শীতে আয়ুর্বেদর কোন লাইস্টাইল আপনাকে চাঙ্গা রাখবে? এক ক্লিকেই সব সমাধান

শীতে আয়ুর্বেদর কোন লাইস্টাইল আপনাকে চাঙ্গা রাখবে? এক ক্লিকেই সব সমাধান

প্রাচীনকাল থেকেই জীবনধারণ, খাদ্যগ্রহণ ও সুস্থ জীবনশৈলী নিয়ে নানা চর্চা হয়েছে আয়ুর্বেদশাস্ত্রে। ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে খাবার ও বিশ্রামের অভ্যাসও যে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে রয়েছে সে কথা বারবার উল্লেখ করেছে আয়ুর্বেদ। শীত আসছে।

এই সময় নানা সংক্রমণ, হজমের সমস্যাসহ শরীর একাধিক সমস্যার সম্মুখীন হয়। জেনে নিন কী ভাবে জীবনধারণের পরামর্শ দিচ্ছে আয়ুর্বেদ।আয়ুর্বেদ ও ঋতুচক্র: ঋতুর সঙ্গে সমাঞ্জস্য রেখে জীবনধারণের বার্তা দেয় আয়ুর্বেদ। এ ক্ষেত্রে ছয় ঋতুকে উত্তরায়ণ ও দক্ষিণায়ণে ভাগ করা হয়েছে।

 এই ছয় ঋতু হল শিশির (শীতকাল), বসন্ত (বসন্ত), গ্রীষ্ম (গরমকাল বা গ্রীষ্ম), বর্ষা (বর্ষাকাল), শারদ (শরত্‍কাল), হেমন্ত (হেমন্তকাল)। আয়ুর্বেদ বলছে, প্রতি ঋতুর একটি আলাদা প্রভাব রয়েছে। প্রতিটি ঋতুতে নানা নতুন রোগের সম্ভাবনা রয়েছে। তাই নিয়ম মেনে খাবার খাওয়া জরুরি।

এই শীতে কেমন জীবনশৈলীর কথা বলছে আয়ুর্বেদ, জেনে নিন।

*ডায়েটে পরিবর্তন আনুন: আয়ুর্বেদ অনুযায়ী খাবারের কয়েকটি ভাগ রয়েছে। এগুলি হল মিষ্টি (মধুর), নোনতা (লবণ), টক (অম্ল), তেতো (তিক্ত) ও কষায় (কাস্য)। আর এই সব মেনে ব্যালান্স ডায়েট খাওয়ার কথা বলে আয়ুর্বেদ।

তবে এই শীতের সময়ে কেবল মিষ্টি, লবণ ও টকজাতীয় খাবারের মধ্যে ভারসাম্য বজায়ের কথা বলছে এই প্রাচীন চিকিত্‍সাশাস্ত্র।এই সময়ে অম্ল অর্থাত্‍ ভিটামিন C খাওয়াটা খুব জরুরি। কারণ রোগপ্রতিরোধের পাশাপাশি নানা সংক্রমণের হাত থেকেও বাঁচাতে পারে এই ভিটামিন। তবে বাসি ও ঠান্ডা খাবার থেকে দূরে থাকুন।

*পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন: গ্রীষ্মের তুলনায় তেমন ক্লান্তি অনুভব করেন না আপনি শীতে। এই সময়ে দিন ছোট, রাত বড় হয়। তাই সমস্ত বিষয়গুলির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে আপনাকে। আর সেই মতো পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন। সকালে তাড়াতাড়ি উঠুন আর রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমোতে যান।

শরীরচর্চা করুন: নিয়মিত শরীরচর্চা ও যোগব্যায়াম আপনাকে সুস্থ রাখবে। এই শীতে কোনও বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে কিছু যোগাসনের অভ্যাস করুন।

*একটি নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলুন: খাওয়া, জলপান, শরীরচর্চার পাশাপাশি নিয়ম মেনে বিশ্রাম করুন। বেশিক্ষণ খালি পেটে থাকবেন না। নির্দিষ্ট সময়ে খাবার খেয়ে নিন। রাতে অল্প খাবার খান। ঘুমোতে যাওয়ার তিন ঘণ্টা আগে রাতের খাবার খেয়ে নিন। যদি খিদে পেয়ে যায়, হালকা কিছু খান।

আয়ুর্বেদ বলছে, অতিরিক্ত পরিমাণ মশলা, তেল বা ফ্যাটজাতীয় খাবার এড়িয়ে যান। নানা ধরনের স্যুপ, মরশুমি সবজি, ফল খান। গাজর, বিট, মুলো, সবুজ শাক-সবজি খান। এই সবের পাশাপাশি হলুদ মেশানো একগ্লাস গরম দুধ এই শীতে আপনাকে চাঙ্গা রাখবে। দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এটি। ঘুমোতে যাওয়ার দু'-তিন ঘণ্টা আগে হলুদ মিশ্রিত এক গ্লাস গরম দুধ খান। এতে আপনার ঘুমও ভাল হবে।