের শাসকদলকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে বিরোধীরা। অন্য দিকে, শাসক তৃণমূলের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে বাংলার নেতা-মন্ত্রী তো বটেই, এখন ব্যবসায়ীদেরও ‘টার্গেট’ করেছে বিজেপি। সেই তর্কবিতর্ক, আলোচনা-সমালোচনা চলছে। সমানতালে চলছে টাকা গোনা। 

 মন্ত্রী তথা কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম (গার্ডেনরিচ যাঁরা নির্বাচনী এলাকার মধ্যে পড়ে) আবার ওই ঘটনায় বিজেপিকে একহাত নিয়েছেন। তাঁর দাবি, এ ভাবে বাংলার ব্যবসায়ীদের ভয় দেখানোর কৌশল নিয়েছে কেন্দ্রের সরকার। যেন তেন প্রকারেণ বাংলার অর্থনৈতিক অবস্থা টালমাটাল করাই তাদের লক্ষ্য। এক জন মাঝারি ব্যবসায়ীর বাড়ি থেকে এত টাকা কী ভাবে থাকে, সেই প্রশ্ন তুলছেন বিরোধী রাজনীতিকরা। সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীর কটাক্ষ, ‘‘কালো টাকার রাজত্ব গড়ে উঠেছে দেশের সাংস্কৃতিক রাজধানীতে।’’

প্রত্যাশিত ভাবেই তিনি আঙুল তুলেছেন তৃণমূল সরকারের দিকে। নাম করেছেন পরিবহণ দফতরের। পরিবহণ মন্ত্রী স্নেহাশিস চক্রবর্তীর পাল্টা মন্তব্য, ‘‘আইন আইনের পথে চলবে। টাকা উদ্ধারের ঘটনায় পরিবহণ ব্যবসায়ী বা কোন ব্যবসায়ী, তিনি তৃণমূল নাকি সিপিএম করেন, এ সব নির্ধারণ করা ঠিক নয়।’’ কংগ্রেস নেতা অধির চৌধুরী জানান, ‘পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল নেতার ঘরে ঢুকলেই টাকা। পার্থবাবুর বিষয় দেখা গেল। থরে-থরে টাকার নোট উদ্ধার। দিদি বলবেন আমার ওগুলো কবিতার বই ছিল। বাংলার মানুষের কাছে দিদির চেহারা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে।’