কলকাতার পুজোয় আসতে চলেছে কেদারনাথের মন্দির

কলকাতার পুজোয় আসতে চলেছে কেদারনাথের মন্দির

আজবাংলা   কলকাতার পুজো মানে দুর্গাপুজো। দুর্গাপুজো মানেই কলকাতাবাসীর ফেভারিট ডেস্টিনেশন শ্রীভূমি স্পোর্টিং। আর শ্রীভূমির পুজো মানেই চমকের পর চমক। তবে এই মহামারী করোনার কারনে শ্রীভূমি স্পোর্টিং এর কাজ এখনো সেই অর্থে শুরুই হয়নি। সেই মৌর্য সাম্রাজ্যের প্রাচীন মন্দির থেকে বাহুবলী বা পদ্মাবতের চিতোরের দুর্গ ইত্যাদি করে একে একে বহু স্থাপত্যের নিদর্শনের জায়গা করে নিয়েছে শ্রীভূমি।

এইবছরের বিশেষ চমক হল কেদারনাথের মন্দির। কেদারনাথের মন্দিরের গঠন অনুযায়ী এবছর শ্রীভূমি স্পোর্টিংয়ের ক্লাব মণ্ডপ সেজে উঠবে। এই প্রসঙ্গে শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের সম্পাদক দিব্যেন্দু কিশোর গোস্বামী জানিয়েছেন, " আমাদের পুজো অবশ্যই হবে। কাজ এখন শুরু হয়নি। কেদারনাথ মন্দিরের আদলে গড়ে উঠবে মণ্ডপ।"  এই বছরে শুরু থেকেই করোনা যে ভয়াল রূপ ধারন করে, তার কারনে বন্ধ হয়ে গেছে অনেক কিছুয়েই। বাদ যায়নি মন্দির, মসজিদ ও গির্জায়ও। করোনার কারনে বন্ধ কেদারনাথ যাত্রা। সেইকারনে এই বছর যাওয়ার কথা থাকলে, তা বাতিল করা হয়েছে।আবার অনেকের কাছে খরচের কারনে যাওয়া সম্ভব নয়।তাই সব মিলিয়ে এ'বছর পুজোয় কেদারনাথ ভ্রমণের অপূর্ণ সাধ কিছুটা হলেও মিটবে, বলে আশা  রেখেছেন ক্লাবের কর্তারা।

মানুষের মনে প্রশ্ন জেগেছে এবারেই কেন 'কেদারনাথ' মন্দির? সুশান্ত সিং রাজপুত অভিনীত ছবি কেদারনাথ মুক্তি পায় ১৯ সালে। এই ছবিটি মানুষের মনে এক বিশেষ জায়গা করে নায়। এরপর এই বছরই জুনের ১৪ তারিখ মৃত্যু হয় সুশান্তের। তারপর থেকে ক্রমশ বেড়েছে  নানান জটিলতা। তাই তাঁর স্মৃতিতেই কি এই মণ্ডপ পরিকল্পনা করা হবে? মানুষের মনে জেগেছে এই ভাবনা? যদিও এই ধারণা একেবারেই মেনে নেয়নি বলেই জানিয়েছেন শ্রীভূমি স্পোর্টিংয়ের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেছেন, "আমাদের পাড়ার মণ্ডপের একটা পাকাপাকি লোহার কাঠামো রয়েছে। এবারে করোনার জন্য বিশেষ কিছু করা সম্ভব নয়। কিন্তু যে কাঠামো রয়েছে, তাতে কেদারনাথ মন্দিরের আদল দেওয়া যাবে সহজেই। তাই সেই কথা ভেবেই এই থিমের ভাবনা। তার সঙ্গে অভিনেতার মৃত্যু বা তাঁর অভিনীত ছবির কোনও সম্পর্ক নেই।